28 C
dhaka
নীড় বিশ্ব নেতৃত্ব

বিশ্ব নেতৃত্ব

Bangladeshi scientist leads cosmic study offering clearer look at black holes

In September 2020, preeminent American science biweekly – Science News – named 10 scientists in the world – all under 40 years of age – whom it considered the most promising in their respective fields of scientific works. Bangladeshi scientist Tonima Tasnim Ananna, then only 29 years of age, made it to the Science News’ – ‘10 Scientists to Watch’ – list being the youngest of the lot.

Science News, now in its 100th year of publication, praised her feat saying: “Tonima Tasnim Ananna is bringing the heaviest black holes out of hiding. She has drawn the most complete picture yet of black holes across the universe — where they are, how they grow and how they affect their environments.”

Two years later, Tonima and her team at the United States’ Dartmouth College have now advanced mankind’s knowledge about black holes and lights emitted therefrom, which have long mystified researchers.

Supermassive black holes are believed to reside at the center of nearly all large galaxies. The space objects devour galactic gas, dust and stars. By knowing how fast a black hole is feeding, its mass, and the amount of radiation nearby, researchers can determine when some black holes underwent their biggest growth spurts. That information, in turn, can tell them about the history of the universe.

When new images captured by Nasa’s James Webb Space Telescope help scientists understand some of the most powerful forces in the universe, Ananna and her team’s latest study is clarifying the mystery of supermassive black holes in the rapid growth stage, known as active galactic nuclei or AGN.

“The light signatures from these objects have mystified researchers for over a half-century,” says Tonima Tasnim Ananna, currently a Postdoctoral Research Associate in Professor Ryan Hickox’s group at Dartmouth College. She is the lead author of a new paper on the special family of black holes, published last month in the Astrophysical Journal (ApJ), run by the American Astronomical Society.

Light coming from near supermassive black holes can have different colors with varied levels of brightness and spectral signatures. Until recently, researchers believed that the differences depended on viewing angle and how much a black hole was obscured by its “torus,” a doughnut-shaped ring of gas and dust that usually surrounds active galactic nuclei.

But Ananna, Ryan Hickox and their other team members challenged this model and they have found that the black holes look differently because they are actually in separate stages of the life cycle.

According to a Dartmouth College news report, the team’s study found that the amount of dust and gas surrounding a supermassive black hole is directly related to how actively it is growing. When a black hole is feeding at a high rate, the energy blows away dust and gas. As a result, it is more likely to be unobscured and appear brighter.

The research provides some of the strongest evidence yet that there are fundamental differences between supermassive black holes with different light signatures, and that these differences cannot be explained only by whether the observation is taking place through or around an AGN’s torus.

“This provides support for the idea that the torus structures around black holes are not all the same,” the Dartmouth College report quoted Hickox, the study co-author, as saying. “There is a relationship between the structure and how it is growing.”

Taking the study to larger distances of the Universe
In an email interview with Dhaka Tribune, Ananna says, their research will open up pathways to better understand where do the supermassive black holes come from, eventually giving us more knowledge about the universe as a whole.

“This result is the current snapshot of the Universe, but as we look at greater distances, we look further back in time, and we want to understand how black holes have evolved over time, so my team’s next steps will be to expand our study to larger distances of the Universe,” explained Ananna, a graduate from Bryn Mawr College who obtained her master’s and doctorate degrees from Yale University.

Talking about Nasa’s James Webb Space Telescope (JWST), Ananna says: “The Hubble Telescope was launched in 1990, and provided us with images of galaxies with unprecedented clarity. This spurred the astronomical community into action to build a telescope that could provide even greater clarity and see even further back in time, and thus, the JWST was proposed. This telescope has been in the making for the last two decades. In fact, when I was an intern in Nasa’s Space Telescope Science Institute (STScI) in 2011, the gold-plated mirrors were already built and assembled, and I got to see them and meet Dr. Jane Rigby, the Goddard Space Flight Center Astrophysicist who presented the JWST images to President Biden this July.”

“She has been working on this telescope for about 15 years, and a lot of people have spent an entire career building this telescope. There are many risk factors associated with a launch like this, so it is truly amazing that all their hard work has paid off.”
Ananna further states: “The JWST is an infrared telescope, whereas the Hubble Space Telescope is an optical telescope. These are two distinct parts of the electromagnetic spectrum. We can see optical light using our eyes. We can feel infrared as heat, and we see the effect of ultraviolet rays on our skin. Each wavelength shows a different aspect of the Universe to us.”

“The advantage of infrared light over optical light in observing the Universe is that infrared wavelengths are bigger, so it can penetrate a lot of dust and gas, giving us a clearer view of hidden things that would be difficult to detect using optical light – such as the majority of supermassive black holes. The topic of my research is supermassive black holes, so I am excited to start looking into data from the JWST.”

Besides providing amazing images, according to Ananna, the JWST will lead to many scientific breakthroughs. She thinks: “So the next decade would be a very exciting time for infrared Astrophysics, and for communicating science to the general public!”

At an early age Ananna realized there were other worlds
When Ananna was a 5-year-old in Dhaka, Bangladesh, her mother told her about the Pathfinder spacecraft landing on Mars. Her mother was a homemaker, she says, but was curious about science and encouraged Ananna’s curiosity, too.

“That’s when I realized there were other worlds,” she says. “That’s when I wanted to study astronomy.”

There were not a lot of opportunities to study space in Bangladesh, so she came to the United States for undergrad, attending Bryn Mawr College in Pennsylvania. She chose an all-women’s school not known for a lot of drinking to reassure her parents that she was not “going abroad to party.” Although Ananna intended to keep her head down and study, she was surprised by the social opportunities she found. “The women at Bryn Mawr were fiercely feminist, articulate, opinionated and independent,” she says. “It really helped me grow a lot.” Traveling for internships at Nasa and CERN, the European particle physics laboratory near Geneva, and a year at the University of Cambridge, boosted her confidence. (She did end up going to some parties — “no alcohol for me, though.”)

Now, Ananna is giving back. She co founded Wi-STEM (pronounced “wisdom”), a mentorship network for girls and young women who are interested in science. She and four other Bangladeshi scientists who studied in the United States mentor a group of 20 female high school and college students in Bangladesh, helping them find paths to pursue science.

ইউএন উইমেন নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি বাংলাদেশ

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা ২০২২ সালের জন্য ইউএন উইমেন নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন।

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে সংস্থাটির ৫ সদস্যবিশিষ্ট ব্যুরোর এ নির্বাচন মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়। এতে সহসভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত আর্জেন্টিনা, ইউক্রেন, আইসল্যান্ড এবং সিয়েরা লিওনের স্থায়ী প্রতিনিধিরা।

মঙ্গলবার জাতিসংঘ বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এই নির্বাচনের মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো ইউএন উইমেন নির্বাহী বোর্ডের সভাপতির দায়িত্ব পেল।

নির্বাহী বোর্ড ইউএন উইমেনকে কৌশলগত দিকনির্দেশনা প্রদান করে থাকে। জাতিসংঘের এই সংস্থাটি লিঙ্গ সমতা ও নারীর ক্ষমতায়নের জন্য নিবেদিত। বোর্ডের সভাপতি হিসেবে বাংলাদেশ ইউএন উইমেনের কাজকে আরও বেগবান করতে অবদান রাখার সুযোগ পাবে।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় রাষ্ট্রদূত ফাতিমা তাকে নির্বাচিত করার জন্য বোর্ড-সদস্যদের ধন্যবাদ জানান। সারাবিশ্বে বিশেষ করে কোভিড-১৯ মহামারির এই সময়ে নারী ও মেয়েরা যেসব চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, তা মোকাবিলায় ইউএন উইমেনের বোর্ড সদস্যরা বাংলাদেশের নেতৃত্বের প্রতি যে আস্থা রেখেছেন, সে জন্যও তাদের ধন্যবাদ জানান বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি।

ফাতিমা বলেন, এক মুহূর্ত বিলম্ব করার মতো সময় আমাদের হাতে নেই। আমাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে কোভিড ১৯-এর ক্ষতি পুনরুদ্ধারের পরিকল্পনায়ই লিঙ্গ-সমতা নিশ্চিত করা হয়েছে এবং সব অংশীজন অর্থাৎ সরকারি-বেসরকারি খাত ও এনজিওগুলো তা বাস্তবায়নে একসঙ্গে কাজ করছে। এ ছাড়া ইউএন উইমেনকে আমাদের প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা প্রদান ও সম্পদ সরবরাহ করতে হবে, যাতে প্রতিষ্ঠানটি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার সব প্রচেষ্টায় অগ্রভাগে থাকতে পারে।

রাষ্ট্রদূত ফাতিমা আশ্বস্ত করেন, নতুন নির্বাহী বোর্ড চ্যালেঞ্জিং এই সময়ে ইউএন উইমেন এর কাজকে আরও এগিয়ে নিতে কঠোর পরিশ্রম করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। লিঙ্গ সমতা ও নারীর ক্ষমতায়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখা এবং নারী ও মেয়েদের জন্য নিবেদিত বিশ্বের শীর্ষ স্থানীয় ও চ্যাম্পিয়ন প্রতিষ্ঠান হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার জন্য ইউএন উইমেনের প্রশংসা করেন। এর কাজের স্বীকৃতি প্রদান করেন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি। তিনি বিশ্বব্যাপী কর্মরত ইউএন উইমেনের সব কর্মীর প্রতি শ্রদ্ধা জানান। যারা মহামারির এই চ্যালেঞ্জের মধ্যেও নিষ্ঠা, একাগ্রতা ও সাহসের সঙ্গে তাদের ওপর অর্পিত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।

ইউএন উইমেনের নির্বাহী পরিচালক রাষ্ট্রদূত সিমা বাহাউস নবনির্বাচিত সভাপতিকে স্বাগত জানান। তিনি বলেন, ইউএন উইমেন নতুন সভাপতির অভিজ্ঞতা ও প্রজ্ঞা থেকে উপকৃত হওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে। বাহাউস আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে রাষ্ট্রদূত ফাতিমা ব্যুরোর দিকনির্দেশনা প্রদানের মাধ্যমে ইউএন উইমেনের কাজে নেতৃত্ব প্রদান করবেন।

এর আগে রাষ্ট্রদূত ফাতিমা ২০২০ সালে ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি এবং ২০২১ সালে ইউএনডিপি/ ইউএনএফপিএ/ইউএনওপিএসের এক্সিকিউটিভ বোর্ডের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

অস্ট্রেলিয়ায় ইতিহাস গড়লেন বাংলাদেশি দুই নারী

এবারই প্রথম অস্ট্রেলিয়ায় নারী কাউন্সিলর হিসেবে দুজন বাংলাদেশি নির্বাচিত হয়েছেন। দেশটিতে বাংলাদেশিদের বসবাসের ইতিহাস প্রায় ৬০ বছরের। এ দীর্ঘ সময়ে এবারই প্রথম তারা নির্বাচিত হয়েছেন।

চার জন বাংলাদেশি নারী এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। তবে তাদের মধ্যে লেবার পার্টির সাবরিন ফারুকী এবং লিবারেল পার্টির সাজেদা আক্তার সানজিদা বিজয়ী হন। এ দুজনই প্রথম বাংলাদেশি নারী হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার কাউন্সিল নির্বাচনে অংশ নেন।

করোনা মহামারিতে বিধিনিষেধে দুবার তারিখ পরিবর্তনের পর গত ৪ ডিসেম্বর দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের ১২৪টি সিটি কাউন্সিল এলাকার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এবারের নির্বাচনে রাজ্যের ৫ মিলিয়নেরও বেশি ভোটার ভোট দেন। অস্ট্রেলিয়ার নিয়ম অনুযায়ী ভোট দেওয়া প্রত্যেক নাগরিকের জন্য বাধ্যতামূলক। অনুপস্থিত ভোটারের জন্য রয়েছে ৫৫ ডলার জরিমানা।

নির্বাচন পরিচালনায় সরকারের কোভিড-১৯ নিরাপদ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বাসিন্দাদের জন্য প্রাক-নির্বাচন ভোটিং ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এ ব্যবস্থায় ভোটাররা নির্বাচনের আগেই গত ২২ নভেম্বর থেকে তাদের সুবিধা মতো যেকোনো দিন ভোট দিতে পেরেছেন।

মহামারির ঝুঁকিতে রাজ্য সরকার এ বছর অগ্রিম ভোটের জন্য নাগরিকদের উৎসাহিত করেছে। এরই অংশ হিসেবে ছিল পোস্টাল ভোটিংয়ের ব্যবস্থাও।

এবারের রাজ্য কাউন্সিল নির্বাচনে প্রায় ৩০ জন বাংলাদেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এদের মধ্যে পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন ক্যাম্পবেলটাউন সিটি কাউন্সিল থেকে মাসুদ চৌধুরী এবং কাম্বারল্যান্ড থেকে সুমন সাহা। তারা দুজনই বর্তমানের বিরোধী দল লেবার পার্টি মনোনীত প্রার্থী। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রিজিওনাল কাউন্সিল ডাব্বো থেকে নির্বাচিত হয়েছেন শিবলি চৌধুরী।

বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির নির্বাহী সদস্যপদে নির্বাচিত বাংলাদেশ

আগামী দুই বছরের জন্য বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির নির্বাহী কমিটির সদস্যপদে নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশ। বৈশ্বিক এই সংস্থার ৪৯ সদস্যের কাউন্সিল পরিষদে গত ২ ডিসেম্বর সংস্থাটির সদর দফতরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে বাংলাদেশ সর্বসম্মতিক্রমে জয়লাভ করেছে।

ইতালির রোমে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস জানিয়েছে, এই বিজয় বৈশ্বিক দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল করবে এবং বিশ্ব খাদ্য সংক্রান্ত নীতিগত সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পদক্ষেপ নিতে পারবে।

ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. শামীম আহসান দেশের পক্ষে বৈশ্বিক এই সংস্থায় প্রতিনিধিত্ব করছেন।

শেখ হাসিনার অর্জন

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
2/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
3/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
4/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
5/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
6/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
7/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
8/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
9/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
10/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
11/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
12/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
13/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
14/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
15/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
16/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
17/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
18/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
19/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
20/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
21/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
22/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
23/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
24/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
25/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
26/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
27/28

Details Image

প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48
28/28
প্রকাশিত হয়েছে 26th সেপ্টেম্বর 2021 15:48

ইউএনডাব্লিউটিও কমিশন ফর সাউথ এশিয়ার ভাইস চেয়ার বাংলাদেশ

বিশ্ব পর্যটন সংস্থার (ইউএনডাব্লিউটিও) কমিশন ফর সাউথ এশিয়ার (সিএসএ) ২০২১-২৩ মেয়াদে দুই বছরের জন্য সর্বসম্মতিক্রমে ভাইস চেয়ার নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ইউএনডাব্লিউটিওর মহাসচিব জুরাব পোলোলিকাশভিলির সভাপতিত্বে সদস্য দেশগুলোর অংশগ্রহণে কমিশন ফর এশিয়া প্যাসিফিক ও কমিশন ফর সাউথ এশিয়ার যৌথভাবে আয়োজিত ভার্চুয়াল সম্মেলনে বাংলাদেশ ভাইস চেয়ার হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

বাংলাদেশের পাশাপাশি ইরান সিএসএর ভাইস চেয়ার নির্বাচিত হয়েছে। এর আগে ২০১৯-২১ মেয়াদে কমিশন ফর সাউথ এশিয়ার ভাইস চেয়ার ছিল ভারত ও শ্রীলঙ্কা।
বিশ্ব পর্যটন সংস্থা জাতিসংঘের পর্যটনবিষয়ক বিশ্ব সংস্থা। ছয়টি আঞ্চলিক সংগঠনের সমন্বয়ে এর কার্যক্রম পরিচালিত হয়, যার মধ্যে সিএসএ অন্যতম।

বাংলাদেশের এই অর্জন প্রসঙ্গে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেন, ‘বিশ্ব পর্যটন সংস্থার কমিশন ফর সাউথ এশিয়ায় ভাইস চেয়ার পদে নির্বাচিত হওয়ায় বাংলাদেশ এই অঞ্চলের পর্যটন ব্যবস্থাপনায় নেতৃত্বের স্থানে আসীন হলো। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর মাহেন্দ্রক্ষণে আমাদের এই অর্জন বাংলাদেশের পর্যটন উন্নয়নে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।’

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে অদম্য গতিতে অগ্রসর হওয়ার পাশাপাশি বিশ্বসভায়ও বিভিন্ন সংস্থায় নেতৃত্ব দিচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ কমিশন ফর সাউথ এশিয়ার ভাইস চেয়ার নির্বাচিত হলো। এই অর্জন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবং এর অধীন সংস্থাগুলোর সব কর্মচারীকে বাংলাদেশের পর্যটন বিশ্বমানে উন্নীত করতে কাজ করার অনুপ্রেরণা জোগাবে।

সাকেপে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম মহাপরিচালক ড. মাছুমুর রহমান

শ্রীলঙ্কার কলোম্বোতে অবস্থিত দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সংস্থা সাউথ এশিয়া কো-অপারেটিভ এনভায়রনমেন্ট প্রোগ্রাম (SACEP) এর প্রথমবারের মত বাংলাদেশের পক্ষে মহাপরিচালক নিযুক্ত হয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের যুগ্ম সচিব ড. মাছুমুর রহমান।

মঙ্গলবার (২৯ জুন) বাংলাদেশ সচিবালয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে তার অফিস কক্ষে সাকেপে এর নবনিযুক্ত মহাপরিচালক ড. মো. মাছুমুর রহমান এক সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

কৃষিমন্ত্রীর সহকারী মাসুদ গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য নিশ্চিত করেন। এসময় মন্ত্রী দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে জলবায়ু পরিবর্তনের বিভিন্ন ক্ষতিকর দিক এবং এর থেকে উত্তরণে সাকেপের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেন।

কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দক্ষিণ এশিয়ায় পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় SACEP গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

কৃষিমন্ত্রী বাংলাদেশ থেকে প্রথমবারের মতো নবনিযুক্ত মহাপরিচালককে অভিনন্দন জানান এবং তাকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন। মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, পরিবেশ ও জলবায়ু সুরক্ষায় দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে আগামী দিনগুলোতে বাংলাদেশের ভূমিকা ও নেতৃত্ব আরো সুদৃঢ় হবে।

সাকেপের সদস্য দেশগুলো বাংলাদেশ, ভুটান, শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল ও আফগানিস্তান। সাকেপের মাধ্যমে পারস্পরিক সহযোগিতা, টেকনোলজি ট্রান্সফার, সচেতনতা বৃদ্ধি ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে এ অঞ্চলে পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় বাংলাদেশ নেতৃত্ব দিয়ে একসঙ্গে কাজ করবে।

বাংলাদেশ এই প্রথমবারের মত সাকেপের মহাপরিচালক পদ পেয়েছে। নবনিযুক্ত মহাপরিচালক ও সরকারের যুগ্ম সচিব ড. মাছুমুর রহমান বর্তমানে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। এর আগে তিনি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ও পটুয়াখালী জেলার সফলতা ও সুনামের সঙ্গে জেলা প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করেছেন।

তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ

যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ স্বীকৃতি পাচ্ছেন শেখ হাসিনা

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর নেতৃত্বে বাংলাদেশের অবদানের জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকারের বিশেষ সম্মাননা ও স্বীকৃতি পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বিশেষ দূত ও জলবায়ু বিষয়ক উপদেষ্টা জন কেরি এই সুসংবাদ বয়ে নিয়ে এসেছেন বলে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্র।

ঢাকাস্থ যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসও বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আট ঘণ্টার সফরে পৌঁছান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জলবায়ুবিষয়ক বিশেষ দূত ও উপদেষ্টা উপদেষ্টা জন কেরি।

দুপুরে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘আগামী ২২-২৩ এপ্রিল, প্রেসিডেন্ট জোসেফ বাইডেনের ‘লিডার্স সামিট অন ক্লাইমেট’-এর প্রস্তুতির অংশ হিসেবে জন কেরির আজকের এই ঢাকা সফর। যেখানে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর নেতৃত্বে বাংলাদেশের অবদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বীকৃতি পাবেন।’

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রেসিডেন্টের বাইডেনের জলবায়ু বিষয়ক বিশেষ দূত জন কেরি জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রশমন ও অভিযোজনের প্রয়াসে বাংলাদেশ এবং অন্য ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর সঙ্গে অংশীদারত্বের জন্য সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা করতে আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, পরিবেশমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, ভালনারেবল ফোরাম প্রেসিডেন্সির বিশেষ দূত আবুল কালাম আজাদ, সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী এবং আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করছেন।

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম ও ভালনারেবল টোয়েন্টি গ্রুপ অব ফাইন্যান্স মিনিস্টার্সের চেয়ার হিসেবে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা এবং জলবায়ু ঝুঁকির সঙ্গে খাপ খাওয়ানো ও সহনশীলতা অর্জনে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস জানায়, বৈশ্বিক উষ্ণায়ন নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন জোরদার করতে যুক্তরাষ্ট্রের যে অঙ্গীকার, তার গুরূত্বই তুলে ধরছে কেরির এই সফর। প্রেসিডেন্টের বিশেষ দূতের আলোচনায় জলবায়ু নীতি, বিনিয়োগ, উদ্ভাবন এবং টেকসই অর্থনৈতিক বিকাশের মাধ্যমে সমৃদ্ধি বাড়ানোর ক্ষেত্রে সহযোগিতার ওপর আলোকপাত করা হবে।

জলবায়ু অর্থায়ন নিয়ে আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সঙ্গে একটি গোলটেবিল বৈঠকেও অংশ নেবেন বাইডেনের বিশেষ দূত কেরি। যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার তার সরকারি বাসভবনে এই আলোচনার আয়োজন করবেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জলবায়ু সংকট রোধে প্রশমন ও অভিযোজনকে সহায়তা দিতে এবং সমৃদ্ধিকে সমর্থন জোগাতে যে বিনিয়োগ দরকার। তা সংগ্রহের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও বেসরকারি খাতের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলার আন্তর্জাতিক উদ্যোগে গুরূত্বপূর্ণ নেতা হিসেবে বিবেচিত বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে যুক্তরাষ্ট্র কতটা গুরূত্ব দেয়, কেরির এই সফর সেটি তুলে ধরেছে বলে বিবৃতিতে বলা হয়।

নভেম্বরে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশনের (ইউএনএফসিসিসি) ২৬তম কনফারেন্স অফ দ্য পাটিজ (কপ২৬) অনুষ্ঠিত হওয়ার আগে এই সফরের অংশ হিসেবে আবুধাবি ও নয়াদিল্লিতেও যাত্রা বিরতি করেন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের এই বিশেষ দূত।

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মিলারের উদৃতি দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘আপনারা আগেও দেখেছেন এবং অব্যাহতভাবে দেখবেন যুক্তরাষ্ট্র কীভাবে জলবায়ু পরিবর্তনকে আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় এবং বহুপক্ষীয় আলোচনার সব পর্যায়ে যুক্ত করছে।

‘এসব আলোচনায় আমরা অন্য নেতাদের জিজ্ঞেস করছি, আমরা একসঙ্গে কীভাবে আরও বেশি কাজ করতে পারি। গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্র প্যারিস চুক্তিতে আনুষ্ঠানিকভাবে পুনরায় যোগদানের পর এক বিবৃতিতে একথা বলেন সেক্রেটারি অব স্টেট অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।’

ডি-৮ সভাপতি হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

উন্নয়নশীল দেশগুলোর জোট ডি-৮-এর দশম শীর্ষ সম্মেলনে সংস্থার সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামী দুই বছর তিনি এ পদে দায়িত্ব পালন করবেন।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) জোটের বৈঠকে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও সংস্থার বর্তমান সভাপতি রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোয়ানের কাছ থেকে দায়িত্ব গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ডি-৮-এর দশম শীর্ষ সম্মেলনের শুরুতে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট উদ্বোধনী ভাষণ দেন এবং এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে সভাপতিত্বের দায়িত্ব তুলে দেন।

শীর্ষ সম্মেলনে ভাষণ দেয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ডি-৮-এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে এই সংগঠনের জন্য তার সবসময়ই একটি বিশেষ দুর্বলতা রয়েছে। ১৯৯৭ সালে ডি-৮ প্রতিষ্ঠার সময় তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ইস্তাম্বুলে প্রথম শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন। ১৯৯৯ সালে ঢাকায় দ্বিতীয় ডি-৮ শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার সময়ও শেখ হাসিনা সভাপতিত্ব করেছিলেন।

উন্নয়নশীল-৮ নামে পরিচিত ডি-৮ অর্থনৈতিক সহযোগিতার জন্য আটটি উন্নয়নশীল মুসলিম-প্রধান দেশ- বাংলাদেশ, মিশর, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, মালয়েশিয়া, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান ও তুরস্কের সমন্বয়ে গঠিত হয়।

ডি-৮-এর সব রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান, পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা, ডি-৮ মহাসচিব প্রতিনিধিরা ভার্চুয়ালি এই সম্মেলনে যোগ দেন।

বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধুকে তুলে ধরতে ৫০ দেশ ঘুরবে গাড়ি

বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধুকে তুলে ধরতে বিশ্বের ৫০টি দেশ ঘুরবে এক বিশেষ গাড়ি। আগামী সেপ্টেম্বরের নরওয়ের নর্থ কেপ থেকে সেই বিশেষ গাড়ির যাত্রা শুরু হবে। ৫০টি দেশ ঘুরে সেই গাড়ি বাংলাদেশেও আসবে।

ফিনল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেনসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের প্রবাসী বাংলাদেশি ও বাংলাদেশিদের উদ্যোগে ‘ভেহিকেল অব বাংলাদেশ: নর্থ কেপ টু ন্যাশনাল মনুমেন্ট’ নামের এই কর্মসূচির বিস্তারিত জানাতে সম্প্রতি রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ‘বিশ্ব ঘুরবে সোনার বাংলা; বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ ক্যাম্পেইনের অধীনে এই কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন কর্মসূচির প্রধান সমন্বয়ক ও সাংবাদিক কাজী আজিজুল ইসলাম। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কর্মসূচির সহযোগী পরিকল্পনাকারী ও সমন্বয়ক কাজী চয়ন। এ ছাড়া কর্মসূচির পরিকল্পনাকারী ও সমন্বয়ক মতিউর রহমান এবং ইউরোপে কর্মসূচির সাংগঠনিক উপদেষ্টা ওফিউল হাসনাত অনলাইনে যুক্ত হয়ে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন।

বক্তারা জানান, আগামী সেপ্টেম্বরে নরওয়ের নর্থ কেপ থেকে একটি অটোহোম বা বিশেষভাবে তৈরি গাড়ি তিন শতাধিক শহর ঘুরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও অবদানকে তুলে ধরবে। এটি শুধু বাংলাদেশ বা বাংলাদেশের বন্ধু প্রতিষ্ঠানের লোগো, ব্র্যান্ড বা স্লোগানে আচ্ছাদিত একটি বড় গাড়ি নয়, একটি চলন্ত মেগা ইভেন্ট। এটি বিভিন্ন কর্মসূচি, প্রমোশন স্পেস এবং মূলধারার মিডিয়া ও সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে বহুমুখী প্রচারণার জন্য পরিকল্পিত বৈশ্বিক কর্মসূচি।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, পর্যটন, আর্থসামাজিক অগ্রগতি, ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্ভাবনাসহ বাংলাদেশের বহুমুখী পরিচয় ও সম্ভাবনাও তুলে ধরা হবে।

তথ্যসূত্র: প্রথমআলো

ভাসানচরে মুক্ত জীবনে রোহিঙ্গারাঃ চোখে-মুখে খুশির ঝিলিক চলাফেরার স্বাধীনতা ও সুযোগ-সুবিধায় স্বাচ্ছন্দ্য

 

স্বপ্নেও ভাবিনি এমন বাড়ি পাব। কক্সবাজারের ক্যাম্পের সঙ্গে এর কোনো তুলনা হবে না। ক্যাম্পে ছিল পলিথিনের ঘর, এখানে কংক্রিটের বাড়ি। এত সুবিধা পৃথিবীতে আমাদের জন্য আর কোথাও নেই। এমন বাসায় আমরা আগেও থাকতে পারিনি। ভবিষ্যতেও পারব কিনা জানি না। এসব বক্তব্য কক্সবাজার ক্যাম্প থেকে ভাসানচরে আশ্রয় নেওয়া মোহাম্মদ মাহমুদ উল্লাহর। আগের দিন নোয়াখালীর ভাসানচরে স্থানান্তরিত হওয়া ১৬৪২ রোহিঙ্গার একজন তিনি। মাহমুদ উল্লাহর মতো চোখে-মুখে খুশির ঝিলিক দেখা গেল রোহিঙ্গাদের চোখে-মুখে। চলাফেরার স্বাধীনতা ও সুযোগ-সুবিধায় স্বস্তি ফুটে উঠেছে প্রায় সব রোহিঙ্গার মাঝে। গতকাল সকালেই দেখা গেল ক্লাস্টার ভবনের সামনে দোকানে রোহিঙ্গাদের জটলা। কেউ জিনিসপত্রের দাম জিজ্ঞাসা করছে। কেউ নিজেদের মধ্যেই আলোচনায় ব্যস্ত। শিশুরা দলবেঁধে খেলায় মেতেছে। কিছুক্ষণের মধ্যে খাবার পৌঁছাতেই ব্যস্ত হয়ে গেলেন মহিলা। পরিবারের সদস্যদের জন্য খাবার বুঝে নিলেন ঘরে বসেই। ভাসানচরের ৬ ও ৭ নম্বর ক্লাস্টার ঘুরে কথা হয় বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গার সঙ্গে। তাদের প্রত্যেককে শুক্রবার ছয়টি জাহাজে করে চট্টগ্রাম থেকে নিয়ে আসা হয় নোয়াখালীর ভাসানচরে। থাকার পরিবেশ ও নতুন ঘর পেয়ে ভাসানচরে নতুন জীবন শুরু করে মিয়ানমারে অত্যাচার-নির্যাতন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হওয়া এসব রোহিঙ্গা।

কক্সবাজারের বালুখালী ক্যাম্প থেকে ভাসানচরে আসা মোহাম্মদ আলী উল্লাহ বলেন, অনেক ধরনের ভয় দেখানো হয়েছিল। বলা হচ্ছিল, পানি উঠবে। ভাসিয়ে নিয়ে যাবে। কুমিরে খাবে। কিন্তু এখানে এসে দেখলাম কিছুই না। পানি ওঠার কোনো সম্ভাবনাই নেই। আলী উল্লাহ জানান, কক্সবাজারের ক্যাম্পের রাস্তায় যাওয়া যেত না। রাত ১০টায় যখন তখন ধরে নিয়ে যেত। টাকা-পয়সা কেড়ে নিত। কিন্তু এখানে নিরাপত্তার কোনো সংকট নেই। সারা রাত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোক পাহারায় আছে। চলাচলেও কোনো বাধা দিচ্ছে না।

আবদুস শুকুর বলেন, এখানে এসে ভুল ভেঙেছে। আগে বেড়ার বাইরে যাওয়ার কথা ভাবাও যেত না। কিন্তু এখানে নেই বিধিনিষেধ। মুক্ত জীবনের যে মজা তা এখানে পাচ্ছি। এখন কাজ করতে চাই। এখানে অনেক জায়গাজমি আছে। সেখানে চাষাবাদের সুযোগ পেলে ভালো হয়। মোহাম্মদ হোসেন জানান, মিয়ানমার থেকে বাবা-মাসহ চার ভাই প্রত্যেকের পরিবার নিয়ে এসেছেন বাংলাদেশে। প্রত্যেকেই আশ্রয় নিয়েছেন কক্সবাজারের ক্যাম্পে। তার মধ্যে আমি এখানে এসেছি পরিবার নিয়ে, বাকিরা আছে কক্সবাজারে। এখানে দেখতে চাই, যা বলা হচ্ছে সব হবে কি না। মাসখানেক সময় নিয়ে বিচার-বিশ্লেষণ করে পরিবারের অন্যদের সঙ্গে কথা বলল। তখন তারা আসতে চাইলে আসবে। যোবায়ের হোসেন বলেন, আত্মীয়স্বজন যারা ক্যাম্পে আছে তাদেরও এখানে আসতে বলব। তারা যদি এখানে আসতে না চায় তাহলে আমরা বেড়াতে যাব। কিন্তু আমরা এ দ্বীপ ছেড়ে যাব না। চাকরি পেলে চাকরি করব। না হলে যে কোনো কাজ করে জীবিকানির্বাহ করব। মোছাম্মত ফাতেমা বলেন, ২০১২ সালে মিয়ানমার থেকে আসার পর এত শান্তিতে আর কোনো রাত কাটাইনি। আমি খুবই খুশি। সরকারকে ধন্যবাদ আমাদের জন্য এত সুন্দর বাড়ি ও সুযোগ-সুবিধা দেওয়ায়। আবদুর রহমান বলেন, বালুখালী ক্যাম্পে চলাচল করতে গিয়ে অনেক সময় গায়ে হাত দিত। ক্যাম্পের বাইরে গেলে চোর বলত। আবার বেড়ার ঘরে চোর ঢুকত। কিন্তু এখানে পাকা ঘর। কেউ চাইলেও আমার ঘরে ঢুকতে পারবে না। তালা দেওয়া থাকলে পুরোপুরিই নিরাপদ। সামাদ বলেন, এখানে মাদরাসা আছে, স্কুল আছে। খেলার মাঠ আছে। অনেক খোলামেলা। আগের চিপা পরিবেশে আর থাকতে হচ্ছে না। তাই আমরা খুবই খুশি।

বালুখালী ক্যাম্প থেকে আসা মাজেদা বলেন, সরকার যেভাবে খুশিতে রাখছে, আমরা চাই সরকার সেভাবেই আমাদেরকে খুশিতে রাখুক। একটা কথা আছে যে, ছেলেমেয়েরা সরকারের কথা মানবে, তারা কখনই কষ্ট পাবে না। আমরা সরকারের কথা মানছি, আমরাও কষ্ট পেতে চাই না। অতিরিক্ত শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ শামছুদ্দৌহা বলেন, ভাসানচরে আসা প্রত্যেককে আমরা নিয়মিত মানবিক সহায়তা করে যাব। ইতিমধ্যে তাদের নিজেদের যেসব মালামাল কক্সবাজার থেকে নিয়ে এসেছে সেগুলো বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেককে রান্না করা খাবার সরবরাহ করা হয়েছে। তবে আমরা দ্রুত সবাইকে সেটেল্ড ডাউন করার চেষ্টা করছি। দু-এক দিনের মধ্যে সবার জন্য চুলার ব্যবস্থা করা হবে। সেখানেই তারা রান্না করে খেতে পারবে। পাশাপাশি অন্য সব মানবিক সহায়তা আমরা করে যাব। ভাসানচরে আসা ২২টি বেসরকারি সংস্থার জোট এনজিও অ্যালায়েন্স অব ভাসানচরের সমন্বয়ক ও পালস বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী সাইফুল ইসলাম চৌধুরী কলিম জানান, প্রত্যেকের জন্য খাবার সরবরাহের পাশাপাশি কম্বল, শীতের কাপড়, শুকনো খাবার সরবরাহ করা হবে। পরবর্তীতে তাদের জন্য প্রয়োজনীয় সবজি, চাল, ডাল ইত্যাদি সরবরাহ করা হবে। পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে চাষাবাদের পাশাপাশি নারীদের জন্য সেলাই মেশিন ও অন্যান্য জীবিকার চাহিদা মেটানোর। ভাসানচরে থাকা নোয়াখালী সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সমন্বয়ক ডা. মাহতাব উদ্দিন বলেন, ভাসানচরে আসা প্রত্যেক রোহিঙ্গার করোনাভাইরাস সংক্রান্ত স্ক্রিনিং করা হয়েছে। এর বাইরে কারও জ¦র সর্দি বা আনুষঙ্গিক উপসর্গ আছে কিনা সে খবর রাখা হচ্ছে। ভাসানচরের প্রকল্প পরিচালক কমোডর আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ভাসানচরে থাকা রোহিঙ্গাদের জন্য চিকিৎসার সব সুব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ২০ শয্যার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এ মুহূর্তে সরকারি-বেসরকারি তিনজন ডাক্তার ও ছয়জন প্যারামেডিক কাজ করছেন। পাশাপাশি নৌ বাহিনীর মেডিকেল কোরের দল আছে সহায়তার জন্য। স্থানান্তরের জন্য স্পিডবোট রাখা হয়েছে। এ ছাড়া জরুরি যে কোনো পরিস্থিতিতে যোগাযোগের সুবিধা দেওয়ার কথা জানিয়েছে বিমান বাহিনী। সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা গেছে, মূলত ক্লাস্টার হাউস, শেল্টার স্টেশন বা গুচ্ছগ্রামকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প। আপাতত চারটি ক্লাস্টার হাউস ব্যবহার হলেও প্রকল্পে রয়েছে মোট ১২০টি ক্লাস্টার হাউস। পরিকল্পিত নকশায় ভূমি থেকে প্রতিটি ক্লাস্টার হাউস চার ফুট উঁচু করে নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি হাউসে ১২টি বাড়ি এবং প্রতিটি গৃহে ১৬টি রুম। প্রতিটি রুমে পরিবারের চারজন করে থাকতে পারবে। নারী-পুরুষের জন্য রয়েছে আলাদা টয়লেট ও গোসলখানা। খাদ্য মজুদের জন্য এখানে সুবিশাল গোডাউন নির্মাণ করা হয়েছে। রয়েছে চারটি সুরক্ষিত ওয়্যার হাউস (খাদ্যগুদাম)। এসব গুদামে তিন মাসের খাবার মজুদ রাখা যাবে। নামাজ আদায়ের জন্য তৈরি করা হয়েছে তিনটি মসজিদ। পরিকল্পনা রয়েছে মোট ১ লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থান দেওয়ার।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের ‘শান্তির সংস্কৃতি’ রেজ্যুলেশন গৃহীত

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে প্রতিবছরের মতো এবারও বাংলাদেশ উত্থাপিত ‘শান্তির সংস্কৃতি’ রেজ্যুলেশনটি সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় প্রাপ্ত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশের পক্ষে রেজ্যুলেশনটি সাধারণ পরিষদে উপস্থাপন করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা। এ সময় তিনি কোভিড-১৯ মহামারী সৃষ্ট চ্যালেঞ্জগুলো কাটিয়ে উঠতে ‘শান্তির সংস্কৃতি’
-এর মহান বার্তা

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিতে জাতিসংঘ সদস্য রাষ্ট্রসহ সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের প্রতি আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রথমবারের সরকারের সময় ১৯৯৯ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে রেজ্যুলেশনটি প্রথমবারের মতো গৃহীত হয়। এর পর থেকে প্রতিবছর বাংলাদেশ ‘শান্তির সংস্কৃতি’ রেজ্যুলেশনটি জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে উপস্থাপন এবং এর বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ের একটি ফোরামের আয়োজন করে আসছে। এ বছরের ১০ সেপ্টেম্বর ভার্চুয়ালভাবে ‘শান্তির সংস্কৃতি : কোভিড-১৯-এর সময়ে পৃথিবীকে আবার ভালো অবস্থায় ফিরিয়ে আনা’ শীর্ষক উচ্চ পর্যায়ের ফোরামটি অনুষ্ঠিত হয়। কোভিড-১৯ সৃষ্ট অনাকাক্সিক্ষত সংকট মোকাবিলার ক্ষেত্রেও যে শান্তির সংস্কৃতির প্রাসঙ্গিকতা রয়েছে উচ্চ পর্যায়ের ওই ফোরাম তারই স্বীকৃতি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সর্বসম্মতিক্রমে রেজ্যুলেশনটি গ্রহণ শান্তির সংস্কৃতিকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের নেতৃত্বের প্রতি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের গভীর বিশ্বাস ও আস্থার বহিঃপ্রকাশ। রেজ্যুলেশনটিকে উদারভাবে সমর্থনের জন্য রাষ্ট্রদূত ফাতিমা সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন রেজ্যুলেশনটির সার্বজনীনতার কারণেই আজ জাতিসংঘের প্রধান প্রধান কার‌্যাবলিতে ‘শান্তির সংস্কৃতি’ একটি প্রভাব সৃষ্টিকারী ধারণায় পরিণত হতে পেরেছে।

দ্বিতীয়বারের মতো সিভিএফের নেতৃত্বে বাংলাদেশ

দ্বিতীয়বারের মতো জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকির মুখে থাকা দেশগুলোর জোট ‘ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম-সিভিএফ এবং ‘ভালনারেবল টোয়েন্টি’ বা ভি-২০ গ্রুপের সভাপতির দায়িত্ব নিয়েছে বাংলাদেশ। আগামী ২০২০-২০২২ মেয়াদে এ দুই জোটের সভাপতির দায়িত্ব পালন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে মার্শাল আইল্যান্ড থেকে এ দায়িত্ব গ্রহণ করার কথা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। তিনি বলেন, ‘সিভিএফ ও ভি-২০ গ্রুপের সভাপতি হিসবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ঝুঁকির মুখে থাকা দেশগুলোর কণ্ঠস্বর হয়ে উঠবে এবং আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মে তাদের স্বার্থ তুলে ধরবে।’ এর আগে ২০১১ থেকে ২০১৩ মেয়াদে এ জোটের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিল বাংলাদেশ। ৪৮টি দেশ নিয়ে গঠিত উচ্চ পর্যায়ের আন্তর্জাতিক ফোরাম সিভিএফ বৈশ্বিক উষ্ণায়ন মোকাবেলায় কাজ করার পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কাজ করে। গত মেয়াদে সিভিএফের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন মার্শাল আইল্যান্ডসের প্রেসিডেন্ট হিলডা হাইন। বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকির মুখে থাকা দেশগুলোর অবস্থান তুলে ধরার লক্ষ্য নিয়ে ২০০৯ সালে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলনের আগে সিভিএফ প্রতিষ্ঠা করেছিল মালদ্বীপ। সংবাদ সম্মেলনে মার্শাল আইল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কাস্টেন এন নেমরা বলেন, ‘আশা করি, ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর পক্ষে কথা বলার ক্ষেত্রে ’ভাষাহীনদের ভাষা’ হয়ে উঠবে বাংলাদেশ।’ সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে ইথিওপিয়ার বন, পরিবেশ ও জলবায়ুবিষয়ক কমিশনার ফেকাদু বেয়েনে, পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন উপস্থিত ছিলেন।

করোনা মোকাবেলায় ফোর্বসের সফল নারী নেতৃত্বের তালিকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বিশ্বের জনপ্রিয় ফোর্বস ম্যাগাজিনে করোনা মোকাবেলায় সফল নারী নেতৃত্বের তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে বলা হয়, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের শুরুতে যেই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে বাংলাদেশে তা এখনো কার্যকর করতে পারেনি যুক্তরাজ্য।

এর আগে করোনা মোকাবেলায় নারী নেতৃত্বে সফলতা বেশি আসছে বলে এক প্রতিবেদনে জানায় ফোর্বস ম্যাগাজিন। তখনও করোনার সংক্রমণ বাংলাদেশে সেভাবে দেখা যায়নি। এ সময় ৬ জন নারী নেতৃত্বের কথা উল্লেখ করা হয়। কিন্তু এই প্রতিবেদনের দ্বিতীয় পর্বে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া করোনা মোকাবেলায় বিভিন্ন দেশের কার্যক্রম পর্যালোচনা করে নতুন করে ৮ নারী নেতৃত্বের নাম ঘোষণা করা হয় যেখানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় ফোর্বস ম্যাগাজিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের প্রশংসা করে লেখেন, প্রায় ১৬ কোটিরও বেশি মানুষের বসবাস বাংলাদেশে। সেখানে দুর্যোগ কোন নতুন ঘটনা নয়। আর এই করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করেননি তিনি (শেখ হাসিনা)। তার এই তড়িৎ সিদ্ধান্তের প্রশংসা করে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরাম (উই ফোরাম) বিষয়টিকে ‘প্রশংসনীয়’ বলে উল্লেখ করেছে। বাংলাদেশে সবচাইতে দীর্ঘ সময় প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা শেখ হাসিনা ফেব্রুয়ারির শুরুতেই চীনে থাকা বাংলাদেশিদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে আসার পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। মার্চের শুরুতে প্রথম সংক্রমণের বিষয়টি নিশ্চিত হবার সঙ্গে সঙ্গে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেন এবং কম গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে অনলাইনে কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশ দেন। তিনি দেশের সকল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে করোনা রোগী শনাক্ত করতে স্ক্রিনিংয়ের জন্য মেশিন ব্যবহার করেন যেখানে এখন পর্যন্ত ৬ লাখ ৫০ হাজার মানুষকে পরীক্ষা করা হয়েছে (এদের মধ্যে ৩৭ হাজার মানুষকে দ্রুত কোয়ারেন্টাইনে প্রেরণের নির্দেশ দেয়া হয়), যা এখনো যুক্তরাজ্য কার্যকর করতে পারেনি।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি এই তালিকায় আরো রয়েছেন বলিভিয়ার নেতৃত্ব দেয়া জেনাইন অ্যানেজ, ইথিওপিয়ার সাহলে-ওর্ক জেওডে, জর্জিয়ার সালোমেজ জওরাবিচভিলি, হংকংয়ের ক্যারি লাম, নামিবিয়ার সারা কুগংগেলোয়া, নেপালের বিদ্যা দেবী বান্দ্রে এবং সিঙ্গাপুরের হালিমাহ ইয়াকব।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় ফোর্বস ম্যাগাজিন দাবি করছে, বিশ্বের যে সব দেশে করোনার লাগাম টেনে ধরতে পেরেছে সেগুলোর নেতৃত্বে রয়েছে নারীরা। ম্যাগাজিনটিতে উদাহরণস্বরূপ জার্মান, তাইওয়ান, আইসল্যান্ড , নিউজিল্যান্ড, ফিনল্যান্ড ও ডেনমার্কের কথা বলা হয়।

কোভিড-১৯ জরুরি তহবিলঃ অনুদান দেয়ায় শেখ হাসিনার প্রতি মোদির কৃতজ্ঞতা

কোভিড-১৯ জরুরি তহবিলে অনুদান দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভয়াবহ করোনাভাইরাস মোকাবেলায় কোভিড-১৯ জরুরি তহবিল গঠন করা হয়।

সোমবার এক টুইট বার্তায় মোদি বলেন, ‘কোভিড-১৯ জরুরি তহবিলে ১৫ লাখ মার্কিন ডলার অর্থ দেয়ার ঘোষণা দেয়ায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ।’ তিনি বলেন, আমাদের ঐক্য ও যৌথ প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা কোভিড-১৯-এর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে পারব। শেখ হাসিনা কোভিড-১৯ জরুরি তহবিলে ১৫ লাখ মার্কিন ডলার দেয়ার ঘোষণার একদিন পর মোদি তার এ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলেন।

সম্প্রতি সার্ক (দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা) নেতাদের সঙ্গে এক ভিডিও কনফারেন্সে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ তহবিল গঠনের প্রস্তাব করেন। ভারত ভয়াবহ করোনাভাইরাস মোকাবেলায় প্রাথমিকভাবে তহবিলে এক কোটি মার্কিন ডলার দেয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন রোববার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণ এশিয়ায় করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় স্বাস্থ্য সংকট মোকাবেলায় সার্ক সচিবালয় বরাবরে মৌখিকভাবে এ তহবিল অনুমোদন করেন।

তিনি বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সার্ক সচিবালয় ও ভারত সরকারের বরাবর করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের ১৫ লাখ মার্কিন ডলার দেয়ার প্রতিশ্রুতি বিষয়ে নোট ভারবাল পাঠাবে। মন্ত্রী বলেন, এখন এ তহবিলের অর্থ করোনা মোকাবেলায় ব্যয় করা হবে। কিন্তু পরে এ অঞ্চলের জনগণের স্বাস্থ্য ঝুঁকি মোকাবেলায় এ তহবিলের অর্থ খরচ করা হবে। ওই তহবিলে নেপাল ও আফগানিস্তান ১০ লাখ করে, মালদ্বীপ দুই লাখ ও ভুটান এক লাখ মার্কিন ডলার দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

Bangladesh allows education for Rohingya children

Rohingya refugee children attend a class to learn Burmese language at a refugee camp in Cox's Bazar, Bangladesh [File: Mohammad Ponir Hossain/Reuters]

Rights groups and activists have welcomed Bangladesh’s decision to allow Rohingya children living in sprawling refugee camps to receive a formal education, calling it a “positive step”.

To date, only one-third of Rohingya child refugees – who fled a brutal 2017 crackdown in neighbouring Myanmar – are able to access a primary education through temporary learning centres run by international agencies.

Starting in April, a pilot programme led by the UNICEF and Bangladesh government will initially enrol 10,000 Rohingya boys and girls up to the age of 14 in the sixth to ninth grades, where they will be taught the Myanmar school curriculum and receive skills training, officials said on Wednesday.

“It is a great news for us,” Nay San Lwin, co-founder of Free Rohingya Coalition, told Al Jazeera.

“As of now, at least the children can study up to grade 9 and youth can join skill trainings,” he said.

Primary education is provided to more than 145,000 children by a network of 1,600 UNICEF-run small learning centres in the refugee camps in southeastern Bangladesh, where more than one million Rohingya, nearly half of whom are children, have been living since they fled persecution in Myanmar.

Nearly 750,000 of these refugees crossed the border after Buddhist-majority Myanmar launched a military crackdown on the mostly Muslim ethnic group in 2017.

Rahima Akter, a 21-year-old Rohingya refugee, who was expelled from Cox’s Bazaar International University because of her “Rohingya” welcomed the move.

“I wholeheartedly praise the Bangladesh government for allowing Rohingya children to get education, which is the fundamental human right of every citizen in every country. Refugees have the right to education too,” she told Al Jazeera.

Akter said it would be better, if the government gradually allows the refugees to have education beyond grade nine. “Without proper education, a person doesn’t have any bright future.”

She said after she was expelled from the university, she couldn’t go back to university education again. “Every day, it bugs me that I couldn’t pursue my dream of getting a university degree. I don’t want that to happen to anyone else,” she told Al Jazeera.

‘Chase their dreams’

Human rights groups have long campaigned for the effectively stateless Rohingya children to be allowed access to quality education, warning of the costs of a “lost generation”.

“This is an important and very positive commitment by the Bangladeshi government, allowing children to access schooling and chase their dreams for the future. They have lost two academic years already and cannot afford to lose any more time outside a classroom,” Saad Hammadi, South Asia campaigner at Amnesty International, said in a statement.

Mahbub Alam Talukder, Bangladesh’s refugee, relief and repatriation commissioner, said the government agreed in principle with a proposal from the UN that the Rohingya children be provided with a Myanmar education.

“They will be taught in Myanmar’s language, they will follow Myanmar’s curriculum, there is no chance to study in formal Bangladeshi schools,” he told the Associated Press news agency.

“There’s no scope for them to stay here in Bangladesh for long, so through this approach, they will be able to adapt to Myanmar’s society when they go back.”

Mostafa Mohammad Sazzad Hossain, spokesman for the United Nations High Commissioner for Refugees in Dhaka, said a teacher-training programme is being developed.

“Individuals with appropriate academic qualification and experience will be recruited from both Rohingya and Bangladeshi communities and trained as teachers,” he told AP.

Myanmar’s government has long considered the Rohingya to be migrants from Bangladesh, even though their families have lived in Myanmar for generations.

Nearly all have been denied citizenship since 1982, effectively rendering them stateless. They are also denied freedom of movement and other basic rights, including education. The United Nations has said the military crackdown launched against the group in 2017 UN was executed with “genocidal intent”.

Last week, the International Court of Justice (ICJ) ordered Myanmar to take emergency measures to protect the Rohingya population from genocide.

Rohingya activist Lwin urged Bangladeshi authorities to create more opportunities for the Rohingya youth, so they can also get a university education.

“Our youth had been blocked accessing university since 2012 in Myanmar,” he said.

“They have dreams to be professionals. Their dreams can come true if Bangladesh helps.”

বিশ্বের শীর্ষ নারী নেত্রীদের তালিকায় শেখ হাসিনা

বিশ্বের শীর্ষ নারী শাসকের তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারপ্রধান হিসেবে তিনি ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, যুক্তরাজ্যের মার্গারেট থ্যাচার এবং শ্রীলঙ্কার চন্দ্রিকা কুমারাতুঙ্গার রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন।

গতকাল সোমবার উইকিলিকসের এক জরিপের তথ্যের ভিত্তিতে ভারতীয় বার্তাসংস্থা ইউনাইটেড নিউজ অব ইন্ডিয়া এ তথ্য জানিয়েছে।

উইকিলিকসের জরিপে বলা হয়েছে, ইন্দিরা গান্ধী ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ১৫ বছরের বেশি ক্ষমতায় ছিলেন। মার্গারেট থ্যাচার ব্রিটেন শাসন করেছেন ১১ বছর ২০৮ দিন। আর চন্দ্রিকা কুমারাতুঙ্গা শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রী ও প্রেসিডেন্ট দু’ভাবেই ক্ষমতায় ছিলেন ১১ বছর ৭ দিন।

জরিপ অনুসারে, ১৯৯৭ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত ২০ বছর ১০৫ দিন দেশ শাসন করেছেন সেন্ট লুসিয়ার গভর্নর জেনারেল ডেম পারলেট লুইজি। তিনি সবচেয়ে বেশি দিন ক্ষমতায় থাকা নারী। আইসল্যান্ডের ভিগডিস ফিনবোগডোটিয়ার ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৮০ থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত প্রায় ১৬ বছর। তবে বিশ্ব রাজনীতিতে এ দুই নেতা খুব বেশি পরিচিত ছিলেন না।

যুক্তরাষ্ট্রীয় দেশের মধ্যে জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মেরকেল আছেন সবার শীর্ষে। তিনি ২০০৫ সাল থেকে এখনো ক্ষমতায় রয়েছেন।

এদিকে টানা তৃতীয়বারসহ চতুর্থবারের মতো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। প্রথম মেয়াদে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিলেন তিনি। পরে ২০০৮ সালে বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে ফের প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। এরপর ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনেও নিরঙ্কুশ জয় পায় তার দল আওয়ামী লীগ।

এ বছরের ৭ জানুয়ারি চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যে এ পদে ১৫ বছরেরও বেশি সময় পার করে ফেলেছেন তিনি।

বাংলাদেশের পাওনা ৫০০ কোটি টাকা দিচ্ছে জাতিসংঘ

 

বাংলাদেশের পাওনা প্রায় ৫০০ কোটি টাকা (৬০ মিলিয়ন ডলার) শিগগির পরিশোধ করবে জাতিসংঘ। যুক্তরাষ্ট্রে সফররত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের অনুরোধে জাতিসংঘ এই টাকা দ্রুত পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছে।

সেনাপ্রধানের অনুরোধের প্রেক্ষিতে জাতিসংঘের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি জেনারেল তৎক্ষণাৎ ২৫০ কোটি টাকা পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছেন। আর বাকী অর্থ অল্প সময়ের মধ্যে পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দেন।

বুধবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আইএসপিআর জানায়, সেনাপ্রধান গত সোম ও মঙ্গলবার জাতিসংঘ সদর দপ্তরে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। ওই সময়ে তিনি অর্থ পাওনার বিষয়টি উপস্থাপন করেন।

সেনাবাহিনী প্রধান জাতিসংঘ সদর দপ্তরে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে পৌঁছালে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন তাকে স্বাগত জানান। পরে তিনি সেনাপ্রধানকে বাংলাদেশ মিশনের কর্মপরিধি সম্পর্কে অবহিত করেন এবং জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে তাদের পরিকল্পনার কথা জানান।

এরপর, বাংলাদেশের সেনাপ্রধান জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেলের সামরিক উপদেষ্টা লেফটেন্যান্ট জেনারেল কর্লোস উমবার্তো লতের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সামরিক উপদেষ্টা বিভিন্ন জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের পেশাদারিত্ব ও মানবিক কর্মকাণ্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন। এছাড়া, তিনি বিশ্বে শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশ সরকারের স্বতঃস্ফূর্ত সহায়তার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সেনাপ্রধান বাংলাদেশ থেকে একজন ফোর্স কমান্ডার নিয়োগের প্রস্তাব দেন। কর্লোস উমবার্তো লতে অতি শিগগির বাংলাদেশ থেকে একজন ফোর্স কমান্ডার নিয়োগের আশ্বাস দেন। সেনাপ্রধান বাংলাদেশ থেকে অতিরিক্ত ইঞ্জিনিয়ারিং, মেডিক্যাল, স্পেশাল ফোর্স এবং র‌্যাপিডলি ডেপ্লয়েবল ব্যাটালিয়ন মোতায়েনেরও প্রস্তাব দেন।

এ সময় জাতিসংঘ মহাসচিবের সামরিক উপদেষ্টা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধানকে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে একজন কর্নেল পদমর্যাদার কর্মকর্তাকে শান্তিরক্ষা মিশনের ফোর্স জেনারেশন প্রধান হিসেবে নিয়োগপত্র হস্তান্তর করেন।

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের অংশগ্রহণের ৩১ বছরে এই প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পদে বাংলাদেশকে নির্বাচন করা হলো।

জাতিসংঘ মহাসচিবের সামরিক উপদেষ্টা রোহিঙ্গাদের সহায়তার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করেন।

এরপর সেনাপ্রধান জাতিসংঘের ডিপার্টমেন্ট অব অপারেশনাল সাপোর্টের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি জেনারেল লিসা এম বাটেনহেইমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে সেনাপ্রধান জাতিসংঘ সদর দপ্তরের কাছে বাংলাদেশ সরকারের প্রাপ্য ৬০ মিলিয়ন ডলার পরিশোধের অনুরোধ করেন।  সেনাপ্রধানের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি জেনারেল তৎক্ষণাৎ ২৫০ কোটি টাকা পরিশোধের অঙ্গীকার করেন এবং অবশিষ্ট অর্থ স্বল্প সময়ের মধ্যে পরিশোধের আশ্বাস দেন।

সফরকালে বাংলাদেশের সেনাপ্রধান জাতিসংঘের পিস অপারেশনসের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল জন পিয়েরে ল্যাক্রয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে সেনাপ্রধান ফরাসি ভাষাভাষী দেশগুলোতে বাংলাদেশের সেনা মোতায়েনের জন্য প্রয়োজনীয় সক্ষমতা অর্জনে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন প্রচেষ্টা সম্পর্কে অবহিত করেন। বিশেষ করে, চ্যালেঞ্জিং পরিবেশে বিশ্বের যে কোনো প্রান্তে সেনা পাঠানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের তাৎক্ষণিক প্রস্তুতির ব্যাপারে অবহিত করেন।

শান্তিরক্ষা মিশনে নিহত ১২ বাংলাদেশিকে জাতিসংঘের সম্মান

জাতিসংঘ মহাসচিবের হাত থেকে বাংলাদেশের পক্ষে মেডেল গ্রহণ করেন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। ছবি: সংগৃহীত

মরণোত্তর সর্বোচ্চ ত্যাগের জন্য ‘দ্যাগ হ্যামারশোল্ড মেডেল’ প্রাপ্ত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীরা হলেন, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে কর্তব্যরত অবস্থায় নিহত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক আরজান হাওলাদার ও সৈনিক মো. রিপুল মিয়া, মালি মিশনের সৈনিক মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন, ওয়ারেন্ট অফিসার মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ, সৈনিক মোহাম্মদ রায়হান আলী, ল্যান্স করপোরাল মোহাম্মাদ আক্তার হোসেন ও সৈনিক মোহাম্মদ রাসেদুজ্জামান, কঙ্গো মিশনের সৈনিক মো. জানে আলম এবং সাউথ সুদান মিশনের সৈনিক মো. মতিয়ার রহমান, সৈনিক মো. মঞ্জুর আলী, ল্যান্স করপোরাল মো. মিজানুর রহমান ও লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মো. আশরাফ সিদ্দিকী।

বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এই মেডেল গ্রহণ করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন মেডেলগুলো নিহত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য ইতিমধ্যেই বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের ডিফেন্স অ্যাডভাইজর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খান ফিরোজ আহমেদ।

আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবসে ‘বেসামরিক নাগরিকদের রক্ষা ও শান্তি রক্ষা’ এই প্রতিপাদ্যে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানের শুরুতেই মহাসচিব গুতেরেজ কর্তব্যরত অবস্থায় জীবনদানকারী সামরিক ও বেসামরিক শান্তিরক্ষীকর্মীর বিদেহী আত্মার স্মরণে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের উত্তর লনে অবস্থিত ‘পিসকিপার্স মেমোরিয়াল সাইটে’ পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এর আগে উপস্থিত সুধী আত্মদানকারী শান্তিরক্ষীদের প্রতি সম্মান জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ মিশনের সংশ্লিষ্ট অন্য কর্মকর্তাসহ জাতিসংঘ সদরদপ্তরে কর্মরত বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তাও অনুষ্ঠানটিতে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে জাতিসংঘ সদস্য রাষ্ট্রগুলোর স্থায়ী প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কূটনৈতিক, সামরিক ও পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তা এবং জাতিসংঘের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টরা অংশ নেন।

উল্লেখ্য, বর্তমানে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বৃহত্তম শান্তিরক্ষী পাঠানো দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। জাতিসংঘের বিভিন্ন শান্তিরক্ষা মিশনে মোট ৬ হাজার ৬০০ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী কাজ করছেন। আর এখন পর্যন্ত শান্তিরক্ষা মিশনে কর্তব্যরত অবস্থায় মারা গেছেন ১৪৬ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বিশ্বে রোলমডেল বাংলাদেশ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ এখন বিশ্বে রোল মডেল। মানুষের মধ্যে ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টি ও সমন্বিত প্রস্তুতি থাকায় ঘূর্ণিঝড় ফণীতে ক্ষয়ক্ষতি কমানো সম্ভব হয়েছে। তবে শক্তিশালী পূর্ব প্রস্তুতি গড়ে তুলতে দুর্যোগের ক্ষেত্রে বাজেট বাড়াতে হবে। মানুষ এখন ত্রাণ চায় না, স্থায়ী বেড়িবাঁধ চায়। বাঁধগুলো আরো উচু ও টেকসই করে তৈরি করতে হবে। বেড়িবাঁধ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য মনিটরিং টিম গঠন এবং দুর্যোগকালীন স্বয়ংক্রিয় যোগাযোগ ব্যবস্থা রাখা প্রয়োজন। দুর্যোগ বিমা চালু, মফস্বল পর্যায়ের কমিউনিটি রেডিওকে আরো সক্রিয় এবং কমপক্ষে আরো আড়াই হাজার আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করতে হবে। সাইক্লোন সেন্টারগুলোতে সুপেয় পানির ব্যবস্থা এবং উপকূলীয় ও বন্যাপ্রবন এলাকায় মুজিব কেল্লা ও সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণে আরো দ্রুত নীতিনির্ধারণী পদক্ষেপ জরুরী। গতকাল মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ঘূর্ণিঝড় ফণী পরবর্তী পুনর্বাসন কার্যক্রম সম্পর্কে পর্যালোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

ঘূর্ণিঝড় ফণিতে সৃষ্ট সমস্যা উত্তরণে সমন্বিত উদ্যোগ বাবায়নে ঐক্যমত পোষণ করেছেন বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। তারা বলেন, দূর্যোগ মোকাবিলায় সু-সমন্বিত ব্যবস্থা থাকায় সফলতার সঙ্গে ফণি মোকাবেলা করা সম্ভব হয়েছে। তারপরও যে সব সমস্যা চিহ্নিত করা গেছে, তা সমাধানে নানা উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, বাঁধ সংস্কারের ক্ষেত্রে সমন্বিত পদক্ষেপ জরুরী। ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘরগুলো নির্মাণের ব্যবস্থা দরকার। সাইক্লোন শেল্টারগুলো আরো মজবুত করে নির্মাণ করতে হবে। দুর্যোগের সময় সঠিক তথ্য পরিবেশনে গণমাধ্যমকে আরো সতর্ক ভূমিকা পালন করতে হবে।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, যে কোনো পরিস্থিতিতে যোগাযোগ ব্যবস্থা ঠিক রাখতে হবে। যোগাযোগ হলো সমন্বয়ের মূল হাতিয়ার। যখন সেলুলার নেটওয়ার্ক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত হবে, তখন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে জেলা শহরগুলোতে সংযোগ বজায় রাখা সম্ভব হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ কে আবহাওয়া বিষয়ক স্যাটেলাইট হিসেবে প্রস্তুত করা যায় কিনা- তাও ভেবে দেখতে হবে?

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান দুর্যোগ বীমা চালু করার প্রস্তাব দিয়ে বলেন, আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ বাড়াতে আরো আধুনিক সরঞ্জামের ব্যবস্থা করতে হবে? তিনি বলেন, ৫৫০টি মুজিব কেল্লা নির্মানের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। এ জন্য আরো বাজেট দরকার। নতুন করে আরো ২ হাজার ৫শ’ সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করা হবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব শাহ কামালসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমানসহ কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Bangladesh army’s role lauded by int’l community

A US General on Tuesday heartily praised the Bangladesh military for its impressive record of achievements since its founding, saying the leadership and extensive participation of Bangladesh Army in the UN peacekeeping and peace support initiatives were acclaimed by the international community.

Lt Gen Daniel R Hokanson, vice chief of National Guard Bureau of USA, said Bangladesh has 7,000 troops and police personnel in UN peacekeeping missions around the world providing security and assistance.

The US general made the remarks while speaking as the guest of honour at the 47th Armed Forces Day reception at Bangabandhu Auditorium of Bangladesh embassy in Washington DC. Maj Gen AC Roper, deputy chief of US Army Reserve, attended the event from Pentagon as special guest.

Bangladesh Ambassador to USA Mohammad Ziauddin and Defense Attaché Brig Gen Moinul Hassan spoke at the event.

Gen Hokanson said Bangladesh deserves high praise for its generous humanitarian efforts for the Rohingya, and providing shelter to one million refugees. He appreciated Bangladesh’s strong support to security cooperation between Bangladesh army and the US National Guard that began in 2008.

Ambassador Ziauddin said Bangladesh is proud of its armed forces. Their sacrifices and contributions during Bangladesh’s Liberation War have been invaluable. Besides, in times of natural and manmade calamities, they have become indispensable for their services.

Brig Gen Moinul Hassan delivered the welcome address at the programme.

Putting people at the heart of development

Later this month, the world will mark the International Day for Universal Access to Information, hitherto known as International Right to Know Day. Like many an international day, its relevance to our lives seems murky. Yet there is no development without people. The Agenda for Sustainable Development Goals (SDGs) 2030, adopted by the UN General Assembly in 2015, underlined the key role of people for their implementation. Among the SDGs is Goal 16, aiming for “accountable and inclusive institutions.”

Translating this concept into practice is a challenging task. We have seen it in relation to the implementation of the Right to Information (RTI) Act in our country, as in many others.

The challenge is rooted in people’s perception that activities relating to development and governance are the sole prerogative of the state. In the authoritarian tradition inherited from colonial history, state activities are hidden from the people. This created a rigid and secretive attitude in our public officials which is inimical to people’s participation in state affairs. The key to success, therefore, lies in changing the mindset both of people and state authorities.

We have emphasised in some earlier columns that without a larger involvement of our citizens in making use of the RTI Act 2009, the objectives of the law cannot be truly advanced. We have similarly underlined the need for our government to invest greater attention on Goal 16, with its targets and indicators, which incorporates the same objective in the SDGs.

Bangladesh has made a good start in setting the SDG ball rolling. The government proclaims its commitment to the goals in all national and international fora. It quickly set up an inter-ministerial committee, under supervision of the Prime Minister’s Office, to monitor implementation and report on progress.

Bangladesh became one of the first few countries to participate in the voluntary progress review which took place at the UN last July. In her foreword to the report submitted in this regard, the prime minister reiterated: “We have earned international acclamations for our tremendous success in MDG implementation … We are committed to redoubling our efforts to achieve SDG targets.”

The government has incorporated the key provisions of the SDGs in the 7th Five Year Plan for 2016-2020. It has also drawn up a handbook mapping the responsibilities of different ministries/authorities for implementation of the SDGs and their targets.

Let us be clear: Poverty, hunger, gender discrimination, education, health, water and sanitation, clean energy, decent work and economic growth, climate change and so on, are normal subjects of a government’s development agenda. Goal 16, however, is unfamiliar territory, particularly as it pertains to RTI and guarantees public access to information (indicator 16.10.2). It is not surprising, therefore, that the handbook provides little indication yet on how the government intends to go about it.

Among other things, Goal 16 seeks to “ensure public access to information and protect fundamental freedoms” as, without them, development is incomplete. These objectives are unquantifiable, imperceptible and non-tangible; hence difficult to monitor and assess. National and international efforts have, therefore, been set in motion to develop appropriate tracking methods.

This is where civil society’s role comes in. In Bangladesh, a “Citizen’s Platform for SDGs” has been set up by a group of individuals “to contribute to the delivery of the SDGs and enhance accountability in the process.” Their efforts should include specific attention to the more difficult targets of Goal 16, particularly its indicator 16.10.2, which relates to RTI. NGOs and individuals promoting RTI implementation could give them a helping hand.

At the international level, a network of individuals and activists, from countries where RTI/Freedom of Information (FOI) Acts are in force, is collaborating under the banner of “FOIAnet” to develop a common approach to measure progress of indicator 16.10.2 in every country. This network has suggested that at the initial stage, the national groups should focus their efforts on: (i) how much a state is proactively disclosing information to its citizens; (ii) what institutional measures are in place to facilitate implementation of RTI/FOI laws; and (iii) to what extent information requests are made by citizens and responded to by the authorities. The latter action would be based on submitting test requests to a few public authorities in each country. Additional elements would be gradually introduced, as experience is gained and progress made towards 2030.

The exercise has already commenced in many countries. It is expected that the information so compiled by national groups will be collated by UNESCO and reported to the General Assembly annually. A ranking of state performance is likely to emerge. Some national groups expect to release preliminary reports later this month. Bangladesh’s should follow soon.

We hope that Citizen’s Platform members will soon recognise that success of the SDGs would require more than tracking progress of government undertakings. It would call for concrete measures by citizens, individually and collectively, to promote transparent, accountable and citizen-friendly governance. An effective strategy here would be to generate a sizable number of RTI requests by citizens to public authorities, thereby initiating greater interaction between the two and contributing to changing the colonial mindset of both.

We propose the following “to-do list” for civil society groups engaged in the promotion of SDGs and RTI in the country.

Help increase the number of RTI requests submitted to public authorities annually. Set a target to increase the yearly figure (say, by 20 percent). Last year’s Annual Report of the Information Commission recorded only 6,369 requests.

Develop a strategy to attract the middle class to engage in the RTI process. This section of the society, with enormous influence, has largely stayed away either for lack of awareness or trust in its efficacy. If well-known public figures, including members of the Platform, submit RTI requests, it may encourage others.

Lobby with the government to designate a nodal agency to promote the RTI Act. Presently, the Ministry of Information plays a limited role, with the Cabinet Division becoming increasingly engaged. There should be more clarity on the subject.

Devise a mechanism to monitor the work of the Information Commission, provide it with encouragement and moral support to interpret and apply the RTI Act more objectively, and impose sanctions on public officials who deliberately disregard the law. Set a target for annual percentage increase in the number of sanctions imposed. Around 15 penalties have been awarded since the beginning.

Provide civil society input to the selection process of a neutral and objective Information Commission. The selection of the new Chief Information Commissioner due in few months provides an opportunity.

Take heart from the fact that the marginalised communities of the country, who were introduced to RTI by NGOs, have both benefitted from and contributed to establishing a transparent delivery system of the government’s safety net programmes through their persistent use of the law. There can be no better example of RTI helping the realisation of SDG objectives of ending poverty, hunger and discrimination.

Finally, we hope that the Inter-Ministerial SDG Monitoring and Implementation Committee will take note of these points and support civil society efforts towards forging closer collaboration between citizens and public authorities. This will advance our SDG objectives and make Bangladesh a role model again.

Exclusive: Bangladesh PM says expects no help from Trump on refugees fleeing Myanmar

Bangladesh's Prime Minister Sheikh Hasina Wazed speaks with a reporter during the United Nations General Assembly in New York City, U.S. September 18, 2017. REUTERS/Stephanie Keith

NEW YORK (Reuters) – Bangladesh Prime Minister Sheikh Hasina said she spoke to U.S. President Donald Trump on Monday about Rohingya Muslims flooding into her country from Myanmar, but she expects no help from him as he has made clear how he feels about refugees.

As Trump left an event he hosted at the United Nations on reforming the world body, Hasina said she stopped him for a few minutes.

“He just asked how is Bangladesh? I said ‘it’s doing very well, but the only problem that we have is the refugees from Myanmar’,” Hasina told Reuters in an interview. “But he didn’t make any comment about refugees.”

A Myanmar military response to insurgent attacks last month in the country’s Rakhine state sent more than 410,000 Rohingya Muslims fleeing to neighboring Bangladesh, escaping what the United Nations has branded as ethnic cleansing.

The Myanmar government says about 400 people have been killed in the fighting.

Hasina, who is due to address the annual gathering of world leaders at the United Nations General Assembly on Thursday, said Trump’s stance on refugees was clear, so it was not worth asking him for help with the Rohingya Muslim refugees.

“Already America declared that they will not allow any refugees,” she said. “What I can expect from them, and especially (the) president. He already declared his mind … so why I should ask?”

“Bangladesh is not a rich country … but if we can feed 160 million people, another 500 or 700,000 people, we can do it.”

A senior White House official was unaware of the exchange but said Trump was deeply interested in the subject and that “he would definitely engage if it were brought up.”


Bangladesh’s Prime Minister Sheikh Hasina Wazed consults with her team during the United Nations General Assembly in New York City, U.S. September 18, 2017. REUTERS/Stephanie Keith 

Shortly after taking office in January, Trump tried to put a 120-day halt on the U.S. refugee program, bar Syrian refugees indefinitely and impose a 90-day suspension on people from six predominantly Muslim countries.

“The travel ban into the United States should be far larger, tougher and more specific-but stupidly, that would not be politically correct!” Trump said on Twitter on Friday.

Trump says the move is needed to prevent terrorist attacks and allow the government to put in place more stringent vetting procedures. There is a key Supreme Court hearing next month on the constitutionality of his executive order on the ban.

Slideshow (5 Images)

About a million Rohingya lived in Rakhine State until the recent violence. Most face travel restrictions and are denied citizenship in a country where many Buddhists regard them as illegal immigrants from Bangladesh.

Hasina said she wanted to see more international political pressure on Myanmar to allow the Rohingya to return.

“(Myanmar leader Aung San Suu Kyi) should agree that these people belong to her country and that Myanmar is their country. They should take them back,” she said. “These people are suffering.”

Nobel laureate Suu Kyi has faced a barrage of international criticism for not stopping the violence. Myanmar national security adviser Thaung Tun told Reuters on Monday that Myanmar would ensure those who left their homes could return, but there was “a process we have to discuss.”

U.S. Ambassador to the United Nations Nikki Haley urged the Myanmar government to end military operations, grant humanitarian access, and commit to aiding the safe return of civilians to their homes.

“People are still at risk of being attacked or killed, humanitarian aid is not reaching the people who need it, and innocent civilians are still fleeing across the border to Bangladesh,” Haley said after Britain hosted a meeting on the crisis in New York on Monday.

A U.S. deputy assistant secretary of state, Patrick Murphy, is due in Myanmar this week.

ওআইসির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্মেলনে বাংলাদেশের নেতৃত্বে রাষ্ট্রপতি

আগামী ১০ থেকে ১১ সেপ্টেম্বর কাজাখস্তানের রাজধানী আস্তানায় ওআইসির আয়োজনে প্রথমবারের মতো এই শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

রাষ্ট্রপতির নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে বঙ্গভবন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা থাকবেন বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এই সম্মেলনে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে আলোচনার পর ১০ বছর মেয়াদী কর্মপরিকল্পনা ‘ওআইসি এসটিআই এজেন্ডা-২০২৬’ ঘোষণা করা হবে।

সম্মেলনে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ কাজাখস্তানের প্রেসিডেন্টসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

যুক্তরাষ্ট্রে এসডিজি বাস্তবায়ন বিষয়ক আলোচনা পরিকল্পনা মন্ত্রীর

মোহাম্মদ জমির ওআইসি’র মানবাধিকার কমিশনের নতুন সদস্য নির্বাচিত

ওর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের (ওআইসি) জেদ্দাভিত্তিক স্বাধীন স্থায়ী মানবাধিকার কমিশনের (আইপিএইচআরসি) নতুন সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের প্রার্থী সাবেক রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জমির।
আইভরি কোস্টের আবিদজানে ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের ৪৪তম বৈঠকের সমাপনী দিনে তাকে নির্বাচিত করা হয়েছে। আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে তার তিন বছরের মেয়াদকাল শুরু হবে।
বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আইপিএইচআরসি’র মোট ১৮ জন সদস্য ও ৯ জন পর্যায়ক্রমিক সদস্য রয়েছে যারা তিনটি ভৌগলিক গ্রুপ আরব, এশিয়া ও আফ্রিকা থেকে নির্বাচিত হন। প্রতি গ্রুপ থেকে তিন জন সদস্য নির্বাচিত হয়ে থাকেন।
১৮ সদস্যের এশীয় রাষ্ট্রের মধ্যে পাঁচটি দেশ বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, তুরস্ক, উজবেকিস্তান ও পাকিস্তান আগেই তাদের প্রার্থীকে মনোনীত করেছিল। মঙ্গলবার গোপন ব্যালটে হওয়া নির্বাচনে এই গ্রুপের ১৭টি দেশ ভোট দিয়েছে। ভোটে বাংলাদেশ, তুরস্ক এবং উজবেকিস্তান নির্বাচিত হয়েছে। আরব ও আফ্রিকান গ্রুপ থেকেও তিন জন করে সদস্য নির্বাচিত হয়েছে। সাবেক রাষ্ট্রদূত জমির এর আগে প্রধান তথ্য কমিশনার ছিলেন। কূটনীতিক হিসেবে তিনি জেদ্দায় ওআইসি’র সদরদপ্তরেও দায়িত্ব পালন করেছেন।
এদিকে ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের ২০১৮ সালের বৈঠক ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে। আবিদজানে ৪৪তম ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে একদিন আগেই এই সিদ্ধান্ত হয়।

বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীরা জোরালো ভূমিকা রাখছে ॥ মার্শা বার্নিকাট

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট বলেছেন, বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের অবদান প্রমাণ করে যে আরও অনেক ক্ষেত্রের মতো বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের সেনাবাহিনী তাদের এই অবদান আরও জোরালোভাবে অব্যাহত রাখবে। শনিবার গাজীপুরে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট ফর পিস সাপোর্ট অপারেশন্সে (বিপসট) এ বহুমুখী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকার মার্কিন দূতাবাস থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, গাজীপুরে বিপসট বহুমুখী কর্মশালা কেন্দ্র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আবু বেলাল মুহাম্মদ শফিউল হক, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট , মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্যাসিফিক কমান্ডের (ইউএসপেকম) কমান্ডার এ্যাডমিরাল হ্যারি বি হ্যারিস জুনিয়র প্রমুখ।

বিপসট-এর নতুন এই ছত্রিশ লাখ ডলারের বহুমুখী প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে রয়েছে ৭৫০ আসনের মিলনায়তন ও আনুষঙ্গিক প্রশিক্ষণ কক্ষ। এটি যুক্তরাষ্ট্র সরকারের প্রায় পঞ্চাশ লাখ ডলারের সহযোগিতার অংশ। এটা জাতিসংঘ এবং আঞ্চলিক শান্তিরক্ষা অভিযানে কার্যকরভাবে প্রশিক্ষণ এবং পরিচালনা করার জন্য বাংলাদেশের দক্ষতা বৃদ্ধি করবে।

বিপসটে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারির শেষে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং যুক্তরাষ্ট্র প্যাসিফিক কমান্ডের যৌথ অর্থায়নে বহুজাতিক শান্তিরক্ষা অনুশীলন ‘শান্তিদূত-৪’। ২০১৮ সাল জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের যোগ দেয়ার ত্রিশ বছর পূর্তি হবে। সর্বোচ্চ অবদানের ক্ষেত্রে বর্তমানে বাংলাদেশ চতুর্থ স্থানে রয়েছে যেখানে ৬ হাজার ৯০০ এর বেশি সৈন্য এবং পুলিশ তেরোটি জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা অভিযানে কাজ করছে।

এ্যাডমিরাল হ্যারি বি হ্যারিস জুনিয়র শনিবার বাংলাদেশে এসেছেন। বাংলাদেশ সফরকালে, এ্যাডমিরাল হ্যারিস বাংলাদেশের সরকারী এবং সামরিক উর্ধতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আঞ্চলিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। এছাড়া বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট ফর পিস সাপোর্ট অপারেশন্সে (বিপসট) বহুমুখী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

ইউএসপেকমের কর্ম-পরিধি ভূ-পৃষ্ঠের প্রায় অর্ধেক অঞ্চলব্যাপী, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূল থেকে ভারতের পশ্চিম সীমান্ত ও এন্টার্কটিকা থেকে উত্তর মেরু পর্যন্ত বিস্তৃত। ইউএসপেকম যুক্তরাষ্ট্রের আর্মড ফোর্সের ছয়টি ভৌগোলিক ‘ইউনিফায়েড কম্ব্যাটেন্ট কমান্ডের’ একটি।

এ্যাডমিরাল হ্যারিস যুক্তরাষ্ট্রের ইন্দো-এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের উর্ধতন সামরিক কর্মকর্তা। তিনি সেক্রেটারি অব ডিফেন্সের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের কাছে রিপোর্ট করেন। ইউএসপেকম চারটি কমান্ডের সহযোগিতা নিয়ে গঠিত ইউএস প্যাসিফিক ফ্লীট, ইউএস প্যাসিফিক এয়ার ফোর্সেস, ইউএস আর্মি এ্যান্ড প্যাসিফিক এবং ইউএস মেরিন কোর ফোর্সেস, প্যাসিফিক। এই কমান্ডগুলোর হেডকোয়ার্টার হাওয়াইতে অবস্থিত। পুরো অঞ্চলে এর কর্মস্থল রয়েছে। সেখানে এর সদস্যদের মোতায়েন করা হয়ে থাকে।

আন্তর্জাতিক সম্মেলনে সভাপতি হাসিনা সঞ্চালক সায়মা

শেখ হাসিনা সভাপতি আর সায়মা ওয়াজেদ হোসেন সঞ্চালক; ভুটানে অটিজম নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্মেলনের একটি সেশনে এভাবেই নেতৃত্ব দিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও তার মেয়ে।

থিম্পুতে বুধবার সকালে তিন দিনের ‘অটিজম অ্যান্ড নিউরো ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডারস’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা।

এরপর দুপুর ২টায় রয়্যাল ব্যাঙ্কোয়েট হলে আন্তর্জাতিক এই সম্মেলনের অংশ হিসেবে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের একটি আলোচনা সভা হয়।

প্রায় দুই ঘণ্টার এ সভায় চেয়ার ছিলেন শেখ হাসিনা, কো-চেয়ার ছিলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আঞ্চলিক পরিচালক (দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া) পুনম ক্ষেত্রপাল সিং। এই অনুষ্ঠানেই সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন সায়মা ওয়াজেদ হোসেন, অটিজম নিয়ে কাজের জন্য এরইমধ্যে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রশংসিত যিনি।

বাংলাদেশের অটিজম বিষয়ক জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারপারসন সায়মা ওয়াজেদ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অটিজম বিষয়ক পরামর্শক প্যানেলেও ছিলেন। অটিজম নিয়ে কাজের জন্য তাকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের ‘চ্যাম্পিয়ন’ ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

সায়মা ওয়াজেদের সঞ্চালনায় এই অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা চিকিৎসক, অধিকার কর্মী এবং গবেষক ও বিশেষজ্ঞরা।

সকালে অটিজম বিষয়ক এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এ ধরনের জটিলতায় আক্রান্তদের সহায়তায় রাষ্ট্রকেই এগিয়ে আসতে হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে বিশ্বব্যাপী অটিজম সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টিতে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন।

বাংলাদেশ ও ভুটানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে এই সম্মেলন হচ্ছে। এতে কারিগরি সহায়তা দিচ্ছে সূচনা ফাউন্ডেশন (সাবেক গ্লোবাল অটিজম), অ্যাবিলিটি ভুটান সোসাইটি (এবিএস) ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া কার্যালয়।

‘এএসডি ও অন্যান্য নিউরো ডেভেলপমেন্টাল সমস্যায় ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজের জন্য কার্যকর ও টেকসই বহুমুখী কর্মসূচি’র লক্ষ্য নিয়ে হচ্ছে এই সম্মেলন।

অটিজম সম্মেলনে অংশ নেওয়া ও রাষ্ট্রীয় সফরে মঙ্গলবার ভুটান আসেন শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গীদের মধ্যে তার বোন শেখ রেহানার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিকও রয়েছেন।

এছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভীও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে রয়েছেন। সফর শেষে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা।

2 Bangladeshis in Forbes’ young social entrepreneurs

Two Bangladeshi youths, Mizanur Rahman Kiron and Shougat Nazbin Khan have made it on the list of Forbes Asia under-30 social entrepreneurs this year.

The annual list by Forbes features the 30 youngsters from Asia who are leveraging business tools to solve the world’s problems.

Mizanur Rahman Kiron, 29, is the founder of Physically-challenged Development Foundation (PDF), engaged in helping disabled youth in Bangladesh.

Mizanur Rahman Kiron. Photo: Collected

In 2015, The Daily Star recognised him as a Young Achiever of Bangladesh.

Talking to The Daily Star, Kiron said that within next the 10 years, he want to see his organisation become the best platform for Asian youth to learn best practices for policy advocacy and disability rights movement.

Shougat Nazbin Khan, 27, is the founder of H.A Foundation.

Shougat Nazbin Khan. Photo: Collected

She founded the organisation on her family’s land in northern Bangladesh, with the goal of providing education for the rural poor through digital tools.

The school charges a minimal tuition while offering free textbooks, school uniforms and transport.

Khan, who has helped 600 children so far, received the Commonwealth Youth Award for Asia in 2016. She has also developed a low-cost solar irrigation system for which she was awarded the Green Talent award in 2015.