বাংলাদেশের নিজস্ব জিপিটি প্ল্যাটফর্ম ‘জি-ব্রেইনে’র যাত্রা শুরু

এআইভিত্তিক জিপিটি (জেনারেটিভ প্রি-ট্রেইনড ট্রান্সফরমারস) প্ল্যাটফর্ম জি-ব্রেইনের উদ্বোধন করা হয়েছে। এই প্ল্যাটফর্মটি কনস্টিটিউশন (সংবিধান) জিপিটি, বাজেট জিপিটি এবং স্টার্টআপ জিপিটি এই তিনটি মডেলের সমন্বয়ে কাজ করবে।

উদ্বোধন হলো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাভিত্তিক বাংলাদেশের নিজস্ব জিপিটি (জেনারেটিভ প্রি-ট্রেইনড ট্রান্সফরমারস) প্ল্যাটফর্ম ‘জি-ব্রেইন’। এর পূর্ণ রূপ ‘গভর্নমেন্ট ব্রেইন’। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের নাগরিকদের কাছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আরও সহজলভ্য হয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধান, বাজেট এবং স্টার্ট-আপ এই তিনটি জিপিটি নিয়ে তৈরি হয়েছে ‘জি-ব্রেইন’ (www.gbrainbd.ai) প্ল্যাটফর্মটি। এ ছাড়া ভবিষ্যতে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিনিয়োগ ও এডিপি বাস্তবায়ন সংক্রান্ত জিপিটিও যুক্ত হবে এই প্ল্যাটফর্মটিতে।

বুধবার রাজধানীর আইসিটি টাওয়ারে জি-ব্রেইন প্ল্যাটফর্মের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়। সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি ও ওরিয়ন ইনফরমেটিক্সের সহায়তায় জি-ব্রেইন প্ল্যাটফর্মটি তৈরি করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হচ্ছে ডেটা বা তথ্য-উপাত্ত। সেই ডেটা ব্যবহার করে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা জেনারেটিভ এ আই সাম্প্রতিক সময়ে সারাবিশ্বে প্রযুক্তির প্রভাব ও প্রসারের চিত্র বদলে দিয়েছে। বর্তমানে যে দেশ, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের কাছে যত সমৃদ্ধ ডেটা ও প্রযুক্তি আছে, সেই প্রতিষ্ঠান, সংস্থা বা দেশ তত বেশি সমৃদ্ধ হচ্ছে এবং দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। এ আই, ডেটা অ্যানালিটিকস, মেশিন লার্নিংয়ের প্রভাবে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এই ব্যাপক পরিবর্তন নিয়ে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ক্লাউস শোয়াব বলেছেন, ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের মারাত্মক ঝুঁকি হচ্ছে, ব্যাপক পরিবর্তন খুব দ্রুত হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘এআই (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) আসলেই ভয়ংকর দৈত্যে পরিণত হচ্ছে। বিষয়টা যদি আমরা পারমাণবিক শক্তির সঙ্গে তুলনা করি, তাহলে দেখা যাবে পারমাণবিক শক্তি বিদ্যুৎ তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে। আবার এটা দিয়ে পৃথিবী ধ্বংসও করা সম্ভব। একদিক থেকে পারমাণবিক অস্ত্রের চেয়েও এ আই ভয়ংকর হতে পারে। কারণ পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারে মানুষের প্রয়োজন হয়। কিন্তু এ আই এত শক্তিশালী হয়ে উঠছে যে, এটা নিজেরাই অনেক কিছু করে ফেলতে পারছে।’

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এই ব্যাপক পরিবর্তনের সঙ্গে কোনো প্রতিষ্ঠান, দেশ বা জাতি যদি খাপ খাইয়ে নিতে না পারে, তাহলে তারা এই যাত্রা বা সিস্টেম থেকে ছিটকে পড়বে উল্লেখ করে পলক আরও বলেন, আমাদের সাইবার সিকিউরিটি, মেশিন লার্নিং, মাইক্রো ছিপ ডিজাইন ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ওপর দক্ষতা ও সক্ষমতা তৈরি করতে হবে। অন্যথায় শ্রমনির্ভর অর্থনীতির ওপর বেশিদিন টিকে থাকতে পারব না। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের এই বৈশ্বিক অগ্রযাত্রায় আমরা পিছিয়ে থাকতে চাই না; আমরা উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেদের সক্ষমতা তৈরির মাধ্যমে নিজেদের প্রযুক্তি ব্যবহার করে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জকে জয় করতে চাই। সেই লক্ষ্য অর্জনে আমাদের গড়ে তুলতে হবে এআই, ডেটা অ্যানালিটিকস ও মেশিন লার্নিংয়ের মতো প্রযুক্তিতে দক্ষ মানবসম্পদ সমৃদ্ধ স্মার্ট ও মেধাবী প্রজন্ম, আর সেই স্মার্ট প্রজন্মই গড়ে তুলবে আমাদের আগামীর উন্নত সমৃদ্ধ জ্ঞানভিত্তিক স্মার্ট বাংলাদেশ।

পলক বলেন, আমরা সম্প্রতি ওরাকলের ক্লাউড ব্যবহার করে বাংলাদেশের নিজস্ব ডেটা সেন্টার স্থাপন করেছি, যেখানে আমাদের দেশের ও নাগরিকের সব ডেটা নিরাপদে সংরক্ষিত থাকবে। আমরা আজ এ আই নির্ভর জিপিটি প্ল্যাটফর্ম ‘জি-ব্রেইন’ উদ্বোধন করলাম। ভবিষ্যতে এটা মাইগ্রেট করে আমাদের ন্যাশনাল ডেটা সেন্টারে হোস্ট করা হবে এবং নিয়মিত আপডেট ও ব্যবহারবান্ধব করা হবে। সেই লক্ষ্য অর্জনে আমরা পাবলিক-প্রাইভেট-একাডেমিয়া পার্টনারশিপের ভিত্তিতে এই কাজটা করেছি। এআইয়ের পজিটিভ কেইসের ব্যবহারিক প্রয়োগ ঘটিয়ে সরকারের সব লক্ষ্য ও পরিকল্পনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে পৌঁছাতে ও স্মার্ট প্রজন্ম গড়ে তুলতে আমরা অল্প সময়ের মধ্যে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিনিয়োগ ও এডিপি নিয়ে আরও জিপিটি তৈরি করে জি-ব্রেইনকে সমৃদ্ধ করব। সময়ের প্রয়োজন বিবেচনা করে আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছি নিম্ন মাধ্যমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত এআই-কে একটি বিষয় হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য। পাশাপাশি এআইয়ের ঝুঁকি মোকাবিলায় আইন মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এ আই আইনও প্রণয়ন করা হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান কাজী জামিল আজহার। তিনি বলেন, ‘প্রত্যেকটা দেশ তাদের ন্যাশনাল এআই সিস্টেম বানাচ্ছে। এখন যদি আমরা এটা না করি, তাহলে ১০০ বছর পরে অন্যেরটা ব্যবহার করতে হবে।’ অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্থপতি ইকবাল হাবিব, আইসিটি বিভাগের সচিব শামসুল আরেফিন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বলা হয়, বর্তমান বিশ্বে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত করেছে। সেই ধারাবাহিকতায় ওপেন এআই তাদের সর্বোত্তম হাতিয়ার চ্যাটজিপিটি দিয়ে পুরো বিশ্বকে চমকে দিয়েছে।

স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ জি-ব্রেইন তৈরির উদ্যোগ নেয়। নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সরকারি উদ্যোগে শিক্ষার্থী, গবেষক, নীতিনির্ধারক, অর্থনীতিবিদ, উদ্যোক্তা, বিনিয়োগকারী এবং সাধারণ নাগরিকদের জন্য এ আই সংবলিত এই জিপিটি মডেলটি তৈরি করা হয়েছে। বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতে একটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা করবে বলে মনে করছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ।

উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, জি-ব্রেইনের মাধ্যমে বাংলাদেশের সংবিধান, বাজেট নির্ধারণ ও স্টার্টআপ প্রস্তুতির ক্ষেত্রে ব্যাপক ও সহজলভ্য তথ্যের অধ্যয়ন সম্ভব হবে। এর মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে অগ্রযাত্রা আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে। এই উদ্যোগ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে আরও শক্তিশালী করবে এবং নাগরিকদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সচেতনতা বাড়াবে।

জিপিটি এর পূর্ণ রূপ হলো জেনারেটিভ প্রি-ট্রেইনড ট্রান্সফরমারস। এখানে জেনারেটিভ বলতে এমন একটি মডেলকে বোঝায়, যা টেক্সট বা লেখা তৈরি করতে পারে এবং প্রি-ট্রেইনডের অর্থ হলো, এই মডেলের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে তথ্য বা ডেটা আগে থেকেই সংরক্ষণ করা আছে। ট্রান্সফরমার হলো, এই এ আই মডেলের আর্কিটেকচার বা গঠন।

এআইভিত্তিক জিপিটি প্ল্যাটফর্ম ‘জি-ব্রেইনের’ প্রথম মডেল সংবিধান জিপিটি। স্মার্ট বাংলাদেশের অন্যতম স্তম্ভ হচ্ছে স্মার্ট নাগরিক। আর এই স্মার্ট নাগরিক হওয়ার একটি পূর্বশর্ত সংবিধান সম্পর্কিত জ্ঞানার্জন। সেই জ্ঞানার্জনের অন্যতম মাধ্যম হতে যাচ্ছে এই সংবিধান জিপিটি বা কনস্টিটিউশন জিপিটি।

জি-ব্রেইন কনস্টিটিউশন জিপিটি একটি উন্নত এ আই মডেল যা বাংলাদেশের সংবিধান সম্পর্কিত যেকোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে সক্ষম। এই টুলটির মাধ্যমে খুব সহজেই ও অল্প সময়ে ছাত্র-ছাত্রীরা, নাগরিক কিংবা আইনজীবীরা বাংলাদেশের সংবিধান ও এর সংশোধনী সম্পর্কে জানতে কিংবা গবেষণা করতে পারবেন। আইনজীবীদের জন্য এটি আইনি গবেষণা ও মামলার প্রস্তুতির ক্ষেত্রে দক্ষতা বৃদ্ধি করবে।

জি-ব্রেইনের দ্বিতীয় মডেল জিপিটি। এই মডেল জাতীয় বাজেটের জটিল বিষয়গুলো সহজে বুঝতে সাহায্য করে। আমাদের দেশের অর্থনৈতিক নীতিমালা ও কৌশল সম্পর্কে জানা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাজেট জিপিটি মডেলটি নীতিনির্ধারক, অর্থনীতিবিদ এবং সাধারণ মানুষের জন্য উপকারী, যারা বাজেট বরাদ্দ, অর্থনৈতিক নীতিমালা এবং অর্থনৈতিক কৌশল সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। এটি ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটের বিশ্লেষণ এবং অর্থনৈতিক সিদ্ধান্তের প্রভাব সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করে। এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা বাজেটের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন এবং দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি সম্পর্কে ধারণা পাবেন।

জি-ব্রেইনের তৃতীয় মডেল স্টার্টআপ জিপিটি। এটি এমন একটি টুল যা নিত্যনতুন স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমকে তহবিল, যোগ্যতা এবং প্রয়োজনীয় তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত নির্দেশনা প্রদান করে। স্টার্টআপ জিপিটি উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারীদের জন্য অমূল্য সব তথ্য সরবরাহ করবে। এর মাধ্যমে অনায়াসে কোথায় কোথায় তহবিল আছে, কারা কারা এর যোগ্য হবেন, কী কী ডকুমেন্টস লাগবে এ ধরনের সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য এক নিমেষেই জানা যাবে।