১০ হাটে ক্যাশলেসে কেনা যাচ্ছে কোরবানির পশু

আসন্ন ঈদুল আজহায় কোরবানির পশু কেনার জন্য বিপুল পরিমাণ নগদ টাকা সঙ্গে নেওয়ার ঝামেলা যারা নিতে চান না তাদের জন্য থাকছে ডিজিটাল লেনদেনের সুবিধা। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও নাটোরের ১০ হাটে এ ধরনের সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে। মাস্টারকার্ডের বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ডিজিটাল পেমেন্টের গতি বাড়াতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’ এসব পশুর হাটে একটি করে পিওএস মেশিন, দুটি এটিএম, এমএফএস সেবা ও একটি এজেন্ট ব্যাংকিং বুথ বসানো হয়েছে। গত বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংক ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) যৌথভাবে ‘স্মার্ট হাট’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর কাজী ছাইদুর রহমানসহ ব্যাংক ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এই ১০ পশুর হাটের মধ্যে ছয়টি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও একটি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায়।

উত্তরার ডিয়াবাড়ীর বউ বাজার পশুর হাটে ব্র্যাক ব্যাংক ও ভাটারা এলাকার সুতিভোলা খালে ব্যাংক এশিয়া নগদ টাকা ছাড়াই লেনদেনের সুবিধা দেবে। মোহাম্মদপুরের বসিলা পশুর হাটে সিটি ব্যাংক, বিকাশ ও নগদ এবং মিরপুরের গাবতলীতে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ, বিকাশ ও নগদের মাধ্যমে পশু কেনার টাকা পরিশোধ করা যাবে। এ ছাড়া এবি ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক ও পূবালী ব্যাংক মিরপুর সেকশন-৬ এর ইস্টার্ন হাউজিং গরুর হাট এবং ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের কাছে পশুর হাটে ডিজিটাল লেনদেনের সেবা দেবে। দক্ষিণ ঢাকার বাসিন্দারা হাজারীবাগ পশুর হাটে পূবালী ব্যাংক থেকে এ সেবা পাবেন। ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ ও ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের ডিজিটাল লেনদেনের সেবা পাওয়া যাবে চট্টগ্রামের সাগরিকা ও নূরনগর পশুর হাটে। নাটোরের সিংড়া পৌরসভার পশুর হাটে ডিজিটাল সেবা দেবে সোনালী ব্যাংক।

‘এতে ক্রেতা-বিক্রেতা সবাই লাভবান হবেন’- উল্লেখ করে সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল আরও বলেন, ‘টাকা সঙ্গে রাখলে ক্রেতা-বিক্রেতা সবার জন্যই ঝুঁকি থাকে। তাই তারা টাকা হারানোর ঝুঁকি ছাড়াই গরু বেচা-কেনা করতে পারবেন।’ রাজধানীর ইন্দিরা রোড এলাকার বাসিন্দা কবির আহমেদ গাবতলীতে নগদ টাকা ছাড়াই পশু কেনার সুবিধার কথা জানতে পেরে খুশি। কারণ তিনি সেখান থেকে কোরবানির পশু কেনার পরিকল্পনা করছেন। তিনি বলেন, ‘ছিনতাইয়ের ঝুঁকির মধ্যে নগদ টাকা নিয়ে হাটে যেতে ইচ্ছা করে না।’ সাধারণত কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে পশুর হাটে উপচে পড়া ভিড় থাকে। সেই ভিড়ে পকেটমার থাকার আশঙ্কা করা হয়। অথবা রাস্তায় ক্রেতা-বিক্রেতাদের কাছ থেকে টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার আশঙ্কাও দেখা দেয়। মাস্টারকার্ডের সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল আরও বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে ‘স্মার্ট বাংলাদেশে’ ও ২০৩১ সালের মধ্যে নগদহীন লেনদেন ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে এটি বড় উদ্যোগ।’ তিনি জানান, ঈদে প্রায় ৭০ হাজার কোটি টাকার লেনদেন হয়। এর একটি অংশ ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনতে পারলে তা অনেক বড় অর্জন হবে।