শেখ হাসিনার তাৎপর্যময় স্বদেশ প্রত্যাবর্তন

অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী উপাচার্য, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ

১৭ মে বাঙালি জীবনে একটি স্মরণীয় দিন। তবে শুধু স্মরণীয় বললে হয়ত তার তাৎপর্য ম্লান হতে বাধ্য। ১৯৮১ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রায় ৬ বছর পর শেখ হাসিনা বাধ্যতামূলক নির্বাসন থেকে দেশে ফিরে আসেন। ২০০৭ সালে ৭ মে স্বল্প-সময়ের বিদেশ বাসের পর বহু বাধা বিঘ্ন ঠেলে তিনি দেশে ফিরে আসেন; যদিও ১৯৮১ সালে তিনি দেশে ফিরে না আসলে ২০০৭ সালের ৭ মে অপ্রাসঙ্গিক হতো।

এই দুটি উপলক্ষ ছাড়া বহুবার তিনি বিদেশ গিয়েছেন, আবার ফিরেছেন। তবে ঐ দুটি তারিখে তিনি দেশে না আসলে আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠানটি মুসলিমলীগের ন্যায় হয়ত টিম টিম করে বেঁচে থাকত; যার ফলে মুক্তিযোদ্ধাদের বাংলাদেশ হারিয়ে যেত। পাকিস্তানের সাথে বাংলাদেশের কনফেডারেশন সম্ভব না হলেও দেশটি একটি মিনি পাকিস্তানে রূপান্তরিত হতো। রাজাকাররা চিরস্থায়ী রাজা বাদশাহ হয়ে সবার শিরে চেপে বসত। মুক্তিযোদ্ধাদের বিচার হোত, মুক্তিযোদ্ধাদের একাংশ তিব্বতের দালাইলামার সম-অনুসারী কাঞ্চা ও কাঞ্চিতে রূপান্তরিত হতো। দেশে থাকলে মুক্তিযোদ্ধাদের অকাতরে খুন করা হতো। জাতীয় পতাকা ও জাতীয় সংগীত পরিবর্তন হয়ে যেত। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বলে আর কিছু অবশিষ্ট থাকতনা। ক্রমশ: প্রতিটি মানুষ ইসলামাবাদের গোলামে পরিনত হতো, ধর্মের ধ্বজাধারীগণ দেশটা কে চষে বেড়াত, বাংলাভাষা ও জাতি বিলুপ্তির পথে যেত।

দেশে প্রত্যাবর্তনের পর দীর্ঘ সময় শেখ হাসিনা ক্ষমতায় ছিলেন না। কিন্তু ক্ষমতাসীনদের উপর এতটা চাপ সৃষ্টিতে সক্ষম হয়েছিলেন যে ক্ষমতাসীন প্রতিপক্ষরা সংবিধানে মৌলিক পরিবর্তন এনে দেশটাকে ইসলামী রিপাবলিকের দিকে ঠেলে দিতে পারেনি। তিনি ফিরে না এলে বাঙালি জাতীয়তাবাদ ইতিহাসের গহ্বরে হারিয়ে যেত। আমাদের দেশটা হতো একান্তই সাম্প্রদায়িক দেশ।

শেখ হাসিনা ফিরে না আসলে পার্বত্য চট্টগ্রামে বর্তমান শান্তিটুকুও প্রতিষ্ঠিত হোত না। খাদ্যে স্বয়ংসম্পুর্ন হওয়া ছিল অকল্পনীয়। ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কটা হোত দা-কুড়ালের। আজকে বিভিন্ন সামাজিক সূচকে আমরা ভারতকেও ছাড়িয়ে গেছি। বিশ্বের বুকে একটা মর্যাদাবান জাতি হিসাবে আবির্ভূত হবার কিংবা মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরের দিন গনিয়ে আসত না।

আবারও বলছি শেখ হাসিনা দেশে না ফিরলে আওয়ামী লীগের ভাগ্য হোত মুসলিম লীগের ভাগ্য। আর অন্যান্য সব কিছুর আকর হোত এই ক্ষমতাহীনতা। বিষয়টা একটু বিশ্লেষণ করছি।

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর সব রাজনৈতিক দল বিলোপ করা হয়। জিয়াউর রহমানের শাসনামলে ১৯৭৬ সালের ১ আগষ্ট থেকে দেশে ঘরোয়া রাজনীতি শুরু হয়। সেই আগষ্টে আওয়ামী লীগ পুনরুজ্জীবনে প্রয়াস নেয়া হয় এবং সাথে শুরু হয় দলীয় উচ্চাসন নিয়ে কামড়া কামড়ি। দলের শীর্ষ নেতাদের প্রায় সবাই জেলে। সে সময় প্রয়োজন ছিল ঐক্যের কিন্তু তখনই দলের শীর্ষ পদ দখলের উলঙ্গ প্রতিযোগিতা দৃশ্যমান হয়। মোল্লা জালাল ও মিজান চৌধুরীর নেতৃত্বে গঠিত আহ্বায়ক কমিটি আপোষকামিতা ও তৃণ মূলে অগ্রহণযোগ্যতার কারণে তেমন কোন কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারেনি। ১৯৭৭ সালের ৩রা এপ্রিলের কাউন্সিল অধিবেশনে তদ্রুপ অবস্থার সৃষ্টি হয়। কমিটি গঠনে ব্যর্থ হলেও সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দিনকে আহ্বায়ক করে একটা দায় সারা গোছের কমিটি করা হয়। তিনি এক বছরও নেতৃত্বে থাকতে পারেন নি। ১৯৭৮ সালের ৩রা মার্চ পূর্বের ন্যায় নৈরাজ্যময় পরিস্থিতিতে মালেক উকিল ও আবদুর রাজ্জাককে যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করে কমিটি গঠিত হয়। ১৯৮১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি পুনরায় কাউন্সিলে পূর্ববত অবস্থার পুনরাবৃত্তি ঘটে। এবারেও যখন জোড়াতালি দিয়ে কমিটি গঠন অসম্ভব হয়ে পড়ে ও দল ছিন্ন ভিন্ন হবার উপক্রম হয় তখন সাধারণ কর্মীরা শেখ হাসিনার নামে শ্লোগান দিতে থাকে এবং এক পর্যায়ে তারা ভারতে নির্বাসিত শেখ হাসিনাকে দলের প্রধান হিসেবে নির্বাচিত করে। সেদিন তাকে সভাপতি নির্বাচিত না করলে দল বহুধা বিভক্ত হোত, কেউ মিজান আওয়ামীলীগ, কেউ বাকশাল কিংবা কেউ বা বঙ্গবন্ধুর নাম ভাঙ্গিয়ে ও তার উত্তরাধিকারীত্ব দাবী করে বহু নামের আওয়ামী লীগ গঠন করে দালালী বলবত রেখে আত্ম—তরক্কি করতে পারত। সেনা আশ্রিত দলে পরোক্ষভাবে ও প্রত্যক্ষভাবে আশ্্রয় নিতে নিতে মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দলটি নি:শেষ হয়ে যেত। দেশটাতে এমন সেনাশাসন চিরায়ত হয়ে যেত।

শেখ হাসিনা দেশে আসার কারণে তার দল অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষ শক্তি বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর পাঁচ পাঁচবার ক্ষমতায় এসেছে। এতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্প্রসারিত ও বাস্তবায়িত হচ্ছে। শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আসায় যারা বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুতে উল্লাসিত হয়েছিল তারাও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস—চ্যান্সেলর, প্রো—ভাইস চ্যান্সেলর, ট্রেজারার হয়েছে, ব্যাংক বীমার চেয়ারম্যান, ডাইরেক্টর হয়েছে, বিদেশে রাষ্ট্রদূত হয়েছে। আরও কত কি? ব্যক্তির পর্যায় ছাড়িয়ে সামষ্ঠিক পর্যায়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হয়েছে, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হচ্ছে, পার্বত্য চট্টগ্রামে কিছুটা হলেও বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার হয়েছে, ২১ শে ফেব্রুয়ারি নব মর্যাদার আসনে সমাসীন হয়েছে, মুক্তিযোদ্ধাদের মূল্যায়ন হয়েছে, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জিত হয়েছে।

বিষয়গুলোর একটু গভীরে যাচ্ছি:

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার:

নির্বাসিত জীবন থেকে দলীয় নেতাদের বিশেষ অনুরোধে ও কর্তব্যবোধে তাড়িত হয়ে শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালে দেশে ফিরে এলেন। দেশে ফেরার দিন প্রচন্ড ঝড় বৃষ্টি ছিল। দুর্যোগ উপেক্ষা করেও বিমানবন্দরে হাজার হাজার মানুষ তাদের মহান নেতার কন্যাকে দেখতে ও স্বাগত জানাতে ভীড় জমালেন। দেশে ফিরে আসার আগেই তাকে দলের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। তখন তার বয়স ছিল মাত্র ৩৪ বছর। স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর থেকেই তিনি স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়ায় অংশ নেন।

দেশে প্রত্যাবর্তনের ৬ বছরের মাথায় অর্থর্াৎ ১৯৮৬ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি প্রথমবারের মত নির্বাচিত হলেন ও বিরোধীদলীয় নেত্রীর আসনে বসলেন। জনস্বার্থ বিবেচনা করে তিনি ১৯৮৮ সালে পদত্যাগও করেন। এরশাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে যে ১৫ দলীয় ঐক্যজোট গঠন করা হয়, তিনি সেই জোটের প্রধান ছিলেন। এরশাদ শাসনামলে তিনি বেশ কয়েকবার গৃহবন্দি ছিলেন। শারীরিক আক্রমণের শিকারও হয়েছিলেন। তবুও এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে তিনিই মুখ্য ভূমিকা পালন করেন।

১৯৯০ সালে ১৫ দলের নেত্রী শেখ হাসিনার প্রচণ্ড গণআন্দোলনে এরশাদ ক্ষমতাচ্যুত হলেন। তার জনপ্রিয়তা ও অনমনীয়তার কারণে সবাই ধরে নিয়েছিল ১৯৯১ সালের নির্বাচনের পর হাসিনাই প্রধানমন্ত্রী হবেন। শতাংশের হারে বেশি ভোট পেয়েও সুক্ষ্ণ কারচুপির কারণে তিনি বিএনপি অপেক্ষা কম সিট পেলেন; যে কারণে বাংলাদেশের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রীর আকর্ষণীয় পদটি থেকে তিনি বঞ্চিত হলেন। জাতি বঞ্চিত হল মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের নেতৃত্ব থেকে এবং তার মূল্যও জাতিকে দিতে হলো বহুভাবে। তারপর ১৯৯৬ সালে জনগণের ভোটে তিনি প্রধানমন্ত্রী হলেন।

জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত হবার পর শেখ হাসিনা জনমঙ্গল নিশ্চিত করতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার অংশ হিসাবে সংসদীয় কমিটিগুলো গঠিত ও পুনর্গঠিত করেন। এ’সব কমিটিতে মন্ত্রীর পরিবর্তে কোন সাংসদকেই চেয়ারম্যান করা হয়ে থাকে।

শেখ হাসিনার দ্বিতীয় মেয়াদে ১৯৭২ সালের সংবিধানকে পুনরুজ্জীবিত করা হয়েছে। নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মাধ্যমে প্রশাসন ও নির্বাচন পরিচালনা নিশ্চিত করা হয়েছে। বিচার বিভাগ পৃথক করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করার ফলে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ হ্রাস পেয়েছে ।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার:

শেখ হাসিনা বাংলাদেশে ফিরে না আসলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নয়—মুক্তিযোদ্ধাদের বিচার হতো। বিচারের প্রক্রিয়াটি ১৯৯১ সালে পুনরায় শুরু হয়। ঘাতক দালাল নিমূর্ল জাতীয় সমন্বয় কমিটির আহবায়িকা ও সদস্য—সচিব নির্বাচনে শেখ হাসিনার সক্রিয় সমর্থন ছিল। আন্দোলনে শেখ হাসিনার আওয়ামীলীগ প্রধান শরিক সংগঠন হিসেবে যোগ দেয়। আন্দোলনকারী শক্তিসমূহ বিশেষতঃ বুদ্ধিজীবীগণ অফুরন্ত অনুপ্রেরণা লাভ করে। শেখ হাসিনা না থাকলে জামায়াতের ন্যায় ক্যাডার ভিত্তিক সশস্ত্র ফ্যাসিস্ট শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই কঠিন ছিল। ১৯৯২ সালেই শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১০১ জন সংসদ সদস্য গণআদালতে গোলাম আযমের বিচারের রায় কার্যকরের দাবি জানিয়ে তা স্পীকারের কাছে পেশ করেন। তার আন্দোলনের ফলশ্রম্নতিতে গণ আদালতের ২৪ জন তথাকথিত রাষ্ট্রদ্রোহীর মুক্তি এবং গোলাম আজমের বিচার সহ ৪ দফা প্রস্তাব সংসদে গৃহীত হয়।

দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়ে তিনি অনতি বিলম্বে যুদ্ধাপরাধী ও মানবতা বিরোধীদের বিচারের সকল সাংবিধানিক বাধা দূর করে বিশেষ ট্রাইব্যুনালে একে একে অভিযুক্তদের বিচার শুরু করেন। আজ পর্যন্ত ১০ জন শীর্ষ মানবতা বিরোধীসহ অনেকের বিচার কাজ একাধিক ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়েছে। ট্রাইব্যুনাল প্রায় সকলকেই আদালত মৃত্যু দন্ডাদেশ দিয়েছে, কেউ কেউ কারাবন্ধি অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি:

তাঁর প্রথমবারের সরকারের বিশাল অর্জন হচ্ছে ভারতের সাথে ৩০ বছর মেয়াদী গঙ্গার পানি চুক্তি এবং সন্তুলারমার সাথে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি সম্পাদন। এ’গুলো ছিল অনেক পুরানো সমস্যা। পানি সমস্যা পাকিস্তান আমলের আর পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যা প্রায় ২৪ বছরের পুরানো ছিল। আত্নঘাতি ও ভ্রাতৃঘাতি পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যা প্রচুর রক্ত ঝরিয়েছে; স্বাধীনতা—সার্বভৌমত্বকে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করেছিল এবং বহির্বিশ্বে মানবিক ও অসা¤প্রদায়িক বাঙালির ভাবমূর্তিকে চুরমার করে উন্নয়ন ও অগ্রগতির সংকট সৃষ্টি করেছিল। শেখ হাসিনা তার কৌশলী নেতৃত্বে পার্বত্য শান্তিচুক্তি সম্পাদন করে এই অঞ্চলকে দেশের মূল স্রোতের সাথে সম্পৃক্তকরণ প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছেন। গঙ্গার পানি চুক্তি ও পার্বত্য শান্তি চুক্তির ফলে উন্নয়নের সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্তসহ প্রতিবেশীর সাথে সুসম্পর্কের ভিত্তি রচিত হয়েছে। শান্তি চুক্তির পাশাপাশি ছিটমহল সমস্যা ও সমুদ্র সীমা সমস্যা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ও দেশের আয়তন বৃদ্ধি করেছে। আমরা ব্লূ—ইকোনোমির স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথ খুঁজে পেয়েছি।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের বিচার:

তার আমলের অপর একটি অর্জন হচ্ছে কুখ্যাত ইনডেমনিটি আইন বাতিল যা বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের বিচারের পথ সুগম করেছে। বিশেষ ট্রাইব্যুনালে ঘাতকদের বিচার না করে প্রচলিত আদালতেই বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের বিচার হয়েছে। কিন্তু ২০০২ সালে বি এন পি ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়ে এই বিচারের রায় কার্যকরী না করলেও শেখ হাসিনা ২০০৯ সালে তা কার্যকরী করেন। জাতির প্রত্যাশা মোতাবেক শেখ হাসিনা বিশেষ আদালতে নিষ্পত্তি না করে প্রচলিত আদালতের মাধ্যমে বিচার কার্য শেষ করে দূরদর্শিতা নয়, রাষ্ট্র নায়ক সুলভ আচরণের প্রমাণ আরও একবার রাখলেন।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস:

শেখ হাসিনা দেশে ফিরে না আসলে দেশটা হতো মিনি পাকিস্তান। ভাষা—সংস্কৃতি যেত তলিয়ে। শুধু ভাষা সংস্কৃতি রক্ষা নয়, একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে জাতিসংঘের ঘোষণা আদায়ও তাঁর অনন্য কৃতিত্ব। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা তার সাথে সংগতিপূর্ণ ছিল কিন্তু ক্ষমতা ছেড়ে দেয়ার কারণে তার পূর্ণাঙ্গতা দেয়া সম্ভব হয়নি।

দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় এসে তিনি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনষ্টিটিউট প্রতিষ্ঠা ও সোহ্রাওয়াদীর্ উদ্যানে স্বাধীনতা স্মৃতি স্তম্ভ তৈরি হয়েছে। বাঙালির মনন বাংলা একাডেমির কাঠামোগত পরিবর্তন ছাড়াও আত্মিক পরিবর্তন হয়েছে। এই প্রথম বারের জন্যে বাংলা একাডেমির জন্যে একটি পূর্ণাঙ্গ আইন প্রণীত হয়েছে।

অর্থনৈতিক উন্নয়ন:

শেখ হাসিনার প্রথম শাসনামলে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্য মাত্রা ধরে কাজ শুরু করেছিল। বিশ্বকে পেছনে ফেলে সহস্রাব্দ উন্নয়নের সবক’টি লক্ষ্য মাত্রা নির্দিষ্ট সময়ের আগেই বাংলাদেশ অর্জন করেছে। ম্যাক্রো —মাইক্রো অর্থনীতির ব্যবস্থাপনায় অনন্য দক্ষতা দিয়ে তিনি প্রবৃদ্ধির চাকাকে সচল রেখেছেন। নিম্নের সারনীতে অর্থনৈতিক চাল—চিত্রের সামান্য পরিচয় পরিস্ফুট হয়েছে ঃ

শিরোনাম 2005-06 2017-18 2022-2023 ২০২৪ এর প্রস্তাবিত লক্ষ্যমাত্রা
জিডিপি প্রবৃদ্ধি 5.40% 7.86% 7.50% 7.97%
মাথাপিছু আয় (মার্কিন ডলারে) 427.00 1751.00 2793 2750.00
জাতীয় সঞ্চয় (জিডিপির শতাংশে) 27.70 29.00 31.00 37.00
বিনিয়োগ (জিডিপির শতাংশে) 24.70 30.50 32.00 37.00
বাজেট (কোটি টাকায়) 64,683.00 4,64,000.00 10,00,000.00
বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ (বিলিয়ন মার্কিন ডলারে) 3.88 34.00 35.00 50.00
রপ্তানী আয় (বিলিয়ন মার্কিন ডলারে) 10.05 36.60 55.56 72.00
আমদানি (বিলিয়ন মার্কিন ডলারে) 14.70 56.00 110.00
দরিদ্র জনংখ্যা (শতকরা হারে) 41.51 21.50 18.13 12.30
অতি দরিদ্র জনসংখ্যা (শতকরা হারে) 25.10 11.30 5.6 4.50
বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষমতা (মেগাওয়াটে) 3,782.00 20,400.00 27500.00 28,000.00

সামাজিক নিরাপত্তার জাল বিস্তার:

দুঃস্থ মানুষের মাথাগোঁজার ঠাঁই করে দিতে তার সরকার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলেও বহু নির্মাণ কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। একটি বাড়ি, একটি খামার এক অনন্য কর্মসূচি। বেকারদের কর্মসংস্থানের জন্যে কর্মসংস্থান ব্যাংক তাদের লেনদেন কাজ শুরু করেছে। বন্যা ও বন্যা পরবর্তী পুনর্বাসন কর্ম অত্যন্ত দক্ষতা ও নিপুণতার সাথে সম্পন্ন করে শেখ হাসিনা দেশি ও বিদেশিদের তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। তার প্রথম শাসনামলে যেখানে বিদেশি পত্রিকার পূর্বাভাস ছিল যে আকস্মিক বন্যায় দু’কোটি মানুষ মারা যাবে, সেখানে মালের ক্ষতি মাত্রাতিরিক্ত হলেও মানুষ মরেছে ২ হাজারেরও অনেক কম, তাও কয়জন না খেয়ে মরেছে সে তথ্য বিরোধী পক্ষও উপস্থাপন করতে পারেনি। তিনি দেশে না এলে কি এমনটি হতো?

সামাজিক মঙ্গল:

তাঁর শাসনামলে মুক্তিযোদ্ধাদের যেভাবে মূল্যায়ন করা হয়েছে তা পূর্বে কোন আমলে এমনটি হয়নি। শেখ হাসিনার সরকার বিশ্বব্যাপী দুর্যোগ ও দুর্ভোগ, স্বদেশের হরতাল, ধর্মঘট, অবরোধ, জ্বালাও—পোড়াও এর মধ্যেও উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করেছে। মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে, মানুষের গড় আয়ু ৭৩ —এ ছুঁই ছুঁই করছে, শিশুমৃত্যু ও মাতৃমৃত্যুর হার হ্রাসে প্রতিবেশী ভারতকে ছাড়িয়ে গেছে, সুপেয় পানীয় জল সরবরাহে ঈর্ষান্বিত সফলতা, খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি, খাদ্যে ভেজাল নিরোধ প্রয়াস ও চিকিৎসা ব্যবস্থা জনগণের দোর গোড়ায় পৌঁছিয়ে দেয়ার কারণে এমনটি অর্জন করেছে। তেমনি রেকর্ড সৃষ্টি করেছে অন্যান্য ক্ষেত্রে, যার মাঝে জাতিসংঘের শান্তি রক্ষী বাহিনী প্রেরণ অন্যতম।

খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা:

শেখ হাসিনার প্রথমামলের সরকার ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্বকে মিথ্যা প্রমাণিত করেছিল। সেই কবে ম্যালথাস নামক একজন ধর্মযাজক বলেছিলেন যে, ‘জনসংখ্যা বাড়ে জ্যামিতিক হারে আর খাদ্যশস্যের উৎপাদন বাড়ে গাণিতিক হারে’। আমি এই তত্ত্বে বিশ্বাসী হয়ে পড়েছিলাম স্কুল জীবনে এবং এক জাতীয় হতাশা ও নৈরাশ্য আমাকে পেয়ে বসেছিল। আমার ছেলে বেলায় বাংলাদেশ তথা পূর্ববঙ্গ তথা পূর্ব পাকিস্তানে জনসংখ্যা ছিল ৪ কোটির মত; আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ ছিল এখন যা আছে, তার চেয়ে ঢের বেশি। তখন জন্মের হার ছিল বেশি, শিশু মৃত্যুর হার ছিল বেশী, ক্যালরি গ্রহণের পরিমাণ ছিল অনেক কম। বর্তমানে জনসংখ্যা বেড়েছে সেদিনের তুলনায় প্রায় পাঁচগুণ। আবাদী জমির পরিমাণ বিবিধ কারণে অন্ততঃ এক—তৃতীয়াংশ কমেছে। ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনা যখন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন তখন খাদ্য ঘাটতি ছিল ৪০ লক্ষ টন। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত দুটো বন্যা হয়েছে।

পরবর্তীতে দেশ খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জনের পাশাপাশি উত্তর বঙ্গের মঙ্গা বিতারণ কর্মসূচিকে বেগবান করা হয়। বর্তমানে মঙ্গা ইতিহাসের বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছে। ইতোমধ্যে পাটের জীবন—বৃত্তান্ত উৎঘাটিত হয়েছে। বিভিন্ন রকমের উচ্চ ফলনশীল ও দ্রুত ফলনশীল খাদ্যের উদ্ভাবন ঘটিয়ে মানুষের খাদ্যের চাহিদা পূরণ করা হয়েছে। একটি বাড়ী — একটি খামার কর্মসূচির পূর্ণসূচনার কারণে এবং ভূমিহীনদের মধ্যে খাস জমি বন্টন কর্মসূচি খাদ্য উৎপাদনে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের সূচনা করেছে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ:

কথা ছিল ২০২১ সালের মধ্যে শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ উপহার দেবেন কিন্তু ২০১৩ সালের মধ্যে সে লক্ষ্য অর্জিত হয়েছে। সব জেলায় ই—সার্ভিস সেন্টার চালু হয়েছে। মোবাইল ব্যাংকিং, মোবাইল স্বাস্থ্য—সেবা, ই—কমার্স ও ই—গভর্নেন্স উল্লেখযোগ্য হারে চালু হয়েছে। তিন কোটি ৮৬ লাখ মানুষ ইন্টারনেট সেবা ব্যবহার করছে। আর মোবাইলে থ্রি—জি সেবা চালু করা হয়েছে। এখন আমাদের কাঙ্খিত লক্ষ্য স্মার্ট বাংলাদেশ; যার রূপায়ন ক্রমশ: দৃশ্যমান হচ্ছে।

শেষ কথা:

শেখ হাসিনা আমাদের মাথা তুলে দাঁড়াতে শিখিয়েছেন। তিনি দেশে ফিরে না এলে তার তেমন কোন ক্ষতি ছিল না। দেশে না ফিরলে তার ব্যক্তি জীবন ও সন্তানদের জীবন মোটামুটি সচ্ছলভাবে চলে যেত। দেশে ফিরে এসে তিনি নিজের জীবন ও সন্তানদের জীবনকে সংকটাপন্ন করেছেন। সংকটাপন্ন করেছেন বোনের জীবন। পৃথিবীর অন্য কোন দেশে এমন নেতা আছেন কিনা যিনি ২৩ বার হামলার শিকার হয়েও বেঁচে আছেন। মাঝে মাঝে আমার মনে হয়, আল্লাহতায়ালা বঙ্গবন্ধুকে পাঠিয়েছিলেন আমাদের গোলামী জিঞ্জির ভাঙার জন্যে আর শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন দেশকে কোন উচ্চতর মাত্রায় পৌছে দিতে।

লেখকঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা, দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ ও উপাচার্য, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।