দেশের প্রথম ক্লাউড ডেটা সেন্টার চালু করলো জেননেক্সট

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে বাংলাদেশের প্রথম ক্লাউড ডেটা সেন্টার ‘মেঘনা ক্লাউড’ চালু করলো আইটি প্রতিষ্ঠান জেননেক্সট টেকনোলজিস লিমিটেড। প্ল্যাটফর্মটি সার্ভার, স্টোরেজ, নেটওয়ার্কিং সরঞ্জাম এবং সংশ্লিষ্ট সফটওয়্যার প্রযুক্তিসহ ক্লাউড পরিষেবা পরিকাঠামো প্রদান করবে। এর মাধ্যমে দেশের তথ্য-উপাত্ত দেশে রেখে সরকারি-বেসরকারি উভয় প্রতিষ্ঠানকে সেবা দেওয়া সম্ভব হবে। এই পদক্ষেপটি ক্লাউড প্রযুক্তি ক্রয় এবং ব্যবহার করার জন্য বার্ষিক প্রচুর পরিমাণে বৈদেশিক মুদ্রার ব্যয় সাশ্রয় করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

মাত্র এক বছরের মধ্যে, ক্লাউড প্ল্যাটফর্মটি চালু করা হয়েছে। ২৯শে ডিসেম্বর ২০২২-এ, জেননেক্সট মেঘনা ক্লাউডের জন্য বাংলাদেশ ডেটা সেন্টার কোম্পানি লিমিটেড (বিডিসিসিএল) এর সাথে একটি যৌথ উদ্যোগের চুক্তি করে।

চুক্তির আওতায় জেননেক্সট মেঘনা ক্লাউড নির্মাণ, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের পাশাপাশি বিডিসিসিএলের সাথে সরকারি ও বেসরকারি খাতে ক্লাউড সেবা বিক্রয় ও বিপণন নিশ্চিত করবে।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, এই ‘মেড ইন বাংলাদেশ ক্লাউড’ সরকারি ও বেসরকারি খাতের কৌশলগত অংশীদারিত্বের একটি চমৎকার উদাহরণ। এই উদ্যোগের মাধ্যমে দেশ বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করতে পারে এবং আরও তথ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবে।

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪-এ গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটিতে মেঘনা ক্লাউড ডেটা সেন্টার পরিদর্শন শেষে প্রতিমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

পরিদর্শনকালে জেননেক্সট টেকনোলজিস লিমিটেডের চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী এবং জেননেক্সট টেকনোলজিস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলাভী আজফার চৌধুরী প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং আইসিটি সচিব মোঃ সামসুল আরেফিনকে ক্লাউড সেন্টারের কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত করেন।

জেননেক্সট ক্লাউড প্ল্যাটফর্ম সেট করতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে এবং এটি পরিচালনা করার জন্য একটি দক্ষ কর্মী বাহিনী তৈরি করেছে।

জেননেক্সট টেকনোলজিসের চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, মেঘনা ক্লাউড স্মার্ট বাংলাদেশ পদক্ষেপকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করবে। আমরা সরকারি ও বেসরকারি উভয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য একটি গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্রও স্থাপন করছি। এই উদ্যোগ প্রতি বছর প্রায় ৫০০০ শিক্ষার্থীকে ক্লাউড সম্পর্কিত প্রযুক্তির প্রশিক্ষণ দেবে।

জেননেক্সট টেকনোলজিসের ভাইস চেয়ারম্যান জাভেদ অপগেনহেপেন বলেন, কোম্পানিটি এই প্রকল্পের জন্য আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে প্রায় ৫০ কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করার পরিকল্পনা করছে। তিনি বলেন, আমরা দেশের সার্বিক উন্নয়নে অবদান রাখতে সরকারের সাথে যৌথভাবে কাজ করতে চাই। এই ক্লাউড প্ল্যাটফর্মটি স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

তিনি আরও বলেন যে ডেটা সেন্টারটি অন্যান্য দেশ থেকে ক্লাউড প্রযুক্তি ক্রয় এবং ব্যবহারের জন্য ব্যয় করা বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করতে সহায়তা করবে কারণ এখন বাংলাদেশের আর শুধু বিদেশী ডেটা স্টোরেজ সুবিধার উপর নির্ভর করার প্রয়োজন হবে না।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশের বেশির ভাগ ডেটা আসে সিঙ্গাপুর সার্ভারের মাধ্যমে। এটি দুই-স্তরের চ্যালেঞ্জ তৈরি করে। প্রথমত, বর্তমান ব্যবস্থায় সিঙ্গাপুর সরকারের এই সকল ডেটায় অ্যাক্সেস থাকে। সুতরাং, কোনো সংবেদনশীল তথ্য পুনরুদ্ধার করা কঠিন হবে।

দ্বিতীয়ত, ডেটা স্থানান্তরের খরচ বেশি হয় কারণ এটিকে বেশ দীর্ঘ দূরত্ব ভ্রমণ করতে হয় যা সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশে স্থানান্তর করতে প্রায় ৬০ মিলি সেকেন্ড লাগে। যদি ডেটা সেন্টারগুলি দেশের সীমানার মধ্যে থাকে তবে এটি এই দুটি সমস্যাকে নিরসন করবে।

জেননেক্সট টেকনোলজিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলাভী আজফার চৌধুরী বলেন, মেঘনা ক্লাউড এমন একটি নিরাপত্তা প্ল্যাটফর্ম তৈরি করার আশা করছে যা সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা প্রদান করবে। ২০১৯ সালে সরকার বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটিতে ফোর টায়ার ন্যাশনাল ডেটা সেন্টার প্রতিষ্ঠা করে, যা বাংলাদেশের বৃহত্তম। এটি বাংলাদেশ ডেটা সেন্টার কোম্পানি লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত।