রিজার্ভ ২৫ বিলিয়ন: দেশে ডলারের সংকট নেই, ৩৯ ব্যাংকে কেনা আছে বাড়তি ডলার

দেশে ২৫ দশমিক ১৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মেজবাউল হক বলেছেন দেশে ডলারের সরবরাহ সংকট নেই। ব্যাংকগুলোর চাহিদার তুলনায় বাড়তি ডলার কেনা আছে। এখন প্রায় ৩৯টি ব্যাংকে কেনা আছে বাড়তি ডলার।

বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ ব্যাংকে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক।

মুখপাত্র জানান, বাফেদা রপ্তানি-রেমিট্যান্স ও আমদানি সব ক্ষেত্রেই ডলারের দাম ৫০ পয়সা কমিয়েছে। এতে করে ডলারের বিপরীতে বাংলাদেশের টাকার মান বাড়বে। যেটা এতদিন ছিল উল্টোমুখী। আমদানি কমে যাওয়ার কারণে ডলার চাহিদা কমে এসেছে এবং আগামী বছরের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে বিল পরিশোধের চাপ অতি নগণ্যতে নেমে আসবে।

ডলারের দাম কমানোর সিদ্ধান্ত যৌক্তিক উল্লেখ করে মেজবাউল হক বলেন, বৈদেশিক মুদ্রার দাম বাজারের চাহিদা ও যোগানের ওপর নির্ভর করে। গত কয়েক মাসে ডলারের চাহিদা নজরদারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পণ্য আমদানিতে কেউ মূল্য নিয়ে কারসাজি করে কিনা, কিংবা বিলাস পণ্য আসছে কিনা, তা দেখা হচ্ছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মুখপাত্র জানান, আমাদের বেশিরভাগ ব্যাংকের কাছেই প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ডলার আছে। পক্ষান্তরে সংকটেও রয়েছে কিছু ব্যাংক। এসব ব্যাংকের গ্রাহক চাইলেও চাহিদা অনুযায়ী ঋণপত্র খুলতে পারছেন না। তাই তারা বাধ্য হয়ে অন্য ব্যাংকের শরণাপন্ন হচ্ছেন। এ কারণেই কখনো কখনো অস্থিরতা দেখা দিচ্ছে ডলারের বাজারে।

কতগুলো ব্যাংক সংকটে আছে জানতে চাইলে মুখপাত্র বলেন, ২১ ব্যাংকের ডলার সংকটে আছে। এর বিপরীতে ৩৯ ব্যাংকের কাছে পর্যাপ্ত ডলার মজুত আছে। তবে মুখপাত্র ব্যাংকগুলোর নাম প্রকাশ করেননি।