‘টাকা পে’ কার্ড উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ন্যাশনাল কার্ড স্কিম  ‘টাকা পে’  উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (নভেম্বর ০১) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে এই ডেবিট কার্ড উদ্বোধন করেন তিনি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে চালু হওয়া এই কার্ড ভিসা কার্ড, মাস্টারকার্ড ও অ্যামেক্সের মতো আন্তর্জাতিক কার্ড সেবার একটি স্থানীয় বিকল্প। পুরোপুরি দেশীয় মধ্যস্থতায় চলবে এই সেবা।

বিদেশি কার্ডের ওপর নির্ভরতা কমিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ের উদ্দেশ্যে এই টাকা পে কার্ড চালু করা হয়।

প্রাথমিকভাবে রাষ্ট্রমালিকানাধীন সোনালী ব্যাংক, বেসরকারি খাতের সিটি ব্যাংক ও ব্র্যাক ব্যাংক টাকা পে কার্ড সেবা চালু করছে।

পরবর্তীতে অন্য ব্যাংকগুলোও টাকা পে কার্ড চালু করবে।

দেশের সব এটিএম, পয়েন্টস অব সেলস ও অনলাইন প্ল্যাটফর্মে এই কার্ড ব্যবহার করা যাবে। শুরুতে টাকা পে ডেবিট কার্ড হিসেবে ব্যবহার করা গেলেও ভবিষ্যতে ক্রেডিট কার্ডও আসবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আপাতত বাংলাদেশের মধ্যে এই সেবা চালু হলেও ভবিষ্যতে টাকা পে কার্ড ভারতে ব্যবহার করা যাবে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

টাকা পে কার্ড উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে আমরা  খুব আনন্দিত। টাকা পে কার্ড এটা দেশের জন্য একটা যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

টাকা পে কার্ড বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করবে জানিয়ে সরকার প্রধান বলেন, এখন আমাদের পরনির্ভরশীলতা কমে যাবে। আমরা এখন যেসব কার্ড ব্যবহার করিয়ে এগুলি বিদেশি সংস্থার সঙ্গে সম্পর্কিত। সেখানে আমাদের বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় করতে হয়। এই কার্ডে এখন আর বিদেশি মুদ্রা খরচ করা লাগবে না।

ভবিষ্যতে টাকা পে কার্ডের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক লেনদেন চালু করার পরিকল্পনার কথা জানান তিনি।

ক্যাশলেস সোসাইটি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, হার্ড কারেন্সি ( কাগজের টাকা) ওপর আমাদের যেন নির্ভরশীল থাকতে না হয় সেটাই আমাদের লক্ষ্য ছিল আজকে আমরা সেটা করতে পেরেছি।

ক্যাশলেস সোসাইটি প্রতিষ্ঠার সুবিধা কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের দেশে যখন ক্যাশলেস সোসাইটি প্রতিষ্ঠিত হবে তখন দুর্নীতিও হ্রাস পাবে, দেশের উন্নয়ন বৃদ্ধি পাবে, রাজস্ব আয়  সহজ হবে।

ক্যাশলেস সোসাইটি প্রতিষ্ঠায় সবাইকে ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনার ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, আমাদের ক্যাশলেস সোসাইটি প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সেক্ষেত্রে দেশের সকল মানুষকে ব্যাংকিং সেবার আওতায় আনতে হবে।

ব্যাংকিং খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে বাংলাদেশ ব্যাংককে নজর দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্যাশলেস সোসাইটি প্রতিষ্ঠায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গুরুত্ব অসীম। কাজেই ব্যাংকিং খাতে সেবাটা যাতে আরো সুষ্ঠু হয়, সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হয় এবং সুরক্ষিত হয় সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার।

ন্যাশনাল কার্ড স্কিম ‘টাকা পে’র নিরাপত্তা, বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার কথা তুলে ধরেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মেজবাউল হক।

সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফজাল করিম, ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আরএফ হোসেন, সিটি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাশরুর আরেফিন তাদের অফিস থেকে টাকা পে কার্ডের ব্যবহার, এর মাধ্যমে অনলাইন পেমেন্ট, এটিএম থেকে টাকা উত্তোলন করে দেখান। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে তা প্রত্যক্ষ করেন।