উন্নয়নই বিশ্বে বাংলাদেশকে নিয়ে উচ্ছ্বাসের কারণ

দেশের মানুষকে সঙ্গে নিয়ে উন্নয়নে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টার কারণেই বিশ্বে বাংলাদেশকে নিয়ে এত উচ্ছ্বাস। আর এই উচ্ছ্বাস ধরে রাখতে আগামীতে আয় বৈষম্য কমানো জরুরি বলে মনে করছেন বিশিষ্টজনেরা।

শনিবার (১৩ মে) রাজধানীর বনানীর ঢাকা গ্যালারিতে এডিটরস গিল্ড আয়োজিত ‘বাংলাদেশের উন্নয়নে বিশ্বের উচ্ছ্বাস’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তারা এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য সফর এবং তার আগে কাতারে এলডিসি সম্মেলনে বিভিন্ন দেশ ও সংস্থার উচ্ছ্বাস নিয়ে তারা আলোচনা করেন।

এডিটরস গিল্ডের সভাপতি মোজাম্মেল বাবু গোলটেবিল বৈঠকের সঞ্চালনা করেন।

আলোচকরা বলেন, বাংলাদেশ কখনও বিদেশি ঋণের কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হয়নি, যা দেশের জন্য বড় শক্তি। এছাড়া সম্প্রতি বাংলাদেশের প্রতি বিশ্বব্যাংকসহ অন্যান্য সংস্থাগুলো যারা ল্যান্ডিং করে তাদেরও ব্যাপক আত্মবিশ্বাস লক্ষ্য করা গেছে।

ঈর্ষণীয় অগ্রগতির কারণে বিশ্বব্যাংকসহ অনেকেরই মনোযোগের কেন্দ্রে বাংলাদেশ মন্তব্য করে তারা বলেন, টানা এক যুগের বেশি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির গড় ৬ শতাংশের বেশি। উন্নয়নের এই গতির কারণে দ্রুত উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

তারা আরও বলেন, ভূ-রাজনীতিতে বাংলাদেশের ব্যালেন্স অবস্থান, বাংলাদেশের পলিটিক্যাল লিডারশিপ, দূরদর্শী লিডারশিপ সবকিছুই উচ্ছ্বাসের কারণ।

দেশি-বিদেশি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জাতীয় নির্বাচনে পরিচ্ছন্ন ইমেজের প্রার্থীরা মনোনয়ন পাবেন বলে আশা করেন বক্তারা। তারা বলেন, নির্বাচন আসন্ন। জনগণ নির্বাচনে উন্নয়নের ধারাবাহিকতার পক্ষে অবস্থান নিয়ে এবং দল হিসেবে আওয়ামী লীগ এবং অন্যান্য বিরোধীদল বাংলাদেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে।

গোলটেবিল বৈঠকে আলোচক হিসেবে ছিলেন—প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ, সাবেক পররাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরী, আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান।

এছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, আমাদের নতুন সময়ের ইমেরিটাস এডিটর নাইমুল ইসলাম খান, অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ ও রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি ইন্টিগ্রেশন ফর ডেভেলপমেন্টের (র‍্যাপিড) চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুর রাজ্জাক।