মেট্রোরেল: উদ্বোধনী যাত্রার জন্য ‘প্রস্তুত’ আফিজা

উদ্বোধনের দিন মেট্রেরেলের প্রথম যাত্রী হবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ছয় নারী চালক নিয়ে দেশের প্রথম মেট্রোরেলের যাত্রা করার পরিকল্পনা করেছে ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি; যাদের মধ্যে মরিয়ম আফিজা উদ্বোধনী দিনই চালকের আসনে বসার প্রস্তুতি শেষ করেছেন।

২৮ ডিসেম্বর উদ্বোধন হতে যাচ্ছে দেশের প্রথম মেট্রোরেল সেবার। পুরুষ চালকদের সঙ্গে অন্তত ছয় জন নারী চালক এই ট্রেন চালাতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এম এ এন সিদ্দিক।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, “মেট্রোরেল উদ্বোধনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। সবগুলো ট্রেন চালানোর জন্য পর্যাপ্ত চালক নিয়োগ করা হয়েছে, যাদের মধ্যে পাঁচ-ছয় জন নারী সদস্যও আছেন, তাদের প্রশিক্ষণও আমরা শেষ করেছি।”

উদ্বোধনের দিন মেট্রেরেলের প্রথম যাত্রী হবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর দায়িত্ব পেলে সেদিন ট্রেন চালানোর প্রস্তুতি নিয়ে রাখার কথা জানিয়েছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোবিপ্রবি) থেকে কেমিস্ট্রি অ্যান্ড কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে স্নাতকোত্তর শেষ করে মেট্রোরেলের চালক হিসেবে নিয়োগ পাওয়া মরিয়ম আফিজা।

গত বছরের ২ নভেম্বর চালক হিসেবে নিয়োগ পান তিনি। টানা এক বছর প্রশিক্ষণ নিয়ে পাকা চালক হিসেবে নিজেকে তৈরি করার কথাও তিনি জানানিয়েছেন।

ইতোমধ্যে মরিয়ম আফিজা চট্টগ্রামের হালিশহরে রেলওয়ের ট্রেনিং একাডেমিতে দুই মাসের প্রশিক্ষণ নিয়ে ঢাকায় ফিরে আরও চার মাস প্রশিক্ষণ নেন। বর্তমানে উত্তরার দিয়াবাড়িতে মেট্রোরেলের ডিপোতে কারিগরি ও প্রায়োগিক প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন।

সেখানে মেট্রোরেলের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জাপানের মিতসুবিশি-কাওয়াসাকি কোম্পানির বিশেষজ্ঞরা ট্রেন পরিচালনার কারিগরি ও প্রায়োগিক নানা প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন।

মেট্রোরেলের নারী চালক হতে পেরে উচ্ছ্বসিত মরিয়ম আফিজা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “২০২১ সালের ২ নভেম্বরে আমি নিয়োগ পাই। এর আগে চালক হিসেবে কোথাও কাজ করিনি। নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে আমি কয়েকটি ট্রেনিং করেছি। এখনও ট্রেনিংয়ের মধ্যেই আছি।”

ট্রেন চালানোর জন্য কতটুকু প্রস্তুত জানতে চাইলে মরিয়ম বলেন, “আমি চালক হিসেবে সবগুলো ট্রেনিংয়ের ধাপ পেরিয়েছি, এখনও চালাচ্ছি, যাত্রী নিয়ে চালানো হয়তো কিছু দিনের মধ্যেই শুরু করব।

“সঠিকভাবে সব প্রশিক্ষণ নেওয়া এবং প্রয়োজনীয় দক্ষতা অর্জন করতে পেরেছি বলে আমি মনে করি। তার পরেও আরও দক্ষতা অর্জনের জন্য প্রতিনিয়ত প্রশিক্ষণ নিচ্ছি এবং শিখছি।”