উদ্বোধনের অপেক্ষায় ২ হাজার কিমি সড়ক

সারা দেশে একসঙ্গে দুই হাজার কিলোমিটার সড়ক উদ্বোধন করতে যাচ্ছে সরকার। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ২১ ডিসেম্বর একযোগে এসব সড়কের উদ্বোধন করা হবে। ৫১ জেলায় অবস্থিত সব সড়কের নির্মাণে খরচ হয়েছে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা। খরচের বেশির ভাগই জোগান দিয়েছে সরকার।

সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর বলছে, উদ্বোধনের অপেক্ষায় থাকা এসব সড়কের মধ্যে সাউথ এশিয়ান সাব-রিজিওনাল ইকোনমিক কো-অপারেশন (সাসেক) কর্মসূচির আওতায় জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা ছাড়া বাকি সব সড়ক সরকার নিজস্ব অর্থায়নে করেছে। এই সড়কে সরকারি অর্থায়নের পাশাপাশি বিদেশি ঋণ সহায়তা নেওয়া হয়েছে।

এরই মধ্যে প্রকল্পগুলো উদ্বোধনের জন্য চূড়ান্ত সারসংক্ষেপ প্রস্তুত করছে সওজ। আজ বুধাবার সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ে এসংক্রান্ত একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সারসংক্ষেপ চূড়ান্ত হওয়ার পর তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পাঠানো হবে। অনুমোদনের পরই শুরু হবে উদ্বোধন কার্যক্রম।

এদিকে সড়ক উদ্বোধন সংক্রান্ত একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি সূত্রে জানা যায়, সব সড়ক উদ্বোধনের জন্য প্রস্তুত আছে। এখন শুধু কাগজ-কলমের প্রস্তুতি বাকি। প্রাথমিকভাবে সড়কগুলো উদ্বোধনের জন্য ২১ ডিসেম্বর দিন ঠিক করা হয়েছে। আর দু-একটি বৈঠকের মধ্যে সারসংক্ষেপ চূড়ান্ত করা হবে।

সওজ সূত্রের তথ্য অনুযায়ী, মোট ৫১ জেলায় এসব সড়কের অবস্থান। এর মধ্যে জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা সড়কটি সবচেয়ে বড়। এই সড়কের দৈর্ঘ্য প্রায় ৭০ কিলোমিটার। সবচেয়ে ছোট ইজতেমা সড়ক। এটি গাজীপুরে অবস্থিত। এই সড়কের দৈর্ঘ্য ১.৩ কিলোমিটার। বেশি সড়ক ঢাকা বিভাগে আর কম সিলেটে। এর মধ্যে পার্বত্য অঞ্চলে কোনো সড়ক নেই।

সংস্থাটির অধীনে বর্তমানে দেশে ২২ হাজার ৪৭৬ কিলোমিটার সড়ক নেটওয়ার্ক আছে। এর মধ্যে ১৩ হাজার ৮০০টি কালভার্ট এবং সাড়ে চার হাজার সেতু আছে। এই সড়ক নেটওয়ার্কের মধ্যে তিন হাজার ৯৯১ কিলোমিটার জাতীয় মহাসড়ক, চার হাজার ৮৯৭ কিলোমিটার আঞ্চলিক সড়ক এবং ১৩ হাজার ৫৮৮ কিলোমিটার জেলা সড়ক। এর সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হতে যাচ্ছে আরো দুই হাজার কিলোমিটার সড়ক।

এর আগে সারা দেশে একসঙ্গে ১০০ সেতুর উদ্বোধন করেছে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর। সব মিলিয়ে সেতুগুলোর মোট দৈর্ঘ্য ছিল পাঁচ হাজার ৪৯৪.১৩ মিটার। এসব সেতু নির্মাণে ব্যয় করা হয় ৮৭৯ কোটি ৬১ লাখ ৫৭ হাজার টাকা, যার পুরোটাই সরকারি অর্থায়নে হয়েছে।