নেপাল-বাংলাদেশ যৌথ জলবিদ্যুৎ প্রকল্প পেল পরিবেশ ছাড়পত্র

নেপাল ও বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে নির্মীয়মাণ ৬৮৩ মেগাওয়াট শক্তিসম্পন্ন জলবিদ্যুৎ প্রকল্প সানকোশি-৩ পরিবেশগত ছাড়পত্র পেয়েছে। নেপালের বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় (ইআইএ) সম্প্রতি এক হাজার ৬০০ কোটি রুপির এই প্রকল্পে পরিবেশগত অনুমোদন দিয়েছে। দেশটির রামেছাপ ও কেভরেপালোনচক জেলার মাঝামাঝি প্রকল্পটি নির্মাণ করা হচ্ছে।

ইআইএর বরাতে দেশটির সংবাদমাধ্যম দ্য কাঠমাণ্ডু পোস্ট-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, মূল্যায়নপত্রটি শিগগিরই পাঠানো হবে বাংলাদেশে। রাজধানী ঢাকা থেকে অনুমোদন পেলে প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজে নামবে এই দুই দেশ।

চলতি বছর আগস্টের শেষ দিকে ওয়ার্কিং গ্রুপ অ্যান্ড জয়েন্ট স্টিয়ারিং কমিটির চতুর্থ বৈঠকে দুই পক্ষের মধ্যে চুক্তি হয়। সেই অনুযায়ী দুই দেশ যৌথ উদ্যোগে বিনিয়োগের মাধ্যমে প্রকল্প নির্মাণে একমত হয়।

২৫ আগস্ট নেপালের জ্বালানি, পানিসম্পদ ও সেচ মন্ত্রণালয়ের জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, উভয় পক্ষ সম্মত হয়েছে, নেপাল যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রকল্পটির পরিবেশগত প্রভাব বিষয়ে মূল্যায়ন (ইআইএ) প্রতিবেদন বাংলাদেশে পাঠাবে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের পক্ষ একটি যৌথ কোম্পানি প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে দ্রুততম সময়ে তারা মতামত দেবে।

নেপাল থেকে বিদ্যুৎ আমদানি ও বিদ্যুৎ খাতে সহযোগিতা বাড়ানোর জন্য ২০১৮ সালে একটি সমঝোতা স্মারক সই হয় এই দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে।

প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ অ্যান্ড জয়েন্ট স্টিয়ারিং কমিটি গঠন করা হয়। অনলাইনে চতুর্থ সভায় সিদ্ধান্ত হয়, হাইড্রো পাওয়ার প্ল্যান্ট নির্মাণে যৌথভাবে বিনিয়োগ করবে বাংলাদেশ ও নেপাল। এ লক্ষ্যে সানকোশি-৩ এবং খিমতি শিভালয়া নামক দুটি প্রকল্প প্রাথমিকভাবে বাছাই করা হয়।