আরও ১০৫ কোটি টাকা ব্যয়ে চার নদীর নাব্য উন্নয়ন

পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তুলাই এবং পুনর্ভবা নদীর নাব্য উন্নয়ন ও পুনরুদ্ধার প্রকল্পে আরও ১০৫ কোটি ৪৪ লাখ ২১ হাজার ৯১০ টাকা ব্যয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ প্রকল্পের কাজ করবে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)।

বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ৩৩তম সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

সভা শেষে সভায় অনুমোদন পাওয়া প্রস্তাবগুলোর বিস্তারিত সংবাদিকদের কাছে তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব খান।

সাঈদ মাহবুব খান জানান, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃক ‘পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তুলাই এবং পুনর্ভবা নদীর নাব্য উন্নয়ন ও পুনরুদ্ধার’ প্রকল্পের ড্রেজিং বাই কাটার সাকশন ড্রেজার (প্যাকেজ-৫, লট -২)-এর পূর্ত কাজ যৌথভাবে ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেড এবং ইউনাইটেড প্রোগ্রেসিভ ড্রেজিং লিমিটেডকে দেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ জন্য ব্যয় হবে ৪৮ কোটি ৬৭ লাখ ৩৭ হাজার ৯৯০ টাকা।

এছাড়া এ প্রকল্পের প্যাকেজ-৫, লট -৫- এর পূর্ত কাজ যৌথভাবে ওয়াহিদ কনস্ট্রাকশন এবং ওরিয়েন্ট ট্রেডিং অ্যান্ড বিল্ডার্স লিমিটেডকে দেওয়ার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ কাজে ব্যয় হবে ৫৬ কোটি ৭৬ লাখ ৮৩ হাজার ৯২০ টাকায় টাকা।

এর আগে ৩ নভেম্বর অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তুলাই এবং পুনর্ভবা নদীর নাব্য উন্নয়ন ও পুনরুদ্ধার’ প্রকল্পের জন্য ২৬৩ কোটি ২১ লাখ ৪২ হাজার ৪০১ টাকা ব্যয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়। এ কাজ ৯টি প্রতিষ্ঠানকে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার ওই বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব খান জানান, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন বিআইডব্লিউটিএ’র মাধ্যমে ‘পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তুলাই এবং পুনর্ভবা নদীর নাব্য উন্নয়ন ও পুনরুদ্ধার’ প্রকল্পের ড্রেজিং বাই কাটার সাকশন ড্রেজার নির্মাণ সংক্রান্ত ৭ টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হলে সবগুলো অনুমোদন দেওয়া হয়।

এরমধ্যে প্রকল্পের ড্রেজিং বাই কাটার সাকশন ড্রেজার (প্যাকেজ-৮, লট -১)-এর নির্মাণকাজ পেয়েছে এস এস রহমান ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড। এতে খরচ হবে ৩৭ কোটি ৮৫ লাখ ৬১ হাজার ৭৮০ টাকা। (প্যাকেজ-৮) লট -২ এর নির্মাণকাজ এস এস রহমান ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের কাছ থেকে ৩৮ কোটি ৬৬ লাখ ৫০ হাজার ৫৪০ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্যাকেজ-৮, লট-৩ এর পূর্ত কাজ যৌথভাবে অ্যাকোয়া মেরিন ড্রেজিং লিমিটেড এবং নবারুণ ট্রেডার্স লিমিটেডের কাছ থেকে ৩৮ কোটি ৭৪ লাখ ৬০ হাজার ৪৫০ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, প্রকল্পের ড্রেজিং বাই কাটার সাকশন ড্রেজার (প্যাকেজ-৯, লট-১)- এর পূর্ত কাজ যৌথভাবে এমবিইএল এবং কেসিসির কাছ থেকে ৩৬ কোটি ২৩ লাখ ৮৮ হাজার ৩২০ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্যাকেজ-৯’ লট-২ এর পূর্ত কাজ যৌথভাবে ওরিয়েন্ট ট্রেডিং অ্যান্ড বিল্ডার্স লিমিটেড এবং বি. জে জিও টেক্সটাইল লিমিটেডের কাছ থেকে ৩৬ কোটি ১৫ লাখ ৭৪ হাজার ৩৯০ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া প্যাকেজ-৯, লট-৩ এর পূর্ত কাজ কনফিডেন্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিডেটের কাছ থেকে ৩৭ কোটি ৭৭ লাখ ৫৫ হাজার ১১ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন এবং প্যাকেজ-৯, লট-৪- এর পূর্ত কাজ ওরিয়েন্ট ট্রেডিং অ্যান্ড বিল্ডার্স লিমিডেটের কাছ থেকে ৩৭ কোটি ৭৭ লাখ ৫১ হাজার ৯১০ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।