ঢাবিতে আলোকচিত্রে অগ্নিসন্ত্রাসের ভয়াবহতা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বর। একে একে রাখা ৩৮টি ছবির প্রদর্শনী। আগুন সন্ত্রাসের ভয়াবহতায় ঝলসে যাওয়া শরীর নিয়ে নিষ্পলক চোখে এসব ছবি দেখছেন রহমান মিয়া। সেদিন যে ভয়াবহতা রহমান মিয়া দেখেছেন, সে ভয়াবহতার চিত্র তুলে ধরতেই আয়োজন করা হয়েছে এ প্রদর্শনীর।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বরে ‘জ্বালাও-পোড়াও-অগ্নিসন্ত্রাস : মানুষ হত্যার রাজনীতি’ শীর্ষক এ আলোকচিত্র প্রদর্শনী শনিবার (১২ নভেম্বর) শুরু হয়। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মৌলবাদী অপশক্তির তাণ্ডব ও আগুন সন্ত্রাসের ভয়াবহতা তুলে ধরা এ প্রদর্শনী চলবে আজও।

আবারও আগুন সন্ত্রাসের মতো অপশক্তির উত্থান ঠেকাতে এবং এর বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের কঠোর অবস্থান সম্পর্কে জানান দিতে একক এ আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করেছেন ডাকসুর সাবেক সদস্য ও ছাত্রলীগের উপ-সমাজসেবা সম্পাদক তানভীর হাসান সৈকত।

জানা যায়, আগুন সন্ত্রাসের তাণ্ডব ও জনগণের দুর্ভোগ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও অপ্রকাশিত ৩৮টি আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে প্রদর্শনীতে। পরে এই সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন আয়োজক।

জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশে যেন অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি না হয় এবং শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ যেন বজায় থাকে- এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন শিক্ষার্থীরা। প্রদর্শনীতে আসা শিক্ষার্থীরা জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশকে আবারও অস্থিতিশীল না হতে দেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। দেশ অস্থিতিশীল হলে শিক্ষাব্যবস্থায় নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। তাই শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে আর অগ্নিসন্ত্রাসের রাজনীতি দেখতে চান না বলেও জানান তারা।

প্রদর্শনীতে ঘুরতে আসা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পালি ও বুড্ডিস্ট বিভাগের শিক্ষার্থী মো. শাহিন বলেন, ‘আগুন সন্ত্রাসের ভয়াবহতা আমি খবরের কাগজে দেখেছি। প্রদর্শনীতে এসে সাধারণ মানুষদের আগুনে পুড়িয়ে হত্যা ও জনদুর্ভোগ তৈরি করার বিষয়টি নতুন মাত্রায় দেখেছি। আমাদের মতো সাধারণ শিক্ষার্থীরা এ রকম ঘটনার পুনরাবৃত্তি দেখতে চায় না। এ ধরনের প্রদর্শনী সবাইকে সচেতন করে তুলবে।’

আয়োজনের সার্বিক বিষয়ে তানভীর হাসান সৈকত বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধী, মৌলবাদী, দেশ বিরোধী অপশক্তি ও তাদের দোসররা ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত যে জ্বালাও, পোড়াও, অগ্নিসন্ত্রাস, মানুষ হত্যার সহিংসতা চালিয়েছিল সাম্প্রতিক সময়ে সেই পুরোনো শক্তি আবারও মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে চাইছে। পূর্বের ন্যায় অগ্নিসন্ত্রাসের শঙ্কা থেকে ছাত্রসমাজকে নিয়ে জ্বালাও-পোড়াওবিরোধী কর্মসূচি হিসেবে দুদিনব্যাপী আগুন সন্ত্রাসের ভয়াবহতার আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করেছি।’