জৈন্তার লাল শাপলার বিল

পান, পানি, নারী—এই তিনে জৈন্তাপুরী। ঐতিহ্য আর সৌন্দর্যের গভীরতা বোঝাতে এই উপকথা প্রচলিত আছে সিলেটের জৈন্তাপুরে। পান-সুপারিতে আতিথেয়তা সিলেটের সংস্কৃতিরই একটি অংশ। পৌরাণিক কাহিনি অনুসারে, জৈন্তা রাজ্য শাসন করেছেন খাসিয়া রানি জৈন্তেশ্বরী দেবী। আর স্বচ্ছ জলের সারি নদীর মোহনীয় নীলের কথা কে না জানে। এই তিন উপকথার ফাঁকে নিজের উপস্থিতি জানান দেয় মেঘালয়ের পাহাড়ের কোলে থাকা জৈন্তার লাল শাপলার বিল।

বিলে ফুটে থাকা অজস্র লাল শাপলার রূপে মজে থাকার অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আর নৌকা দিয়ে বিলের মাঝখানে গেলে তো কথাই নেই। লতাপাতা-গুল্মে ভরা বিলের পানিতে ভেসে থাকা হাজার হাজার লাল শাপলার মাঝে নিজেকে স্বর্গরাজ্যের বাসিন্দা মনে হবে। প্রকৃতির আপন খেয়ালে গড়ে ওঠা সৌন্দর্য বুঝি এমনই হয়।

এই শাপলার রাজ্যেই ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে জৈন্তাপুরের কত জানা না জানা ইতিহাস। পরাক্রমশালী মোগল ও ইংরেজরা কখনো জৈন্তিয়া (পূর্বনাম) জয় করতে পারেননি। আজও সিলেট অঞ্চলে এ রাজ্য সম্পর্কে নানা গল্প শোনা যায়, যা রূপকথাকেও হার মানায়। জৈন্তিয়ার রাজা বিজয় সিংহের সমাধিস্থল রয়েছে এই লাল শাপলার বিলে। বিজয় সিংহকে এই হাওরে নৌকা ডুবিয়ে মারা হয়েছিল। সেই স্মৃতিতে নির্মিত ২০০ বছরের পুরোনো একটি মন্দিরও রয়েছে লাল শাপলার বিলে। লাগোয়া মুক্তিযুদ্ধের ৪ নম্বর সাব সেক্টর মেঘালয়ের মুক্তাপুর। কেবল সৌন্দর্য নয়, সিলেটের জৈন্তাপুরের লাল শাপলার বিল প্রাগৈতিহাসিক ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে স্মরণ করিয়ে দেয়।

লাল শাপলার বিলের অবস্থান বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তবর্তী মেঘালয়ের সবুজ পাহাড়ের পাদদেশ। ডিবি বিল, ইয়াম বিল, হরফকাট বিল, কেন্দ্রী বিলসহ ৯০০ একর এলাকাজুড়েই লাল শাপলার ‘রাজ্য’। পরিবেশকর্মী মো. খায়রুল ইসলাম জানান, লাল শাপলার বিল কেবল সৌন্দর্যের পরিচয়ই বহন করে না, জৈন্তিয়ার ইতিহাসের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়। সৌন্দর্যের সঙ্গে ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটের সম্মিলন এই চারটি বিলের গুরুত্ব বাড়িয়ে দিয়েছে। লাল শাপলার বিলে আসা পর্যটকেরা ঐতিহ্যের সঙ্গেও পরিচিত হতে পারছেন।

সিলেটের জৈন্তাপুর হয়ে জাফলং ঘুরতে যাওয়ার সময় পর্যটকেরা লাল শাপলার বিলে ঘুরে যান। অনেকে কেবল বিলের সৌন্দর্য দেখতে আসেন। পুরো দিনটা কাটিয়ে দেন এখানেই। ভোরবেলা দূর থেকে দেখলে মনে হবে প্রকৃতি লালগালিচা বিছিয়ে পর্যটকদের বরণ করতে হাতছানি দিয়ে ডাকছে। এ ডাক উপেক্ষা করা সাধ্য কার! প্রতিবছর অসংখ্য পরিযায়ী পাখি আসে এই হাওরে। তার মধ্যে বালিহাঁস, পাতি সরালি, পানকৌড়ি, নীলকণ্ঠী, সাদা বক, জল ময়ূরসহ অসংখ্য প্রজাতির পাখি দেখা যায়। তখন নতুন রুপ দেখা যায় শাপলার বিলের।

সিলেট থেকে সিলেট-তামাবিল সড়কপথে বাস, লেগুনা, সিএনজিচালিত অটোরিকশা অথবা প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাসে করে যাওয়া যাবে বিলে। জৈন্তাপুর উপজেলা সদর ছেড়ে তামাবিল স্থলবন্দরে যাওয়ার আগেই সড়কের ডান পাশে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ডিবির হাওর বিশেষ ক্যাম্পের সাইনবোর্ড দেখা যাবে। ক্যাম্পের পাশ দিয়ে কাঁচা রাস্তায় প্রায় পৌনে এক কিলোমিটার পথ পেরোলেই চোখে পড়বে শাপলার বিল। নৌকায় লাল শাপলার বিল ঘুরতে ভাড়া নেবে ৪০০ টাকা। লাল শাপলার বিলে ঘুরে যাওয়ার উপযুক্ত সময় এখনই।