বাংলাদেশের কন্টেইনার জাহাজ যুক্তরাজ্যে রফতানি

বাংলাদেশে তৈরি আরও একটি পণ্যবাহী কনটেইনার জাহাজ যুক্তরাজ্যে রফতানি করা হয়েছে। দেশীয় প্রতিষ্ঠান আনন্দ শিপইয়ার্ডের তৈরি করা ৬ হাজার ১০০ টন ধারণক্ষমতার জাহাজটি কিনেছে যুক্তরাজ্যের এনজিয়ান শিপিং কোম্পানি লিমিটেড। জাহাজটি রফতানি করে ১০০ কোটি টাকার বেশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় করেছে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টালে আনুষ্ঠানিকভাবে জাহাজটি হস্তান্তর করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, জাহাজটি ৩৬৪ ফুট লম্বা, ৫৪ ফুট প্রস্থ ও গভীরতা ২৭ ফুট। জাহাজটির ইঞ্জিনের ক্ষমতা ৪১৩০ হর্স পাওয়ার, গতি ১২.৫ নটিক্যাল মাইল ও ধারণক্ষমতা ৬১০০ টন। এটি কনটেইনার, ভারী স্টিলের কয়েল, খাদ্যশস্য, কাঠ, পাশাপাশি বিপজ্জনক মালামাল বহন করতে পারবে। সমুদ্রে সম্পূর্ণ বরফ আচ্ছাদিত অবস্থায় ৪ ফুট বরফের পানিতে চলতে পারবে জাহাজটি।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘বাংলাদেশ আজ একটি অত্যাধুনিক মাল্টিপারপাস কন্টেইনার শিপ যুক্তরাষ্ট্রে রফতানি করল। এটা আমাদের গর্বের দিন। এ মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ে বড় ভূমিকা রাখবে।’

তিনি বলেন, ‘জাহাজ নির্মাণ শিল্প একটি সম্ভাবনাময় রফতানি খাত। অত্যাধুনিক জাহাজ নির্মাণে আমাদের দক্ষতা রয়েছে। আমরা প্রত্যাশা করছি ভবিষ্যতে এ শিল্পটি তৈরি পোশাক শিল্পের কাছাকাছি রফতানি আয় অর্জন করতে পারবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সমুদ্রসীমা জয় করলেও আমরা সমুদ্রসম্পদকে কাজে লাগাতে পারিনি। এক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে আছি। সম্ভাবনাময় এ খাত এগিয়ে নেওয়া জরুরি। সরকার এটিকে গুরুত্ব দিয়ে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে। ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম, মাতারবাড়ী, মোংলা, পায়রাসহ সব বন্দরের সক্ষমতা বাড়ানো হচ্ছে।’

আনন্দ শিপইয়ার্ডের চেয়ারম্যান ড. আব্দুল্লাহ বারী বলেন, ‘আনন্দ শিপইয়ার্ড ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে সোনারগাঁওয়ের মেঘনাঘাটে আন্তর্জাতিক মানের জাহাজ নির্মাণ করছে। ইয়ার্ডের বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতা প্রায় ৩০ হাজার টন।’

তিনি বলেন, ‘জাহাজ নির্মাণে সর্বাধিক মানবশক্তির ব্যবহার হয়। আমাদের আছে ভালো আবহাওয়া, নদী, সমুদ্র উপকূল, বৃহৎ সমুদ্র এলাকা। তাই এই শিল্প বাংলাদেশের জন্য একটি আশীর্বাদ। জাহাজ রফতানি, জাহাজ পরিচালনা, ক্যাপ্টেন ও মেরিন ইঞ্জিনিয়ার, ক্রু সরবরাহ, দেশের শিপিং লাইনের জাহাজের মাধ্যমে সমুদ্র পরিবহন এবং দেশের উপকূলীয় এবং অভ্যন্তরীণ মালামাল ও যাত্রী পরিবহনের মাধ্যমে জাহাজ নির্মাণ শিল্প বাংলাদেশকে বছরে ১৫ হাজার কোটি টাকা জোগান দিয়ে থাকে। এই অঙ্ক ২০৪১ সালে ১০০ হাজার কোটি টাকায় পৌঁছাবে।’