ওল চাষে বিঘাপ্রতি মুনাফা লাখ টাকা

সাতক্ষীরায় বাণিজ্যিকভাবে ওল চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিঘাপ্রতি অল্প খরচে ১ লাখ টাকার বেশি লাভ হওয়ায় জেলার তালা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকরা ফসলটি উৎপাদনে ঝুঁকে পড়ছেন।

চাষিরা জানান, প্রতি বিঘা জমিতে ওল চাষে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা খরচ হলেও বিক্রির পর লাভ হয় লাখ টাকা পর্যন্ত।

উপজেলার নগরঘাটা ইউনিয়নের আলিপুর গ্রামের কৃষক কালাম হোসেন ও ফারুক হোসেন এবং মিঠাবাড়ি গ্রামের নজরুল ইসলাম বাণিজ্যিকভাবে ওল চাষ করে সফলতা অর্জন করেছেন। প্রতি বিঘা জমিতে ওল চাষ করে সব খরচ বাদ দিয়ে তারা আয় করছেন প্রায় লাখ টাকা। এতে তাদের সংসারের যেমন এসেছে সচ্ছলতা, পাশাপাশি ওল চাষের প্রতি আগ্রহী করে তুলছেন অন্য কৃষকদের।

মিঠাবাড়ি গ্রামের চাষি নজরুল ইসলাম বলেন, ‘চৈত্র মাসে জমিতে ওলের বীজ রোপণ করা হয়। ওলের পূর্ণতা পেতে ছয় মাসের মতো সময় লাগে। সেই হিসেবে আমরা ভাদ্র মাসে ওল উত্তোলন করে থাকি। একেকটি ওল ৮ থেকে ১০ কেজি পর্যন্ত হয়ে থাকে। ওল অত্যন্ত সুস্বাদু। এই কারণে বাজারে এই সবজির চাহিদাও অনেক বেশি।’

আলিপুর গ্রামের ফারুক হোসেন বলেন, ‘এক বিঘা জমিতে মোট ওল উৎপাদিত হয় ১১০ থেকে ১২০ মণ পর্যন্ত। সিজনের প্রথম দিকে এক মণ ওলের বাজার মূল্য ১ হাজার ২০০ টাকা। সেই হিসেবে এক বিঘা জমি থেকে উৎপাদিত ত্তলের বাজার মূল্য ১ লাখ ৩২ হাজার থেকে ১ লাখ ৪৪ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।’

একই গ্রামের কৃষক কালাম হোসেন বলেন, ‘ওল সাধারণত বাড়ির উঠানে, কুয়ার পাশে কিংবা পরিত্যক্ত যে কোনো স্থানে চাষ করা যায়। আমি আমার জমিতে বাণিজ্যিকভাবে ওল চাষ শুরু করি। তিন বছর ধরে ওল চাষ করছি। বর্তমানে এক বিঘা জমিতে ওল চাষ করেছি। ওল চাষে তেমন খরচ নেই। বীজ ও গোবর সার মিলিয়ে খরচ হয় সর্ব্বোচ্চ ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা।’

সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে উপ-পরিচালক মো. নূরুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতি বিঘা জমি থেকে ১ লাখ টাকারও বেশি মুনাফা করা যায় ওল চাষের মাধ্যমে। বর্তমানে সাতক্ষীরা জেলায় বাণিজ্যিকভাবে ওল চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। প্রতি বছর এই সবজির চাষ বেড়েই চলেছে।’