কম্বাইন্ড সাইকেলে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু

একটানা ১০ দিন বন্ধ থাকার পর আবার ডিজেলচালিত কম্বাইন্ড সাইকেলে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হয়েছে। নর্থওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি শুক্রবার থেকে সিরাজগঞ্জের কম্বাইন্ড সাইকেলে ডিজেল ব্যবহার করে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু করেছে। এই বিদ্যুতে লোডশেডিংয়ের মাত্রা কমে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

গত ১৯ জুলাই থেকে ডিজেলচালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতে বিদ্যুৎ উৎপাদন বন্ধ করে দেয় সরকার। বিদ্যুতের ঘাটতি মোকাবিলায় ১ ঘণ্টা করে লোডশেডিংয়ের ঘোষণা দেয়া হয়। এই অবস্থা চলতে থাকার মধ্যেই নর্থওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি গতকাল শুক্রবার থেকে তাদের ডিজেলচালিত একটি কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র আবার চালু করে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু করেছে।

নর্থওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানির মহাপরিচালক প্রকৌশল এএম খোরশেদ আলম বলেন, আমরা একটা কম্বাইন্ড সাইকেল চালাচ্ছি। আরেকটা প্লান্ট চালানো হচ্ছে না। অন্যদিকে, খুলনার অপর একটি কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র খুব তাড়াতাড়ি বিদ্যুৎ উৎপাদনে আসবে। এখানে সরকারের কম খরচ হবে। উপরন্তু প্রায় ৪৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। উত্তরাঞ্চলের গ্রাহকরা এই বিদ্যুতের মূল সুবিধাভোগী হলেও এই দুটি ইউনিটের বিদ্যুৎ প্রভাব ফেলবে সারাদেশে। এর ফলে বিদ্যুতের লোডশেডিং কমে আসবে। বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমলেই সব ধরনের ভোগান্তি থেকে গ্রাহকের মুক্তি মিলবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বিতরণ সংস্থা বলছে, এই বিদ্যুৎ উৎপাদনের ফলে আগামী দুই মাস একঘণ্টারও কম সময় লোডশেডিং হবে। এই অঞ্চলের মানুষ অক্টোবর থেকে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাবে।
বৈশ্বিক সংকটে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে লোডশেডিং দেয়া হয়। এখন লোডশেডিংয়ের সময় কমিয়ে আনতে কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ডিজেলের মাধ্যমে একটি ইউনিট চালু করেছে। খুব শিগগিরই খুলনা কম্বাইন্ড বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিও ডিজেলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরুর চেষ্টা চলছে।