পদ্মা সেতু কেন্দ্রিক পরিবহনে ৩০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ

শরীয়তপুরের পরিবহন ব্যবসায়ীরা উদ্বোধনী দিন থেকেই পদ্মা সেতু ব্যবহার করে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে নতুন বাস চলাচলের জন্য অন্তত ৩০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন।

শরীয়তপুর সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ ও পরিবহন ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা গেছে, ঢাকার খুব কাছের জেলা শরীয়তপুর। কিন্তু প্রায় ১৮ বছর ধরে ঢাকা-শরীয়তপুরে সরাসরি বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ জেলার যাত্রীদের নৌপথে মাওয়ায় গিয়ে বাসে ঢাকায় যেতে হয়। এ ছাড়া লঞ্চে করে শরীয়তপুরের বিভিন্ন স্থান থেকে ঢাকার সদরঘাটে যাতায়াত করেন অনেকে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন। এ তথ্য জানার পর শরীয়তপুর সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ ও কয়েকটি পরিবহন কোম্পানি ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের সঙ্গে সরাসরি বাস চালানোর উদ্যোগ নেয়। পরিবহন ব্যবসায়ীরা নতুন বাস প্রস্তুত করছেন। তাঁরা ভলভো, অশোক লেলেন্ড, টাটা কোম্পানির বাসের চেসিস কিনে বডি তৈরির কাজ করছেন। শরীয়তপুর ছাড়াও ঢাকা ও সাভারে বাসের বডি প্রস্তুত করা হচ্ছে।

শরীয়তপুর সুপার সার্ভিস প্রাইভেট কোম্পানি নামে কোম্পানি খুলেছে শরীয়তপুর সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ। তাঁরা নতুন ৪০টি বাস প্রস্তুত করছেন। এ ছাড়া পদ্মা ট্রাভেলস, শরীয়তপুর পরিবহন ও গ্লোরি পরিবহন ঢাকার সঙ্গে বাস সার্ভিস চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। প্রতিটি কোম্পানিই চাহিদা অনুযায়ী নতুন বাস প্রস্তুত করছে। এর মধ্যে পদ্মা ট্রাভেলস ও শরীয়তপুর পরিবহনের কয়েকটি বাস ঢাকা থেকে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া পর্যন্ত চলাচল শুরু করেছে। কোম্পানিগুলো প্রাথমিক পর্যায়ে ২৫০টি বাস প্রস্তুত করছে। একেকটিতে খরচ হচ্ছে ৭০ লাখ থেকে ১ কোটি ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত। পরিবহন খাতে অন্তত ৩০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন পরিবহন ব্যবসায়ীরা।

বাসগুলো শরীয়তপুর জেলা শহর ও বিভিন্ন উপজেলা সদর থেকে ঢাকার গুলিস্তান, মিরপুর, যাত্রাবাড়ী, কমলাপুর, সায়েদাবাদ, ভুলতা, গাউছিয়া ও নারায়ণগঞ্জে চলাচল করবে।

শরীয়তপুর সুপার সার্ভিস প্রাইভেট কোম্পানির পরিচালক আব্দুল খালেক পালোয়ান দুটি বাস দিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে (জেলার ভেতর) ব্যবসা করেন। ১০ বছর ধরে ব্যবসায় মন্দা যাচ্ছে। তিনি ৬০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে একটি বাস প্রস্তুত করছেন।

আব্দুল খালেক বলেন, ‘পদ্মা সেতু চালু হলে ব্যবসা বৃদ্ধি করব, এমন স্বপ্ন নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে লোকসান দিয়ে পরিবহন ব্যবসাটা টিকিয়ে রেখেছি। পদ্মা সেতু যেদিন খুলে দেওয়া হবে, সেদিন থেকেই আমরা বাসে করে যাত্রী নিয়ে ঢাকা যেতে চাই।’

যে ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে পদ্মা সেতুর পিলারযে ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে পদ্মা সেতুর পিলার
পদ্মা ট্রাভেলসের চেয়ারম্যান ও নড়িয়া পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘পদ্মা সেতু চালুর দিনেই আমরা বাস চালাতে চাই। পরীক্ষামূলক ১২টি বাস শিমুলিয়া পর্যন্ত চলছে। আমরা শুরুতে ৫০টি বাস যাত্রী সেবায় যুক্ত করব।’

শরীয়তপুর পরিবহনের পরিচালক আরশাদুজ্জামান এরশাদ বলেন, ‘আমাদের কোম্পানির এসি ও নন-এসি বাস চলবে। শরীয়তপুর ছাড়াও আমরা বরিশালের বিভিন্ন জেলায় বাস সার্ভিস দেব।’

জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসান বলেন, ‘পদ্মা সেতুর কারণে জিডিবি বৃদ্ধি পাবে ২ শতাংশের ওপরে। যার প্রভাব ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। পরিবহন খাতে শতকোটি টাকা বিনিয়োগ হয়েছে। আরও বিভিন্ন ব্যবসায় বিনিয়োগ হচ্ছে। নতুন করে বিনিয়োগকারী বেসরকারি উদ্যোক্তাদের আমরা সব ধরনের সহযোগিতা করব।’

পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য (মূল সেতু) ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার। দুই প্রান্তের উড়ালপথ ৩ দশমিক ৬৮ কিলোমিটার। সব মিলিয়ে সেতুটির দৈর্ঘ্য ৯ দশমিক ৮৩ কিলোমিটার। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলাকে সারা দেশের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত করবে পদ্মা সেতু।