মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অপেক্ষায় বঙ্গভ্যাক্স

করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশীয় প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেকের টিকা বঙ্গভ্যাক্সের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ বানরের ওপর সফলভাবে শেষ হয়েছে। এমনটি দাবি করেছে ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানটি।

বিকেলে বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদের (বিএমআরসি) নির্দেশনায় বানরের দেহে টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ফল সম্পর্কিত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। এখন বিএমআরসির নৈতিক অনুমতি পেলে চলতি মাসেই মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু করতে পারবে বলে আশা প্রতিষ্ঠানটির।

প্রতিষ্ঠানটির কোয়ালিটি অ্যান্ড রেগুলেটরি বিভাগের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘১ নভেম্বর দুপুরে প্রতিবেদনটি বিএমআরসিতে জমা দিয়েছি। একই সঙ্গে তাদের তৃতীয় চিঠির সব প্রশ্নের জবাবও দেয়া হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে বিএমআরসির ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পূর্বশর্তসহ সব পর্যবেক্ষণের যথাযথ উত্তর দেয়া শেষ হয়েছে। যদি তারা (বিএমআরসি) আর কালক্ষেপণ না করে অতি দ্রুত নৈতিক অনুমতি দিয়ে দেয়, তাহলে আমরা ঔষধ প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে নভেম্বরের মধ্যেই মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু করতে পারব বলে আশা করছি।’

মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, ‘বানর আর মানুষের মধ্যে জিনগত বেশ মিল থাকায় এবং বানরের ওপর পরীক্ষায় বঙ্গভ্যাক্সের টিকা সম্পূর্ণ নিরাপদ এবং শতভাগ কার্যকর প্রমাণিত হওয়ায় আমরা খুবই আশাবাদী যে টিকাটি মানবদেহেও সফলভাবে কাজ করবে।’

এদিকে বিষয়টি নিয়ে বিএমআরসির পরিচালক অধ্যাপক ডা. রুহুল আমিন বলেন, ‘গ্লোব বায়োটেক প্রাণীদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চালানোর প্রতিবেদন আজ (সোমবার) জমা দিয়েছে। এখন ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর অনুমোদনের বিষয়টি দেখবে। এক থেকে দুই সপ্তাহর মধ্যে অনুমোদন কমিটি বৈঠকে বসবে এবং তারা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবে।’

গত ১ আগস্ট থেকে বানরের ওপর বঙ্গভ্যাক্সের পরীক্ষামূলক পরীক্ষা (ট্রায়াল) শুরু করে গ্লোব বায়োটেক। কার্যক্রম শেষ হওয়ায় নতুন মাসের শুরুতেই বিস্তারিত প্রতিবেদন সংশ্লিষ্টদের কাছে হস্তান্তর করে তারা। সব পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে সরকারের অনুমোদন পেলে শিগগিরই বঙ্গভ্যাক্স টিকা বাজারে আসবে বলে আশা গ্লোব বায়োটেকের।