গ্রামে গ্রামে ‘স্বপ্ননগর’ : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ৫৩ হাজার গৃহহীনকে ঘর প্রদান

মুজিব জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় সারা দেশে ৫৩ হাজার ৩৪০টি গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ নতুন ঘর উপহার দেবে সরকার।

মুজিব জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় সারা দেশে ৫৩ হাজার ৩৪০টি গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ নতুন ঘর উপহার দেবে সরকার। আগামীকাল রবিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গৃহহীনদের মাঝে দুই শতক জমিসহ সেমিপাকা নতুন ঘর দেওয়ার কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন। জানা গেছে, ইতিমধ্যেই গৃহ নির্মাণের কাজ সমাপ্ত এবং জমির কবুলিয়ত ও নামজারিও সম্পন্ন হয়েছে। প্রতিটি ঘর নির্মাণে বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা। এতে রয়েছে দুটি কক্ষ, একটি টয়লেট, রান্নাঘর, কমনস্পেস ও একটি বারান্দা। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর- ফরিদপুর : জেলার ৯টি উপজেলায় ২ দফায় ৩ হাজার ৬০৭টি ঘর তৈরি করা হয়েছে। এর মধ্যে একই স্থানে নির্মিত হচ্ছে ২৫০ ঘর। আলফাডাঙ্গা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের চরকাতলাসুর গ্রামে ৩৩ একর জমির ওপর নির্মিত হচ্ছে নগরের সুবিধা নিয়ে ‘স্বপ্ননগর’ নামের একটি গ্রাম। এ প্রকল্পটিতে আরও থাকছে হাট-বাজার, স্কুল, মাদরাসা, মসজিদ, ঈদগা, মন্দির, কমিউনিটি ক্লিনিক, খেলার মাঠ, ইকোপার্কসহ নানা স্থাপনা।

কুমিল্লা : জেলায় দ্বিতীয় পর্যায়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাবে ১ হাজার ২৯১টি ভূমিহীন পরিবার। গতকাল কুমিল্লা জেলা প্রশাসন আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে স্থানীয় সরকার বিভাগ কুমিল্লার উপ-পরিচালক শওকত ওসমান এসব তথ্য জানান।

নওগাঁ : নওগাঁর ১১টি উপজেলায় ৫০২টি বসতহারা পরিবারকে সেমিপাকা এসব ঘর করে দেওয়া হচ্ছে। গতকাল সার্কিট হাউস মিলনায়তনে এসব ঘর হস্তান্তর উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক হারুন-অর-রশীদ এসব কথা জানান। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১০টি, বদলগাছী ৯টি, মহাদেবপুর ৭৬টি, আত্রাই ১০টি, রানীনগর ৩৩টি, মান্দা ২১টি, পত্নীতলা ১১৭টি, ধামইরহাটে ২০টি, পোরশা ৭১টি, নিয়ামতপুরে ৭৫টি, সাপাহারে ৬০টি গৃহহীন ও ভৃমিহীন পরিবার এসব ঘর পাবেন। এর আগে ২৩ জানুয়ারি জেলায় ১ হাজার ৫৬টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের মাঝে ঘর হস্তান্তর করা হয়।

গাজীপুর : দ্বিতীয় পর্যায়ে জেলার ৫টি উপজেলায় ২০২টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। গতকাল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভাওয়াল সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান গাজীপুরের জেলা প্রশাসক তরিকুল ইসলাম। বগুড়া : বগুড়ায় ৮৫৭টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার দ্বিতীয় পর্যায়ে জমির দলিলসহ নতুন বাড়ি পাবেন। সকালে বগুড়ার জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক তার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানিয়েছেন। জেলার ১২টি উপজেলার ৮৫৭টি পরিবারের জন্য বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে আদমদীঘিতে ২৫টি, সদরে ২২৩টি, ধুনটে ১২০টি, দুপচাঁচিয়ায় ১৫০টি, গাবতলীতে ২৫টি, কাহালুতে ৩০টি, নন্দীগ্রামে ৮০টি, সারিয়াকান্দিতে ৫১টি, শাজাহানপুরে ১৩টি, শেরপুরে ১৭টি, শিবগঞ্জে ৭৩টি এবং সোনাতলায় ৫০টি পরিবার জমির দলিলসহ নতুন ঘর পাচ্ছে।

ঝিনাইদহ : মুজিবর্ষ উপলক্ষে ঝিনাইদহের ৭০৫টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে জমিসহ ঘর। সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান জেলা প্রশাসক মজিবর রহমান। জেলা প্রশাসক জানান, প্রথম পর্যায়ে ৪০৭টি ঘর ভূমি ও গৃহহীনদের মাঝে হস্তান্তর করা হয়েছে এবং রবিবার দ্বিতীয় পর্যায়ে ১৮৬টি ঘর হস্তান্তর করা হবে।

ঠাকুরগাঁও : দ্বিতীয় ধাপে ঘর পাচ্ছেন জেলার ২ হাজার ২৯৬টি গৃহহীন পরিবার। গতকাল জেলা প্রশাসকের আয়োজনে জেলা প্রশাসক হলরুমে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। জেলা প্রশাসকের তথ্য মতে, সদর উপজেলায় ৩০০টি, পীরগঞ্জ উপজেলায় ৫০০টি, রানীশংকৈল উপজেলায় ২৯৬টি, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় ৮০০টি ও হরিপুর উপজেলায় ৪০০টি পরিবারকে ঘর দেওয়া হবে।

বাগেরহাট : জেলায় ৬৪৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে ৪৩৪টি ঘরের কাজ সমাপ্ত হয়েছে। ২২২টি ঘর নির্মাণ শেষে এ মাসেই হস্তান্তর করা হবে। জেলা প্রশাসক আজিজুল ইসলাম দুপুরে জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

নাটোর : ১ হাজার ৩৮১টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার ঘর পাবে। নাটোরে দ্বিতীয় পর্যায়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রম উদ্বোধন বিষয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জেলা প্রশাসক শাহরিয়াজ এই তথ্য জানান।

দিনাজপুর : রবিবার দিনাজপুরের ২ হাজার ৫১৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ঘর প্রদান করা হবে। গতকাল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিংয়ে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকী এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, জেলার ১৩টি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে দ্বিতীয় পর্যায়ে বরাদ্দকৃত ঘরে সংখ্যা-দিনাজপুর সদরে ২৫০টির মধ্যে ২১০টি, বিরলে ৩০টি, বোচাগঞ্জে ১০০টি, কাহারোলে ৯০টি, বীরগঞ্জে ৩৫০টির মধ্যে ২৬০টি, খানসামায় ৪৪৫টির মধ্যে ৩২৫টি, চিরিরবন্দরে ১৩০টি, পার্বতীপুরে ১০০টি, ফুলবাড়ীতে ২০০টি, বিরামপুরে ৩৫০টির মধ্যে ২৭০টি, নবাবগঞ্জে ৪৫০টির মধ্যে ৩২০টি, হাকিমপুরে ১১০টি ও ঘোড়াঘাটে ৫২০টির মধ্যে ৩৭০টি। কুড়িগ্রাম : দ্বিতীয় পর্যায়ের জমি ও গৃহ প্রদান উপলক্ষে কুড়িগ্রামে মতবিনিময় ও সংবাদ সম্মেলন গতকাল দুপুরে জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, রবিবার জেলার ১ হাজার ৭০টি পরিবারের মাঝে ঘরের চাবি ও দলিল হস্তান্তর করবেন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১০০টি, নাগেশ্বরীতে ১০টি, ভুরুঙ্গামারীতে ৫১টি, ফুলবাড়ীতে ১০৫টি, রাজারহাটে ৮০টি, উলিপুরে ১৫০টি, চিলমারীতে ৩০০টি, রৌমারীতে ২০১টি, চর রাজীবপুরে ৭৩টি পরিবারকে ঘর দেওয়া হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : জেলার আরও ২৬১৯টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে পাকা বাড়ি। এর আগে জেলায় প্রথম দফায় ১ হাজার ৩১৯টি ঘর প্রদান করা হয়।

ভালুকা (ময়মনসিংহ) : ভালুকায় দৃষ্টিনন্দন নতুন ঘর পাবে ৮০টি পরিবার। এর মধ্যে মল্লিকবাড়ি ইউনিয়নের ভায়াবহ আশ্রয়ণ কেন্দ্রে ১০টি, হবিরবাড়িতে ০১টি, কড়াইতলিতে ২০টি, গৌরীপুরে ২৯টি ও ভালুকায় ২০টি পরিবারকে ঘরের চাবি দেওয়া হবে।