পঞ্চগড়ে ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল পালনে ভাগ্য পরিবর্তন

পঞ্চগড় সদর উপজেলার ধাক্কামারা ইউপির আমতলি এলাকার জাকিউল ইসলাম গত তিন বছর আগে তিনি ব্ল্যাক বেঙ্গল উন্নত জাতের মাত্র ৬ টি ছাগল নিয়ে ক্ষুদ্র খামার গড়ে তুলেন। এখন তার খামারে ৪৮টি ছাগল রয়েছে।

জাকিউল ইসলাম বলেন, ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল পালন করে স্বাবলম্বী হয়েছি। দারিদ্র বিমোচনে ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে। একটি উন্নত জাতের দেশি ছাগলের খামার করার ভবিষৎ পরিকল্পনা রয়েছে।

অপরদিকে সদর ইউপির শুড়িভিঠা এলাকার মো. আব্দুল সামাদ ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল পালনে সফলতা দেখিয়েছেন। তিনি গত পাঁচ বছর ধরে মাত্র ৪ টি ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল দিয়ে খামার তৈরি করে বর্তমানে ৩৫ টি ছাগলের মালিক হয়েছেন।

বৃষ্পতিবার দুপুরে সদর উপজেলার প্রাণীসম্পদ দফতর ও ভেটেরিনারি হাসপাতালের মূল ফটকের সামনে ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল মেলার আয়োজন করা হয়। দিনব্যাপী মেলায় সদর উপজেলা থেকে ৭ জন ছাগল খামারি মেলার অংশগ্রহণ করেন।

ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল ও উন্নয়ন সম্প্রসারণ প্রকল্পে ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল খামারি মো. জাকিউল ইসলাম ২৪ ইঞ্চি টেলিভিশন পেয়ে প্রথন স্থান অধিকার করেছেন। মেলায় মো. আব্দুল সামাদ দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে তিনিও ২৪ ইঞ্চি টেলিভিশন পেয়েছেন।

এ সময় সামাজিক ও নিরাপদ দূরুত্ব বজায় রেখে ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প, প্রাণীসম্পদ অধিদফতরের ব্যবস্থাপনায় ও উপজেলা প্রাণীসম্পদ দফতর পঞ্চগড়ের আয়োজনে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণীর আয়োজন করা হয়।

ডা. শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণী সভায় প্রধান অতিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম, বিশেষ অতিথি ইউএনও আরিফ হোসেন, সদর ইউনিয়ন প্যানেল চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, গরিণা বাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান লেলিন প্রমুখ।
তথ্যসূত্র: ডেইলি বাংলাদেশ