স্টেশন দৃশ্যমান, চলছে রেলট্র্যাকের কাজ

মিরপুর ডিওএইচএসওর দিক থেকে ১৩৮ নম্বর পিয়ার ধরে একটু সামনে গেলেই চোখ আটকে যাবে দৃষ্টিনন্দন স্থাপনায়। বহুল প্রত্যাশিত দেশের প্রথম মেট্রোরেলের (লাইন-৬) উত্তরা দক্ষিণ স্টেশনের স্ট্রাকচার দাঁড়িয়ে গেছে। দ্রুতগতিতে চলছে এর নির্মাণকাজ। শুধু উত্তরা দক্ষিণ নয়, উত্তরা সেন্টার ও উত্তরা উত্তর স্টেশনের কাজও চলছে সমান গতিতে। একই সঙ্গে রেলট্র্যাক বসানোর কাজও চলছে। দিন-রাতে হাজার হাজার শ্রমিকের ব্যস্ত হাত আর অত্যাধুনিক সব যন্ত্রপাতি প্রাণান্তকর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে নির্ধারিত সময়ের আগে মেট্রোরেলকে ট্র্যাকে তুলতে।

মেট্রোরেল সূত্রে জানা গেছে, গত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশের প্রথম মেট্রোরেল লাইন-৬-এর কাজের সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৫৫ দশমিক ১৯ শতাংশ। এর ২০ দশমিক ১০ কিলোমিটার ভায়াডাক্টের মধ্যে দৃশ্যমান হয়েছে ১১ দশমিক ৭৮ কিলোমিটার। এর মধ্যে ডিপোতে ৮ কিলোমিটার এবং ভায়াডাক্টের ওপরে ৫ দশমিক ৬০ কিলোমিটার রেললাইন স্থাপন করা হয়েছে। পাশাপাশি জাপানের কারখানায় ছয়টি যাত্রীবাহী কোচ-সংবলিত পাঁচটি মেট্রো ট্রেন সেটের নির্মাণকাজও সম্পন্ন হয়েছে।

সূত্র জানায়, প্যাকেজ-৩ ও ৪-এর আওতায় উত্তরা নর্থ থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও ৯টি স্টেশন নির্মাণে পূর্তকাজের অগ্রগতি হয়েছে ৭৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ। এর মধ্যেই পরিষেবা স্থানান্তর, চেকবোরিং, টেস্ট পাইল, মূল পাইল, পাইল ক্যাপ, আই-গার্ডার, প্রিকাস্ট সেগমেন্ট কাস্টিং ও পিয়ার হেড নির্মাণ শেষ হয়েছে। উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার ও উত্তরা দক্ষিণ স্টেশনের ছাদ নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া ও শেওড়াপাড়া স্টেশনের ছাদ নির্মাণের কাজ চলছে। উত্তরা সেন্টার ও উত্তরা দক্ষিণ স্টেশনের প্ল্যাটফরম নির্মাণের কাজ চলমান। উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার ও উত্তরা দক্ষিণ স্টেশনের স্টিল স্ট্রাকচার এরেকশনের কাজ চলছে। উত্তরা উত্তর, সেন্টার, দক্ষিণ ও পল্লবী স্টেশনের মেকানিক্যাল, ইলেকট্রিক্যাল এবং পাল্মবিংয়ের (এমইডি) কাজ চলমান রয়েছে। এই প্যাকেজে ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্টের মধ্যে ১১ দশমিক ৩০ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট দৃশ্যমান হয়েছে।

আগারগাঁও থেকে কারওয়ান বাজার পর্যন্ত ৩ দশমিক ১৯৫ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও তিনটি স্টেশন নির্মাণকাজের সার্বিক অগ্রগতি ৫৪ দশমিক ১৪ শতাংশ। পরিষেবা স্থানান্তর, চেকবোরিং, ট্রায়াল ট্রেঞ্চ, টেস্ট পাইল, স্থায়ী বোরড পাইল, পিয়ার কলাম ও পিয়ার হেড সম্পন্ন হয়েছে। স্টেশনের পাইল ক্যাপ ও কলাম নির্মাণের কাজ চলছে। প্রিকাস্ট ভায়াডাক্ট সেগমেন্ট ও প্রিকাস্ট প্যারাপেট ওয়াল নির্মাণের কাজ চলছে। বিজয় সরণি, ফার্মগেট ও কারওয়ান বাজার স্টেশন তিনটির নির্মাণকাজ চলমান আছে। ৩ দশমিক ১৯৫ কিলোমিটার ভায়াডাক্টের মধ্যে ২৪০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে এবং মেট্রোরেল এক্সিবিশন ও ইনফরমেশন সেন্টারের পূর্তকাজের অগ্রগতি ৯৮ শতাংশ। প্যাকেজ-৬-এর আওতায় কারওয়ান বাজার থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ৪ দশমিক ৯২২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও চারটি স্টেশন নির্মাণে পূর্তকাজের সার্বিক অগ্রগতি ৫৫ দশমিক ৮ শতাংশ। এ অংশে পরিষেবা স্থানান্তর, চেকবোরিং, ট্রায়াল ট্রেঞ্চ, টেস্ট পাইল এবং সব স্থায়ী বোরড পাইল নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। মেইন লাইন ও স্টেশনের পাইল ক্যাপ, পিয়ার কলাম ও পিয়ার হেড নির্মাণের কাজ চলছে। প্রিকাস্ট ভায়াডাক্ট সেগমেন্ট ও প্রিকাস্ট প্যারাপেট ওয়াল নির্মাণের কাজ চলছে। শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয় ও মতিঝিল স্টেশনসমূহের নির্মাণকাজ চলমান। ৪ দশমিক ৯২২ কিলোমিটার ভায়াডাক্টের মধ্যে ২৪০ মিটার ভায়াডাক্ট দৃশ্যমান হয়েছে।

প্যাকেজ ৭-এর আওতায় ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড মেকানিক্যাল সিস্টেমের কাজের হালনাগাদ সার্বিক অগ্রগতি ৫৫ দশমিক ৬০ শতাংশ। ডিপোর অভ্যন্তরে ওভারহেড ক্যাটেনারি সিস্টেম মাস্ট স্থাপনের কাজ শেষ করে ১.০২ কিলোমিটার ক্যাটেনারি স্থাপন করা হয়েছে। ভায়াডাক্টের ওপর ৮ কিলোমিটার ওসিএস মাস্ট স্থাপন করা হয়েছে এবং ক্যাটেনারি স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। উত্তরা ডিপোতে রিসিভিং সাব-স্টেশন (আরএসএস) স্থাপন শেষে টেস্টিং সম্পন্ন হয়েছে। মতিঝিল রিসিভিং সাব-স্টেশন (আরএসএস) ভবন নির্মাণকাজ চলছে। উত্তরা ডিপোতে অক্সিলারি এবং ট্রাকশন সাব-স্টেশনের বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি স্থাপনের কাজ চলছে। ডেসকোর উত্তরা সাব-স্টেশন থেকে উত্তরা ডিপোর রিসিভিং সাব-স্টেশন (আরএসএস) পর্যন্ত ১৩২ কেভি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন আন্ডারগ্রাউন্ড ইলেকট্রিক্যাল ক্যাবল স্থাপনের কাজও শেষ হয়েছে। পিজিসিবির টঙ্গী সাব-স্টেশন থেকে উত্তরা ডিপোর রিসিভিং সাব-স্টেশন পর্যন্ত ১৩২ কেভি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন আন্ডারগ্রাউন্ড ইলেকট্রিক্যাল ক্যাবল স্থাপনের কাজ চলমান আছে। এ ছাড়া প্যাকেজ-৮-এর আওতায় রোলিং স্টক (রেল কোচ) ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সংগ্রহের অগ্রগতি ৩৫ দশমিক শতাংশ। ইতিমধ্যে পাঁচটি মেট্রো ট্রেন সেট নির্মাণের কাজ জাপানে শেষ হয়েছে এবং চলমান করোনা পরিস্থিতি উন্নতি হলে জাপানে প্রি-শিপমেন্ট টেস্ট সম্পন্ন করে মেট্রো ট্রেন সেটগুলো বাংলাদেশে নিয়ে আসা হবে।

সূত্র জানায়, এ প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে নির্মাণের জন্য নির্ধারিত উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে আগারগাঁও অংশের পূর্তকাজের অগ্রগতি ৭৮ দশমিক ৩৮ শতাংশ। দ্বিতীয় পর্যায়ে নির্মাণের জন্য নির্ধারিত আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের পূর্তকাজের অগ্রগতি ৪৯ দশমিক ৪৭ দশমিক এবং ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম, রোলিং স্টক ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ কাজের সমন্বিত অগ্রগতি ৪৩ দশমিক ৮২ শতাংশ। প্যাকেজ-১-এর আওতায় ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়নে অগ্রগতি ১০০ ভাগ। নির্ধারিত সময়ের ৯ মাস আগে ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি ডিপোর কাজ শেষ হয়েছে। এখান থেকে সরকারের সাশ্রয় হয়েছে ৭০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। এমআরটি লাইন-৬ মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ১ দশমিক ১৬ কিলোমিটার বর্ধিতকরণে সার্ভে শেষ হয়েছে।

তথ্যসূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন