কৃষি খাতে সরকারের যুগোপোযুগী সাফল্য

‘’ধরব মাছ করব চাষ, সুখে-শান্তিতে থাকবো ১২ মাস’’

এটাই কৃষিপ্রধান বাংলাদেশের ৮০ ভাগ বাঙালির বেঁচে থাকার মূলমন্ত্র। আর সরকারের নানামুখী পদক্ষেপ ও পরিকল্পনায় দেশের কৃষিতে বিস্ময়কর সাফল্য অর্জিত হয়েছে বিগত ৯ বছরে। কৃষিজমি কমতে থাকা, জনসংখ্যা বৃদ্ধি সহ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও বৈরী প্রকৃতিতেও খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের উদাহরণ।

বর্তমান সরকারের দুই মেয়াদে, চার দফায় সারের দাম কমানো হয়। দশ টাকার বিনিময় ব্যাংক একাউন্ট খোলা হয়, সেচের পানির ভর্তুকির টাকা সরাসরি কৃষকের একাউন্টে ট্রান্সফার করা হয় এবং সেই সঙ্গে ১ কোটি ৮২ লাখ কৃষকের মাঝে উপকরণ সহায়তা কার্ড বিতরণ করা হয়।

৫৮০ কিলোমিটার খাল পুনঃখনন, দুটি রাবার ড্যাম নির্মাণ, ৫৫৮ কিলোমিটার ভূ-গর্ভস্থ সেচনালা নির্মাণ, ১১ টি সৌরশক্তি চালিত সেচ পাম্প, ১১ দশমিক ২১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ, ৬১০ টি শক্তিচালিত পাম্প, ১১৮ টি গভীর নলকূপ ও ১৪৯ টি গভীর নলকূপ পুনর্বাসনের মাধ্যমে কৃষির অবকাঠামোগত উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে বর্তমান সরকার।

এছাড়া গত অর্থবছরে প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ৬টি জেলার কৃষকের জন্য ১১৭ কোটি টাকার পুনর্বাসন ও চলতি অর্থবছরে কৃষি খাতে ভর্তুকি বাবদ ৯ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করে সরকার।

কৃষি খাতের উন্নয়নে সরকারের সদিচ্ছা ও নিরলস কার্যক্রমের ফলে এককালের খাদ্যঘাটতির বাংলাদেশে বর্তমানে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করে বিদেশেও রপ্তানি করছে।