বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক মেরামতে একনেকে প্রকল্প অনুমোদন

বন্যা, দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামীণ সড়ক এবং ব্রিজ-কালভার্ট পুনর্বাসনে ২ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ‘বন্যা ও দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক অবকাঠামো পুনর্বাসন’ শীর্ষক এ প্রকল্পের আওতায় সারাদেশের ৩৩৮টি উপজেলায় ২০১৬, ২০১৭ সালের বন্যা দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক এবং ব্রিজ/কালভার্ট পুনর্বাসন করা হবে। সেইসাথে পল্লী সড়ক নেটওয়ার্ক সচল রাখতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের প্রকল্পগুলোর বিষয়ে অবহিত করেন। তিনি বলেন, গেলো বছর বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে গ্রামীণ অবকাঠামোর যে ক্ষতি হয়েছে সেগুলো আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরই অংশ হিসেবে এই প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

একনেক সভায় ১৭ হাজার ৯৮৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৫টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে ২টি সংশোধিত। মোট ব্যয়ের মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল (জিওবি) ১১ হাজার ৯৪০ কোটি টাকা, সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৫৩২ কোটি ৬৯ লাখ টাকা এবং প্রকল্প সহায়তা ধরা হয়েছে ৫ হাজার ৫২৩ কোটি টাকা।

সভায় ৫ হাজার ৮০৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা ব্যয়ে বিদ্যুত্ বিভাগের পূর্বাঞ্চলীয় গ্রিড নেটওয়ার্কের পরিবর্ধন এবং ক্ষমতাবর্ধন শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের পূর্বাঞ্চলের ৩৫ উপজেলায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত্ দিতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হবে।

সভায় ৯২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল স্থাপন প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রী জানান, ঢাকার মতোই জনবহুল এলাকা গাজীপুর। তাছাড়া শহীদ তাজউদ্দিন আহমদের স্মৃতি ধরে রাখতে তার নামে এই মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল তৈরি করার উদ্যোগ নেওয় হয়েছে। সভায় ১৫৮ কোটি ৩৯ লাখ টাকা ব্যয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর জন্য বিভিন্ন বিওপি’র পরিসীমা বরাবর কাঁটা তারের বেড়া নির্মাণ (১ম পর্যায়) প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সভায় ৮১৯ কোটি ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে পটুয়াখালী ১৩২০ মে.ও. সুপার থার্মাল পাওয়ার প্লান্ট এর জন্য ভূমি অধিগ্রহণের প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ৩১৪ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা পর্যায়ে প্রযুক্তি হস্তান্তরের জন্য কৃষক প্রশিক্ষণ (৩য় পর্যায়) প্রকল্প, ২৯৯ কোটি টাকা ব্যয়ে বছরব্যাপী ফল উত্পাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্প (১ম সংশোধিত), ১৪০ কোটি ৭৮ লাখ টাকা ব্যয়ে রংপুর অঞ্চলে ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়ন ও সেচ দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পসহ আরো কয়েকটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বন্যা, দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামীণ সড়ক এবং ব্রিজ-কালভার্ট পুনর্বাসনে ২ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ‘বন্যা ও দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক অবকাঠামো পুনর্বাসন’ শীর্ষক এ প্রকল্পের আওতায় সারাদেশের ৩৩৮টি উপজেলায় ২০১৬, ২০১৭ সালের বন্যা দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক এবং ব্রিজ/কালভার্ট পুনর্বাসন করা হবে। সেইসাথে পল্লী সড়ক নেটওয়ার্ক সচল রাখতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের প্রকল্পগুলোর বিষয়ে অবহিত করেন। তিনি বলেন, গেলো বছর বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে গ্রামীণ অবকাঠামোর যে ক্ষতি হয়েছে সেগুলো আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরই অংশ হিসেবে এই প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

একনেক সভায় ১৭ হাজার ৯৮৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৫টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে ২টি সংশোধিত। মোট ব্যয়ের মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল (জিওবি) ১১ হাজার ৯৪০ কোটি টাকা, সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৫৩২ কোটি ৬৯ লাখ টাকা এবং প্রকল্প সহায়তা ধরা হয়েছে ৫ হাজার ৫২৩ কোটি টাকা।

সভায় ৫ হাজার ৮০৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা ব্যয়ে বিদ্যুত্ বিভাগের পূর্বাঞ্চলীয় গ্রিড নেটওয়ার্কের পরিবর্ধন এবং ক্ষমতাবর্ধন শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের পূর্বাঞ্চলের ৩৫ উপজেলায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত্ দিতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হবে।

সভায় ৯২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল স্থাপন প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রী জানান, ঢাকার মতোই জনবহুল এলাকা গাজীপুর। তাছাড়া শহীদ তাজউদ্দিন আহমদের স্মৃতি ধরে রাখতে তার নামে এই মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল তৈরি করার উদ্যোগ নেওয় হয়েছে। সভায় ১৫৮ কোটি ৩৯ লাখ টাকা ব্যয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর জন্য বিভিন্ন বিওপি’র পরিসীমা বরাবর কাঁটা তারের বেড়া নির্মাণ (১ম পর্যায়) প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সভায় ৮১৯ কোটি ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে পটুয়াখালী ১৩২০ মে.ও. সুপার থার্মাল পাওয়ার প্লান্ট এর জন্য ভূমি অধিগ্রহণের প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ৩১৪ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা পর্যায়ে প্রযুক্তি হস্তান্তরের জন্য কৃষক প্রশিক্ষণ (৩য় পর্যায়) প্রকল্প, ২৯৯ কোটি টাকা ব্যয়ে বছরব্যাপী ফল উত্পাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন প্রকল্প (১ম সংশোধিত), ১৪০ কোটি ৭৮ লাখ টাকা ব্যয়ে রংপুর অঞ্চলে ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়ন ও সেচ দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পসহ আরো কয়েকটি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।