নড়াইলে ধানের মূল্য ভাল পাওয়ায় কৃষক খুশি

আমন ধান ঘরে তুলতে শুরু করেছেন নড়াইলের কৃষকরা। মাঠে মাঠে চলছে ধান কাটার উৎসব। কৃষকের আঙিনায় ধানের ছড়াছড়ি, গোলাভরা ধান এবং ধান থেকে চাল। তারপর নানা রকম পিঠা-পুলি বানানো আর খাওয়ার ধুম। ইতোমধ্যে হাট-বাজারে নতুন ধান উঠতে শুরু করেছে। ধান কেটে ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছে জেলার কৃষকরা। ধানের মূল্য ভাল পাওয়ায় খুশি কৃষক।
উজিরপুর গ্রামের উত্তম কুমার বিশ^াস বলেন, আমি দুই একর জমিতে রোপা আমনের চাষ করেছিলাম বাম্পার ফলন হয়েছে বাজারে ধানের মূল্যও ভাল পাচ্ছি।
দূর্গপুর গ্রামের কৃষক মাহাবুবুর রহমান বলেন, বর্তমানে হাটে ধানের দাম ভাল প্রতিমণ চিকন ধান বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৯শ’ থেকে এক হাজার টাকা আর মোটা সাড়ে ৮শ’ থেকে ৯শ’ টাকা। এতে আমাদের লাভ হচ্ছে ভাল।
রুপগঞ্জ বাজারের ধান ব্যবসায়ী উজ্জল কুন্ডু বলেন, বাজারে সবেমাত্র ধান উঠতে শুরু করেছে। বর্তমানে চিকন ব্রি ধান-৩৯ ও বীনা-৭ সাড়ে ৯শ’ থেকে হাজার টাকা এবং মোটা স্বর্ণা ৮শ’ থেকে ৯শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, এবছর জেলায় রোপা আমনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৩০ হাজার ৮শ’ত ৯৫ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে ৩৫ হাজার ২শ’ত ৮৫ হেক্টর জমিতে। ৪ হাজার ৩শ’ত ৯০ হেক্টর বেশি জমিতে ধানের চাষ হয়েছে।
কৃষি অধিদফতরের জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, এবছর জেলায় ৮৬ হাজার ৬শ’ ৮৬ মেট্টিক টন চালের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে আশা করছি লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ চিন্ময় রায় বলেন, ইতিমধ্যে জেলায় রোপা আমনের প্রায় ৭৫ ভাগ ধান কর্তন করা হয়েছে বাকী ধান দ্রুতই কর্তন সম্পন্ন হবে। আমনের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে ধানের আবাদ করা হয়েছে ফলন ভাল এবং মূল্য ভাল পাওয়ায় কৃষক খুশি। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কৃষকদের সার্বিক সহযোগিতা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।