সিটি করপোরেশন ময়মনসিংহ

রংপুর ও গাজীপুরে মহানগর পুলিশ আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

ময়মনসিংহ পৌর শহরকে সিটি করপোরেশন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ ছাড়া হাতিরঝিলে নতুন থানা স্থাপন, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ থানাকে উপজেলায় উন্নীত করার প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকার। গতকাল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি (নিকার) সভায় এই তিনটি প্রস্তাবের অনুমোদন দেওয়া হয়। এর বাইরে ভোলার চরফ্যাশনে দোলারহাট নামে নতুন থানা স্থাপন, রাজশাহী মহানগর এলাকায় আরও নতুন আটটি থানা স্থাপন এবং সিরাজগঞ্জ জেলার তারাশ উপজেলা সদরে পৌরসভা গঠনের প্রস্তাবও নিকার সভায় অনুমোদন পেয়েছে। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়ে বলেন, ময়মনসিংহ পৌরসভাকে সিটি করপোরেশনে রূপান্তরের জন্য প্রস্তাব তৈরির অনুশাসন দেওয়া হয়েছে। এর আগে দেশের অষ্টম বিভাগ হিসেবে যাত্রা শুরু করে ময়মনসিংহ। ২০১৫ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ বিভাগ গঠনের প্রস্তাব -অনুমোদন দেয় নিকার। তিনি বলেন, ময়মনসিংহ পৌরসভার সীমানা সম্প্রসারণের প্রস্তাব নিকারের বৈঠকে তোলা হলে সেটি অনুমোদন দেওয়া হয়নি। ময়মনসিংহ যেহেতু ইতিমধ্যে বিভাগীয় সদর দফতর হয়ে গেছে, তাই এটিকে সিটি করপোরেশন করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর ফলে দেশের দ্বাদশ সিটি করপোরেশন হিসেবে যাত্রা শুরু করবে ময়মনসিংহ। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, রাজধানীর হাতিরঝিলে নতুন থানা করার প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে নিকার।

ঢাকা মহানগর পুলিশের আওতাধীন হাতিরঝিল সমন্বিত উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্প এলাকায় হাতিরঝিল থানা স্থাপন হবে। এর কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ৭১টি পদ সৃজনের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে ঢাকা মহানগর এলাকায় থানার সংখ্যা দাঁড়াল ৫০টি। তিনি জানান, নিকার সভায় হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ থানাকে উপজেলায় উন্নীত করার প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে দেশে উপজেলা হলো ৪৯২টি। মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম আরও জানান, এর বাইরে ভোলার চরফ্যাশন থানাকে ভাগ করে দোলারহাট নামে নতুন থানা স্থাপন এবং এর কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নতুন ৪৩টি পদ সৃজনের প্রস্তাবও নিকারের সভায় অনুমোদন পেয়েছে। এ ছাড়া রাজশাহী মহানগর এলাকায় আরও নতুন আটটি থানা স্থাপন এবং সিরাজগঞ্জ জেলার তারাশ উপজেলা সদরে পৌরসভা গঠনের প্রস্তাবও অনুমোদন দিয়েছে নিকার। এ ছাড়া ফরিদুপরের বোয়ালমারী উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নকে ফরিদপুরের সদর উপজেলায় অন্তর্ভুক্তের প্রস্তাবও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আর ফরিদপুর পৌরসভা, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি পৌরসভা এবং নাটোরের বনপাড়া পৌরসভার সীমানা সম্প্রসারণের প্রস্তাব অনুমোদন পেয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরও জানান, কুমিল্লার মুরাদনগরে একটি পৌরসভা গঠনের প্রস্তাব নিকারের সভায় তোলা হলেও তা আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পুনরায় প্রস্তাব আনতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলায় দাসার নামে একটা থানা গঠনের প্রস্তাব সভায় উঠলেও সেটি আরও পর্যালোচনা করতে বলা হয়। দুই সিটির পুলিশ আইনের খসড়া অনুমোদন : গাজীপুর মহানগর পুলিশ আইন, ২০১৭ ও রংপুর মহানগর পুলিশ আইন, ২০১৭-এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। গতকাল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ দুটি আইনের খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলনকক্ষে নিয়মিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। এ ছাড়া সভায় বাংলাদেশের ডাক বিভাগের পাওয়া তিনটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হস্তান্তর করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কাছে ডিজিটাল সেবা পৌঁছে দেওয়ার স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশ ডাক বিভাগকে ১৮ সেপ্টেম্বর মালয়েশিয়ায় এশিয়ান-ওশেনিয়ান কম্পুটিং ইন্ডাস্ট্রি অর্গানাইজেশন (এএসওসিআইও) এএসওসিআইও-২০১৭ ডিজিটাল গভর্নমেন্ট অ্যাওয়ার্ড দেয়। আর ১২ সেপ্টেম্বর তাইওয়ানে ই-এশিয়া অ্যাওয়ার্ড প্রতিযোগিতায় এশিয়া প্যাসিফিক কাউন্সিল ফর ট্রেড ফ্যাসিলিটেশন অ্যান্ড ইলেকট্রনিক বিজনেস (এএফএসিটি) বাংলাদেশ ডাক বিভাগকে ই-কমার্স সেবাসংশ্লিষ্ট ‘পোস্টাল ক্যাশ কার্ড : ব্যাংকিং ফর আনব্যাংকড পিপল’-এর জন্য রানার্স-আপ হিসেবে সিলভার অ্যাওয়ার্ড দেয়। এ ছাড়া ৯ হাজার ৮৮৬টি ডাকঘরের মধ্যে সাড়ে ৮ হাজার ডাকঘরকে পোস্ট ই-সেন্টারে রূপান্তরের জন্য ১২ সেপ্টেম্বর তাইওয়ানে দ্য ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড টেকনোলজি অ্যালায়েন্স (ডব্লিইআইটিএসএ) বাংলাদেশের ডাক বিভাগকে ডিজিটাল অপরচুনিটি ক্যাটাগরিতে ডব্লিইআইটিএসএ মেরিট অ্যাওয়ার্ড দেয়। এদিকে মন্ত্রিসভা বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, সভায় অনির্ধারিত আলোচনায় সংবাদপত্রের ওয়েজবোর্ড নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে একজন প্রতিমন্ত্রী বলেন, সংবাদপত্রের ওয়েজবোর্ড দেওয়ার সময় হয়ে গেছে। আগামী বছরই বর্তমান ওয়েজবোর্ডের পাঁচ বছর পূর্ণ হবে। তাই এখনই নতুন ওয়েজবোর্ডের বিষয়টি চূড়ান্ত করা দরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ে কিছু বলেননি।