আইপিইউ সম্মেলনে বাংলাদেশের অভাবনীয় অর্জন

রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত ইন্টার পার্লামেন্টারী ইউনিয়ন-আইপিইউ’র ১৩৭ত ম সম্মেলনে বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে। সম্মেলনে এমার্জেন্সি আইটেম হিসেবে রোহিঙ্গা ইস্যু গ্রহণ, সাবের হোসেন চৌধুরীর রাশিয়ার সর্বোচ্চ পুরস্কার প্রাপ্তি, রাশিয়ার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক, আইপিইউ’র স্বাস্থ্য কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়া এবং আইপিইউ’র প্রেসিডেন্ট পদে বাংলাদেশ সমর্থিত প্রার্থীর জয়লাভ সম্মেলনে বাংলাদেশ ভিন্ন মর্যাদা পেয়েছে।

জাতিসংঘের চাইতে বয়সে পুরনো, সারা বিশ্বের ১৭৩টি দেশের ৬৫০ কোটি মানুষের প্রতিনিধিত্বশীল ইন্টার পার্লামেন্টারী ইউনিয়ন-আইপিইউ’র ১৩৭তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে। জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়ার নেতৃত্বে ২০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল অংশগ্রহণ করে। সম্মেলনে বাংলাদেশের অর্জনগুলো তুলে ধরার জন্য রোববার দুপুরে জাতীয় সংসদের পার্লামেন্ট মেম্বারস ক্লাবে এক প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রতিনিধি দলের প্রধান ও ডেপুটি স্পিকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়া ও আইডিইউ’র সদ্য সাবেক প্রেসিডেন্ট সাবের হোসেন চৌধুরী বক্তব্য রাখবেন।

আইপিইউ সম্মেলনে বাংলাদেশের সবচে’ বড়ো অর্জন ছিল ইমারজেন্সী আইটেম হিসেবে বাংলাদেশের প্রস্তাবিত রোহিঙ্গা ইস্যুটি ভোটাভুটিতে জয়লাভ করা। বাংলাদেশের প্রস্তাবিত ইস্যুটি ১০২৭ ভোট পেয়ে গৃহীত হয়। এর বিপরীতে মায়ানমার পায় মাত্র ৪৭ ভোট। আইপিইউ সাধারণ সভায় রোহিঙ্গা ইস্যুটি গৃহীত হবার বিষয়টি আন্তর্জাতিক মহল দেখছে খুবই গুরুত্বের সাথে। সর্ববৃহৎ সংসদীয় ফোরামে রোহিঙ্গা ইস্যুটি গৃহীত হবার বিষয়টি মিয়ানমারের বিরুদ্ধে বিশ^জনমতের প্রতিফলন বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। আইপিইউ সম্মেলনে ইমারজেন্সী আইটেম হিসেবে বাংলাদেশের কোন প্রস্তাবনা গৃহীত হবার ঘটনা এবারই প্রথম।

আইপিইউ সম্মেলন চলাকালে বাংলাদেশ সংসদীয় দলের সাথে রাশিয়ার সংসদীয় দলের এক দ্বি-পক্ষিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, এমপি। আইপিইউ’র স্বাস্থ্য কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন সিরাজগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. হাবিবে মিল্লাত।

সম্মেলনের শেষ দিনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বাংলাদেশ সমর্থিত প্রার্থী মেক্সিকো ফেডারেলের ডেপুটি গ্যাব্রিয়েলা কুয়েভাস ব্যারণ প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তিনি সাবের হোসেন চৌধুরীর স্থলাভিষিক্ত হলেন। সম্মেলন চলাকালে সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরীর রাশিয়ার সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদকে ভুষিত হন। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভন্ডামির পুতিন সাবের হোসেন চৌধুরীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন।