কলাপাড়ার উপকূলবাসী সবুজ বিপ্লবে

ঝড়-জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষা পেতে সমুদ্র উপকূলীয় পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় গ্রামগঞ্জের মানুষ বৃক্ষ রোপণ অভিযানে নেমেছেন। এর অংশ হিসেবে ব্যাক্তি উদ্যোগে প্রতিটি বাড়ির পরিত্যক্ত জমিতে হাজার হাজার ফলদ ও বনজ গাছের চারা রোপণ করা হচ্ছে।

এভাবে ১৪ ইউনিয়নের মানুষ সবুজ বিপ্লবে অংশ নিয়েছেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপকূলীয় এলাকায় ব্যক্তি উদ্যোগে হাজার হাজার মানুষ চারা গাছ রোপণ করছেন। পাশাপাশি এরই মধ্যে বেসরকারি সংস্থা ওয়ার্ল্ড কনসার্ন বাংলাদেশ বালিয়াতলী, মিঠাগঞ্জ, ডালবুগঞ্জ ও মহিপুর ইউনিয়নের ছয় কিলোমিটার সড়কের উভয় পাশে চার হাজার বনজ বৃক্ষ রোপণ করেছে। স্থানীয়দের ভাষ্য অনুযায়ী, একমাত্র গাছই পারে মানুষের জীবন বাঁচাতে। এই ধারণা থেকেই ব্যক্তি উদ্যোগে প্রতি গ্রামের বাড়ির উঠান ও পরিত্যক্ত জমিতে চারা গাছ রোপণ করা হচ্ছে। ধলাসার ইউনিয়নের চাপলী এলাকার লুত্ফুল হাসান রানা জানান, সামান্য ঝড় হলেই ঘর বাড়ি উড়ে যায়। ঝড়ো বাতাস থেকে রক্ষা পেতেই গ্রামবাসী বাড়ির চারপাশে দ্রুত বর্ধনশীল বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করছেন।
তিনি নিজেও শতাধিক বিভিন্ন প্রজাতির চারা গাছ রোপণ করেছেন। ওয়ার্ল্ড কনসার্ন বাংলাদেশ উপজেলা সমন্বয়কারী জেমস্ রাজিব বিশ্বাস জানান, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় টিয়ার ফান্ড, সিডর ফান্ড ও ইন্টারঅ্যাক্টর অর্থায়নে এসব ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে বৃক্ষ রোপণ করা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, এলাকার লোকজন এভাবে যদি চারা গাছ রোপণ করেন— তা হলে এক সময় এ সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় সবুজ বেষ্টনী তৈরি হয়ে যাবে। তিনি জানান, এ জন্য সরকারিভাবেও এ বছর উপজেলায় বিভিন্ন প্রজাতির ফলদ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা বিতরণ করা হয়েছে।