পরিবেশবান্ধব কারখানা ঋণে যুক্ত হলো পাট খাত

এখন থেকে রপ্তানিমুখি পাট খাতের কারখানাগুলোও পরিবেশবান্ধব শিল্পে রূপান্তরের জন্য কম সুদে বৈদেশিক মুদ্রায় ঋণ পাবে। আগে থেকেই বস্ত্র ও চামড়া খাত এ সুবিধা পাচ্ছে। মাত্র সাড়ে ৪ শতাংশ সুদে এ তহবিল থেকে ঋণ নিতে পারবেন কারখানা মালিকরা। কম সুদে ঋণ দিতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে গত বছরের জানুয়ারিতে ২০ কোটি ডলারের এ তহবিল গঠন করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

 

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে এ তহবিল গঠন করা হয়। তবে বিভিন্ন কারণে এ তহবিল থেকে কোনো ঋণ বিতরণ হয়নি। গ্রিন ট্রান্সফরমেশন ফান্ড নামের এ তহবিল থেকে এতোদিন শুধুমাত্র রপ্তানিমুখী বস্ত্র ও চামড়া খাতের কারখানা মালিকরা ঋণ নিতে পারতেন। মূলত বিদ্যমান কারখানা পরিবেশবান্ধব শিল্পে রুপান্তরের জন্য বিভিন্ন মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির জন্য এ ঋণ দেওয়া হয়। পাট খাতের রপ্তানিকারকদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এখন থেকে এ ঋণ সুবিধা নিতে পারবেন।

 

এর আগে গত আগস্টে এ তহবিলের সুদহার কমিয়ে একটি সার্কুলার জারি করা হয়। সে অনুযায়ী চুক্তিবদ্ধ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ৬ মাসের লাইবর (লন্ডন ইন্টার ব্যাংক অফার রেট) যোগ এক শতাংশ সুদে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে অর্থ পাবে। এতোদিন যা ছিল ২ শতাংশ। আর গ্রাহক পর্যায়ে ব্যাংকগুলো এর সঙ্গে এক থেকে সর্বোচ্চ ২ শতাংশ সুদ যোগ করে বিতরণ করবে। আগে যা আড়াই শতাংশ যোগ করার সুযোগ ছিল। বর্তমানে লাইবর রয়েছে এক দশমিক ৪৬ শতাংশ। এর ফলে গ্রাহক পর্যায়ে সর্বোচ্চ সুদহার দাঁড়াবে ৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ।