সেরা বিজ্ঞানীর এওয়ার্ড পেলেন মুক্তিযোদ্ধা ড. জিনাত নবী

গবেষণা, উদ্ভাবন এবং আবিস্কারে অসাধারণ অবদানের জন্যে সেরা বিজ্ঞানী হিসেবে ‘গ্লোবাল টেকনোলজি এক্সিলেন্স এওয়ার্ড’ পেলেন একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা ড. জিনাত নবী।
নিউজার্সিতে অবস্থানরত বিশ্বখ্যাত টয়লেট্রিজ সামগ্রির উৎপাদক কলগেট পালমোলিভ কোম্পানির পক্ষ থেকে গবেষণা কর্মে সর্বোচ্চ সম্মানসূচক এ এওয়ার্ড গত সপ্তাহে বর্ণাঢ্য এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি-আমেরিকান বিজ্ঞানী ড. জিনাত নবীকে প্রদান করা হয়।

কোম্পানির চীফ টেকনোলজি অফিসার ড. প্যাট ভারডিয়ামসহ এই কোম্পানির শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা এবং বিজ্ঞানীরাও ছিলেন অনুষ্ঠানে। জানা গেছে, এই কোম্পানির সিনিয়র সায়েন্টিস্ট এবং গবেষণা প্রকল্পের লিডার হিসেবে বছরের পর বছর যাবত স্কীন কেয়ার সামগ্রির পর্যায়ক্রমিক উন্নয়ন সাধন করেছেন।
টাঙ্গাইলের সন্তান ড. জিনাত নবীর এই উদ্ভাবনী প্রক্রিয়াকে ‘স্টেট অব দ্য আর্ট টেকনোলজি ফর ডেভেলপমেন্ট’ হিসেবেও অভিহিত করেছেন শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞানীরা।
এর আগে ড. জিনাত নবী টানা দু’বার বছরের সেরা ‘ইউ মেক এ্যা ডিফারেন্স’ এওয়ার্ড লাভেও সক্ষম হন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বায়ো কেমিস্ট্রিতে বিএস এবং এমএস করার পর ড. জিনাত নবী একই বিষয়ে পিএইচডি করেছেন জাপানের কিউসু ইউনিভার্সিটি থেকে। নিউইয়র্ক ইউনিভার্সিটিতে তিনি পোস্ট ডক্টরাল রিসার্চ করেন। এরপর নিউজার্সির প্রিন্সটন এবং রাটগার্স ইউনিভার্সিটিতে গবেষক-সহকারি অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত অবস্থায়ই কলগেট পালমোলিভ কোম্পানিতে চাকরির অফার পান। দীর্ঘ ২৭ বছর যাবত এই কোম্পানিতে চাকরি করছেন ড. জিনাত নবী। তার রয়েছে ৩০টি প্যাটেন্ট এবং বেশ কিছু গবেষণামূলক প্রকাশনা। কলগেট কোম্পানির বাইরেও রয়েছে তার সুনাম।
প্রসঙ্গত: উল্লেখ্য যে, ড. জিনাত নবীর স্বামী ড. নূরন্নবীও একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং একই কোম্পানিতে চাকরি করেছেন। ‘কলগেট টোটাল টুথপেস্ট টেকনোলজি’ আবিস্কারের জন্যে ১৯৮৯ সালে ড. নবীকেও ‘গ্লোবাল টেকনোলজি এক্সিলেন্স এওয়ার্ড’ প্রদান করা হয়। বর্তমানে তিনি অবসর জীবন-যাপন করলেও নিউজার্সির প্লেইন্সবরো সিটির কাউন্সিলম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন গত ৬ বছর যাবত।
এই মুক্তিযোদ্ধা-দম্পতি প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রায় সকল কর্মকান্ডেই সম্পৃক্ত থাকেন। ব্যক্তিগতভাবে ড. নূরন্নবী যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতির দায়িত্বও পালন করছেন।

পেশাগত সাফল্য প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে মার্কিন মুল্লুকে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করায় এই মুক্তিযোদ্ধা দম্পতিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ড. নূরন্নবী, যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের সভাপতি রাশেদ আহমেদ এবং সেক্রেটারি রেজাউল বারি, আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা লাবলু আনসার।