পার্চিং পদ্ধতি: ধান ক্ষেতে পোকা দমনে সুফল পাচ্ছেন কৃষক

শ্যামনগর উপজেলার কৃষকরা এখন পোকার আক্রমণ থেকে ক্ষেতের ফসল রক্ষায় পার্চিং পদ্ধতি ব্যবহারে সুফল পাচ্ছেন।

এ অঞ্চলের কৃষকরা বিভিন্ন জাতের ধান বছরে তিন মৌসুমে রোপণ করেন। ওই ধান উত্পাদনে বাধা হচ্ছে ক্ষতিকর পোকার আক্রমণ। পোকার আক্রমণ দমনে কৃষকরা ক্ষেতে বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক ব্যবহার করেন। এতে সার্বিক পরিবেশ মারাত্মক হুমকিতে পড়ে। কীটনাশক স্প্রের ফলে পানি, বাতাস ও ক্ষেতে বিভিন্ন প্রকার পরিবেশ বান্ধব পোকা এবং মাছ মারা যায়। তাছাড়া কৃষক মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়ে।

সে কারণে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আলী হোসেন পানি ও বাতাস ভালো রাখার লক্ষ্যে ধান ক্ষেতে ক্ষতিকর পোকা দমনের জন্য প্রাকৃতিক পদ্ধতি পার্চিং এর পরামর্শ দিচ্ছেন। এ পদ্ধতিতে ধান ক্ষেতে পোকা দমনের জন্য ক্ষেতে বাঁশের কঞ্চি অথবা গাছের ডাল পুঁতে পাখি বসার সুযোগ করে দেওয়া হয়। পাখিরা বাঁশের কঞ্চি অথবা গাছের ডালে বসে ধান ক্ষেতের ক্ষতিকর পোকা শিকার করে।

ফলে ক্ষেতে ক্ষতিকর পোকা দমন হয়। পার্চিং পদ্ধতি নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত। এছাড়া পরিবেশ থাকে দূষণমুক্ত। ধান ক্ষেতে ক্ষতিকর পোকা দমনের জন্য প্রাকৃতিক পদ্ধতি পার্চিং বেশ কয়েক বছর আগে থেকে চালু করলেও বর্তমানে কৃষকরা এর সুফল পেতে শুরু করেছেন। তার কারণ প্রথম প্রথম কৃষকরা এ প্রাকৃতিক পদ্ধতি গ্রহণ করতো না। যার ফলে কৃষকরা সুফল পেতো না। বর্তমানে কৃষি অফিস থেকে এ পদ্ধতি সম্পর্কে অবহিত করার ফলে কৃষকরা ক্ষতিকর পোকা দমনের প্রাকৃতিক পার্চিং পদ্ধতি ব্যবহার করছেন। ফলে কৃষকরা অল্প পরিশ্রমে এবং সামান্য খরচে নির্মল পরিবেশে ধানের অধিক ফলন পাচ্ছেন।

উপজেলার নুরনগর ইউনিয়নের রামজীবনপুর গ্রামের কৃষক আকবর ও আব্দুর রউফসহ অনেকেই জানান, পার্চিং পদ্ধতি স্থাপন করে ক্ষেতের কীটনাশক দমনে ভালো উপকার পাচ্ছি। তাছাড়া খরচও কম।