কাতারে বেড়েছে বাংলাদেশি সবজির চাহিদা

কাতারের বিরুদ্ধে সৌদি জোটের অবরোধের কারণে সব ধরনের কূটনৈতিক সম্পর্ক ও যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দিয়েছে সৌদি আরব, আবুধাবি, বাহরাইন ও মিশর।

গত ৫ জুলাই কাতারের স্থলসীমান্ত দিয়ে সৌদি আরব থেকে সব ধরনের শাক-সবজি ও অন্যান্য কাঁচামাল আমদানি বন্ধ রয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশি সবজি ও অন্যান্য পণ্যের চাহিদা বেড়ে চলেছে। আগের চেয়ে দিগুণ পরিমাণ সবজি আমদানি করছে কাতার প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা। ব্যাপক চাহিদা ও জোগান বাড়লেও দাম আগের মত রয়েছে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের।

১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশি সবজি আমদানির প্রতিষ্ঠান হীরা ফুড স্টাফের ব্যবস্থাপক নাজিম উদ্দীন জানান, আগে গড়ে প্রতিদিন তিন হাজার কেজি সবজি ও কাঁচামাল বাংলাদেশ থেকে কাতারে আসত। এখন এক মাস ধরে গড়ে পাঁচ হাজার কেজি আসছে। সপ্তাহের পাঁচ দিন কাতার এয়ারওয়েজ ও বাংলাদেশ বিমানে এসব সবজি আসছে। বিশেষ করে পটল, কাকরোল, বরবটি, করলা, চিচিঙ্গা, কলা লতি, লম্বা বেগুন, লেবু, আলু, কাঁচা মরিচ ইত্যাদির চাহিদা ও বিক্রি বেড়েছে।

আর বাংলাদেশি ক্রেতা রাজিব রাজ জানান, বাংলাদেশি সবজি স্বাদে ও মানে সেরা। এ কারণে ক্রেতারা বেশি আকৃষ্ট হচ্ছে বাংলাদেশি সবজির দিকে।

কেন্দ্রীয় বাজারে বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, বাংলাদেশ থেকে প্রতিদিন একেকজন ব্যবসায়ী ১০ টন করে পণ্য আনতে চান। কিন্তু ফ্লাইটে জায়গা সংকুলন না হওয়ায় তা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে পর্যাপ্ত চাহিদার পরও অনেকটাই কম আসছে বলে দাবি তাদের।