বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে ১০ ধরনের ভাতা বাড়ছে

আগামী অর্থবছরের বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে ১০ ধরনের ভাতার হার বাড়ছে। একই সঙ্গে সুবিধাভোগীর সংখ্যাও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

সূত্র জানায়, বর্তমান সরকারের শাসনামলে প্রতিটি বাজেটেই সামাজিক নিরাপত্তা খাত গুরুত্ব পেয়ে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ১ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে ১০ ধরনের ভাতা বাড়ানো হচ্ছে। এর মধ্যে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা নারীদের জন্য ভাতা, অসচ্ছল প্রতিবন্ধীদের জন্য ভাতা, দরিদ্র মা’র জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতা, কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মাদার সহায়তা ভাতা, প্রতিবন্ধীদের জন্য শিক্ষা উপবৃত্তি, হিজড়া জনগোষ্ঠীর ভাতা, বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর ভাতা বাড়ানো হচ্ছে।

সূত্র জানায়, এছাড়াও বীর মুক্তিযোদ্ধারা চলতি অর্থবছর থেকে দুটি উৎসব ভাতা পাবেন। ১০ হাজার টাকা করে বছরে মোট ২০ হাজার টাকার এই ভাতা পাবেন। আগামী অর্থবছর থেকে দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্তরাও বিশেষ আর্থিক সুবিধা পাবেন। এসব ভাতা ও উপকারভোগীর সংখ্যা বৃদ্ধির প্রস্তাব ইতোমধ্যে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয় ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২০১৭-১৮ অর্থবছর থেকে বয়স্ক ভাতাপ্রাপ্তরা জনপ্রতি মাসিক ৫০০ টাকার পরিবর্তে ৬০০ টাকা করে পাবেন। একই সঙ্গে উপকারভোগীর সংখ্যা বর্তমান ৩১ লাখ ৫০ হাজার থেকে ৩৫ লাখে উন্নীত করা হচ্ছে।

বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা নারীদের ভাতা ৫০০ টাকার পরিবর্তে ৬০০ টাকা করা হচ্ছে। আগামী অর্থবছর থেকে তারা এ হারে ভাতা পাবেন। আর উপকারভোগীর সংখ্যা ১১ লাখ ৫০ হাজার থেকে ১০ ভাগ বাড়িয়ে ১২ লাখ ৬৫ হাজার করা হচ্ছে। আগামী অর্থবছর থেকে অসচ্ছল প্রতিবন্ধীরা ৬০০ টাকার পরিবর্তে ৭০০ টাকা করে মাসিক ভাতা পাবেন। উপকারভোগীর সংখ্যা সাড়ে ৭ লাখ থেকে বাড়িয়ে করা হচ্ছে আট লাখ ২৫ হাজার।

আগামী অর্থবছর থেকে হিজড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কার্যক্রমের অধীনে বিভিন্ন স্তরের প্রদেয় বিশেষভাতা/বয়স্কভাতা ৬০০ টাকার পরিবর্তে ৭০০ টাকা করা হয়েছে। উপকারভোগীর সংখ্যা ছয় হাজার ৯৭০ জন থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে সাত হাজার ৫৫০ জন।

বর্তমানে বেদে ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কার্যক্রমের অধীনে উপকারভোগীরা মাসে ৬০০ টাকা করে ভাতা পান। আগামী অর্থবছর থেকে তারা ৭০০ টাকা করে ভাতা পাবেন। এজন্য সরকারকে এ খাতের বরাদ্দ ছয় কোটি ৩২ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০ কোটি ৬৮ লাখ উন্নীত করা হচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

আগামী ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা উপবৃত্তির হার প্রাথমিক স্তরে ৪০০ টাকা, মাধ্যমিক স্তরে ৬০০ টাকা, উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ৭০০ টাকা এবং উচ্চতর স্তরে ১২০০ টাকা অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। তবে উপকারভোগীর সংখ্যা শুধু প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে ৫ হাজার করে ১০ হাজার বৃদ্ধি করে ৭০ হাজারের স্থলে ৮০ হাজার করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইজড ও জন্মগত হৃদরোগীদের আর্থিক সহায়তা কর্মসূচীর অধীনে বরাদ্দ ৩০ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ কোটি টাকা করা হয়েছে এবং প্রতিজন সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা সহায়তা পাবেন।

চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নেও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ খাতে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচীর অধীনে ১৫ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে খাদ্য সহায়তার পরিবর্তে উপকারভোগীদের জনপ্রতি ৫ হাজার টাকা করে দেয়া হবে।

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা না বাড়লেও তারা বছরে দুটি উৎসব ভাতা পাবেন। বর্তমানে মুক্তিযোদ্ধারা মাসে ১০ হাজার করে সম্মানী ভাতা পাচ্ছেন। আগামী অর্থবছরে এই হার অপরিবর্তিত থাকছে। কিন্তু তারা এখন থেকে ১০ হাজার টাকা করে ২০ হাজার টাকা দুটি উৎসব ভাতা পাবেন। এটি চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছর থেকেই কার্যকর করা হয়েছে।