বৈমানিক হেলালকে বিশ্ব পাইলট অ্যাসোসিয়েশনের সম্মাননা

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ক্যাপ্টেন সৈয়দ মাহবুব হেলালকে বিশ্ব বৈমানিকদের সর্বোচ্চ খেতাব ‘আজীবন সম্মাননা’ দিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব এয়ারলাইন্স পাইলটস অ্যাসোসিয়েশন (ইফাআলপা)। ৬ মে কানাডাতে ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন (আইকাও) ও ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব এয়ারলাইন্স পাইলটস অ্যাসোসিয়েশন (ইফাআলপা)’র সদর দফতরে বিশ্ব বৈমানিকদের ৭২তম বার্ষিক সম্মেলনে এক আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

আইকাও ও ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) কর্মকর্তাসহ ৫৫০ জন প্রতিনিধির উপস্থিতিতে বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন সৈয়দ মাহবুব হেলালকে বিশ্ব বৈমানিকদের এ সর্বোচ্চ খেতাব ‘আজীবন সম্মাননা’ প্রদান করা হয়।
বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ)শাকিল মেরাজ বলেন, ‘এই সম্মাননা প্রতি পাঁচ বছর পরপর জুরি বোর্ডে যাচাই-বাছাই করে বিশ্ব বৈমানিকদের মধ্য থেকে মাত্র একজনকে প্রদান করা হয়। এই প্রথমবারের মতো এভিয়েশন ইতিহাসে এশিয়া মহাদেশের কোনও বৈমানিক এ সম্মাননা পেলেন। এটি বিমান ও বাংলাদেশের জন্য একটি পরম প্রাপ্তি। বৈমানিকদের পেশাগত উন্নয়নে অবদানের জন্য ক্যাপ্টেন হেলালকে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, ক্যাপ্টেন হেলাল ১৯৮৪ সালে বৈমানিক হিসেবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে যোগদান করেন। তিনি পরপর তিনবার বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স পাইলটস অ্যাসোসিয়েশন (বাপা)-এর সাধারণ সম্পাদক ও চারবার সভাপতি নির্বাচিত হন। তিনি ২০১৪ সালে কমান্ডার ডিসি-১০ হিসেবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

২০০৮ সালে বিমানে নতুন প্রজন্মের উড়োজাহাজ ক্রয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণে হেলাল অন্যতম প্রধান ভূমিকা পালন করেন।