সিলেটের ৩০ উপজেলার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের উদ্যোগ

সিলেটে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ হলেও চাহিদার তুলনায় কম। তাই এবার নিরবচ্ছিন্ন সড়ক নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে ‘সিলেট বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ গ্রামীণ অবকাঠামোর’ উন্নয়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সিলেটসহ ৪ জেলার ৩০ উপজেলার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন করা হবে। এতে ৪ হাজার ৬৮৫ মিটার গ্রামীণ, ইউনিয়ন ও উপজেলা সড়কে ব্রিজ ও কালভার্ট নির্মাণ করা হবে। এতে ব্যয় হবে ১ হাজার ২৩৬ কোটি টাকা। আগামী ২০২২ সালের জুনের মধ্যে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর। এ ব্যাপারে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় থেকে একটি প্রকল্প প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে পরিকল্পনা কমিশনে। সব প্রত্রিয়া শেষ করে খুব শিগগিরই একনেক সভায় অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে বলে সূত্র জানায়।
সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র মতে, স্থানীয় সরকার বিভাগে ৩১ জানুয়ারি প্রকল্প যাচাই কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী শ্যামা প্রসাদ অধিকারী জানান, সিলেটে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ হচ্ছে। তার পরও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এমপিদের চাহিদার তুলনায় সম্ভব হচ্ছে না। এ ছাড়া সারাদেশে পল্লী পাকাকরণ সড়কের হার ৩৩ শতাংশ। কিন্তু সিলেটে রয়েছে মাত্র ২৮ শতাংশ। এ প্রেক্ষাপটেই প্রকল্পটি প্রণয়ন করা হয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় সিলেটের ৩০ উপজেলার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন করা হবে। এর মধ্যে সিলেট সদর, দক্ষিণ সুরমা, বালাগঞ্জ, ওসমানীনগর, বিশ্বনাথ, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, জকিগঞ্জ, কোম্পানীগঞ্জ, কানাইঘাট, জৈন্তাপুর, গোয়াইনগঞ্জ ও ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা রয়েছে। মৌলভীবাজার জেলা সদর, রাজনগর, কুলাউড়া, জুড়ী, কমলগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল ও বড়লেখা উপজেলা রয়েছে। হবিগঞ্জ জেলা সদর, নবীগঞ্জ, বাহুবল, চুনারুঘাট, মাধবপুর, লাখাই, বানিয়াচং ও আজমিরীগঞ্জ উপজেলা রয়েছে। এ ছাড়া সুনামগঞ্জ জেলা সদর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, বিশ্বনাথপুর, দিরাই, শাল্লা, ধর্মপাশা, তাহিরপুর, ছাতক, দোয়ারাবাজার, জামালগঞ্জ ও জগন্নাথপুর উপজেলা এ প্রকল্পের আওতায় রয়েছে।
এতে ৪ হাজারেরও বেশি গ্রামীণ, ইউনিয়ন ও উপজেলা সড়কে ব্রিজ ও কালভার্ট নির্মাণ করা হবে। এর মধ্যে গ্রামীণ সড়কে ব্রিজ নির্মাণ করা হবে ১ হাজার ৪৩৪ মিটার, ইউনিয়নে ১ হাজার ১৮০ মিটার ও উপজেলা সড়কে ৩৩২ মিটার ব্রিজ নির্মাণ করা হবে। আর কালভার্ট নির্মাণ করা হবে ১ হাজার ২৩৯ মিটার। আর সড়ক মেরামত ও পুনর্বাসন করা হবে ৩৬৪ কিলোমিটার। মাটির কাজও করা হবে প্রায় দেড়শ’ কিলোমিটার। উন্নয়ন করা হবে ২৫টি হাট-বাজার এবং ৭টি ঘাট। এ ছাড়া আনুষঙ্গিক আরো কিছু কাজ রয়েছে। এসব কাজে ব্যয় করা হবে ১ হাজার ২৩৬ কোটি টাকা, যা আগামী ২০২২ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়ন করা হবে।