আবহাওয়ার অ্যাপ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

বায়ুর তাপমাত্রা, আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে, নাকি বৃষ্টি হবে, সাইক্লোন-ঘূর্ণিঝড়ের সতর্কতা সংকেত, কৃষি আবহাওয়া, বন্যার ধারা, শৈত্যপ্রবাহ—এসব তথ্য জানতে চায় সবাই। ঘাঁটাঘাঁটি করলে হয়তো মেলেও।

সহজে হাতের মুঠোয় অতিপ্রয়োজনীয় এসব তথ্য সরবরাহ করতে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপস) চালু হলো দেশে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর ‘বিএমডি ওয়েদার অ্যাপ’-এর মাধ্যমে অধিদপ্তরের দৈনিক সব তথ্যসেবা মোবাইল প্ল্যাটফর্মে নিয়ে এলো। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর তেজগাঁও কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে অ্যাপসটির উদ্বোধন করেন। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের (বিএমডি) তৈরি এই অ্যাপস গুগল প্লে স্টোর থেকে স্মার্টফোন গ্রাহকরা ডাউনলোড করতে পারবে।

উদ্বোধনের পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফ করেন। তিনি বলেন, দেশের বিভিন্ন অংশে স্বয়ংক্রিয় আবহাওয়া মনিটরিং সেন্টার থেকে সর্বশেষ আবহাওয়ার তথ্য এই অ্যাপ্লিকেশনে প্রদর্শিত হবে। এতে বায়ুর তাপমাত্রা, বায়ুর চাপ, বায়ুপ্রবাহের দিক, কাছাকাছি সময়ে কী পরিমাণ বৃষ্টি হতে পারে এ ব্যাপারে সর্বশেষ তথ্য এই অ্যাপস ব্যবহার করে জানা যাবে। পাশাপাশি এই অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে সাইক্লোনের সতর্কতা সংকেত, ভূমিকম্পের মাত্রা, কৃষি আবহাওয়া, বন্যার ধারা, শৈত্যপ্রবাহ এবং খরাসংশ্লিষ্ট তথ্য সহজেই জানা যাবে।

যথাসময়ে এবং অব্যাহত আবহাওয়ার পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ সংকেত প্রদানে, নদী ও আকাশপথে চলাচলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জনগণের স্বার্থে এই অ্যাপ্লিকেশন চালু করা হয়েছে। কালবৈশাখী, সাইক্লোন, টর্নেডো, অতি বৃষ্টিপাত, বন্যা এবং এ ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগে ধাপে ধাপে জীবন ও সম্পদহানি কমিয়ে আনার লক্ষ্যে এই অ্যাপ্লিকেশন চালু করা হয়েছে।

বিএমডি কর্মকর্তারা বলেন, সর্বোপরি আবহাওয়াসংক্রান্ত পূর্বাভাস এবং সতর্কতা সংকেত ব্যবস্থা ঝড়ের গতি-প্রকৃতি (অবস্থান, দিক ও তীব্রতা) নির্ধারণের সক্ষমতা আরো জোরদার করা হবে এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে জীবন ও সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

এই মোবাইল অ্যাপস সেবা প্রদানের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ নির্মাণের অঙ্গীকার বাস্তবায়নে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল।

এই অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড প্রসঙ্গে বিএমডি কর্মকর্তারা বলেন, এ জন্য স্মার্ট মোবাইল ফোনসেটে ইন্টারনেট সংযোগ লাগবে এবং যেকোনো ইউজারকে প্রথমে গুগল প্লে স্টোরে যেতে হবে। পরে সার্চ আইকন এবং বিএমডি ওয়েদার অ্যাপস টাইপ করে অ্যাপসটি ইনস্টল করা যাবে। এই অ্যাপস ব্যবহারের মাধ্যমে স্মার্টফোন দেশের ৪২টি স্থানে বসানো স্বয়ংক্রিয় আবহাওয়া সরঞ্জামের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত হবে। পাশাপাশি এই আবহাওয়া তথ্যসেবা পর্যায়ক্রমে ২০২১ সাল নাগাদ কৃষক পর্যায়সহ সর্বস্তরের জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে সব উপজেলা সদরে এ সেবা নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা বাড়ি, অফিস, গাড়ি, লঞ্চ, স্টিমার, বিমান এবং ট্রেনে বিএমডি চালুর মাধ্যমে সর্বশেষ আবহাওয়া তথ্য পাবে। পাশাপাশি যেকোনো সময় স্মার্টফোন স্ক্রিনে ডপলার রাডার এবং আবহাওয়া স্যাটেলাইট তথ্য দেখা যাবে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোলস বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়কারী আবুল কালাম আজাদ, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কাজী হাবিবুল আউয়াল এবং বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগম এ সময় উপস্থিত ছিলেন। সূত্র : বাসস।