জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধন পাচ্ছে ইলিশ

বাংলাদেশে জাতীয় মাছ ইলিশ ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে নিবন্ধন পাচ্ছে। রোববার মৎস্য অধিদফতর ইলিশের জিআই নিবন্ধনের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছে। শিল্প মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে সিনিয়র শিল্প সচিব মোঃ মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়ার কাছে এ আবেদনপত্র জমা দেন মৎস্য অধিদফতের মহাপরিচালক ড. সৈয়দ আরিফ আজাদ।
আবেদন গ্রহণ করে সিনিয়র শিল্প সচিব বলেন, বর্তমান সরকার জিআই পণ্যসহ মেধাসম্পদের মালিকানা সুরক্ষায় ব্যাপক উদ্যোগ নিয়েছে। জিআই পণ্যের মালিকানা স্বত্ব ও নিবন্ধনের লক্ষ্যে বিশ্ব মেধাসম্পদ সংস্থার (ডব্লিউআইপিও) সহায়তায় এরই মধ্যে ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) আইন ও বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে দেশের অন্যান্য জিআই পণ্যকেও নিবন্ধন দেয়া হবে বলে তিনি জানান।
এ সময় শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ আজিজুল ইসলাম, পেটেন্ট ডিজাইন ও ট্রেড মার্কস অধিদফতরের (ডিপিডিটি) রেজিস্ট্রার মোঃ সানোয়ার হোসেনসহ শিল্প মন্ত্রণালয় এবং মৎস্য অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সৈয়দ আফির আজাদ স্বাক্ষরিত এ আবেদনে বলা হয়, জাতীয় মাছ ইলিশ আবহমানকাল থেকে বাংলাদেশের ঐতিহ্য ও কৃষ্টির সঙ্গে জড়িয়ে আছে। ইলিশ বলতে বাংলাদেশের পদ্মা ও মেঘনা অববাহিকায় প্রধান প্রধান নদী এবং উপকূলীয় ও সামুদ্রিক জলাসীমায় পরিভ্রমণশীল মাছ। বর্তমানে দেশের শতাধিক নদীতে ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশের ৪০টি জেলার ১৫৪টি উপজেলার দেড় হাজার ইউনিয়নের সাড়ে ৪ লাখ জেলে ইলিশ মাছ ধরার কাজে নিয়োজিত। ইলিশের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ২০ থেকে ২৫ লাখ লোকের জীবন-জীবিকা নির্ভরশীল। দেশে মোট মাছ উৎপাদনের মধ্যে ইলিশের অবদান ১১ শতাংশ। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ইলিশের উৎপাদন ৩ লাখ ৮৭ হাজার টন। ওই বছর ইলিশের মোট বাজার মূল্য ছিল ১৫ হাজার ৪৮০ কোটি টাকা।