পরিশ্রমী বাঙালি পিছিয়ে থাকতে জানে না

বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ড. জিম ইয়ং কিম বলেছেন, বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বিশ্বব্যাংক সবসময় সহযোগিতা করবে। এ দেশের গ্রামীণ মানুষ কঠোর পরিশ্রমী এবং অতিথিপরায়ণ। তারা পিছিয়ে থাকতে জানে না। বাংলাদেশে এসে তিনি অভিভূত। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে থাকা বাঙালিদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল নির্মাণ ও শিক্ষার উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক সহয়তা অব্যাহত রাখবে। মঙ্গলবার বরিশালের বাবুগঞ্জের দক্ষিণ রাকুদিয়া গ্রাম ও উজিরপুরের ভরসাকাঠি গ্রামের একাধিক উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শনকালে তিনি এসব কথা বলেন। বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্টের এ সফরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বাবুগঞ্জ ও উজিরপুরের সংশ্লিষ্ট এলাকায় নজিরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলে।
মঙ্গলবার সকালে বাবুগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রাকুদিয়া গ্রামে সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ) পরিচালিত দক্ষিণ রাকুদিয়া গ্রাম সমিতির সুবিধাভোগী নারী সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় এবং বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন শেষে বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট ড. জিম ইয়ং কিম আরও বলেন, নগর জীবন প্রকল্পের সহায়তা নিয়ে দরিদ্র নারীরা স্বাবলম্বী হয়েছে দেখে তিনি দারুণ খুশি। গ্রামের দরিদ্র নারীরা প্রশিক্ষণ পেয়ে জীবনমানের উন্নয়ন করেছে। তাদের ছেলেমেয়েরা এখন স্কুলে যাচ্ছে। এ ধরনের প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন ও সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট দক্ষিণ রাকুদিয়া গ্রাম সমিতি কার্যালয়ে পৌঁছলে সমিতির সভাপতি হনুফা বেগম তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। পরে সমিতি কার্যালয়ে এসডিএফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ জেড এম শাখাওয়াত হোসেন প্রকল্পের কার্যক্রম সম্পর্কে তাকে অবহিত করেন। এ প্রকল্পেরর সুবিধাভোগী মনি রানী শীল তাদের দারিদ্র্য জয় করার সংগ্রামের বর্ণনা তুলে ধরেন বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট ও তার সফরসঙ্গীদের কাছে।
সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ড. জিম ইয়ং কিম উজিরপুর উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে নির্মিত ভরসাকাঠি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেন্টার পরিদর্শন করেন। ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। তিনি বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। একটি নারিকেল গাছের চারাও রোপণ করেন তিনি। পরে একই গ্রামের গ্রামীণ শক্তি পরিচালিত সৌর বিদ্যুতের সুফলভোগী সাত্তার ব্যাপারীর বাড়ি পরিদর্শন করেন। এ সময় বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য তালুকদার মোঃ ইউনুস। পৃথক এ দুই কর্মসূচিতে বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ছিলেন অর্থনৈতিক সম্পর্র্ক বিভাগের সচিব মোঃ মেজবাহউদ্দিন, এসডিএফ চেয়ারম্যান মাইনুল ইসলাম চৌধুরী ও আঞ্চলিক পরিচালক নজরুল আলম সরদার। এর আগে বিশেষ হেলিকপ্টারে করে ড. জিম ইয়ং কিম সকাল সাড়ে ৮টায় বরিশাল বিমানবন্দরে অবতরণ করলে তাকে স্বাগত জানান সংসদ সদস্য তালুকদার মোঃ ইউনুস ও জেলা প্রশাসক ড. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামান। দুপুর ১২টায় বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট একই হেলিকপ্টারে করে ঢাকার উদ্দেশে বরিশাল ত্যাগ করেন।