তিন প্রকল্পে বদলে যাবে বরিশাল

বরিশালে গড়ে উঠছে আইসিটি পার্ক (হাইটেক পার্ক), বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার ও অর্থনৈতিক অঞ্চল। এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে ব্যাপক পরির্বতন আসবে- এমনটাই জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক ড. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামান। তিনি বলেন, এ তিনটি প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে বরিশালে নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হবে। এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটবে। কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে বিশাল জনগোষ্ঠীর। এছাড়া পদ্মা সেতু, লেবুখালী ব্রিজ, দেশের তৃতীয় গভীর পায়রা সমুদ্র বন্দর নির্মাণ বরিশালে উচ্চমাত্রায় অর্থনৈতিক গতি সঞ্চার হবে।

জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার স্থাপন করা হবে কীর্তনখোলা নদীর তীরে বরিশাল সদর উপজেলার চরআইচায়। বরিশাল নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল ও বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড সংলগ্ন স্থানে স্থাপিত হচ্ছে আইসিটি পার্ক। অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপিত হচ্ছে আগৈলঝাড়া উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের বড়াবাড়ী মৌজায়।
বরিশালে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ আবুল কালাম আজাদ জানান, নগরীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের অদূরে বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের পাশে সড়ক ও জনপথ বিভাগের জায়গা থেকে ৫ একর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে আইসিটি পার্ক স্থাপনের জন্য। এজন্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। নির্ধারিত জমি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে সম্প্রতি মন্ত্রণালয় থেকে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে চিঠি এসেছে। এ আইসিটি পার্কে গড়ে উঠবে তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। যেখানে শুধু দেশীয় নয়, বিদেশি আইটি বিভিন্ন কোম্পানির কাজও সম্পাদন করা হবে। জানা গেছে, আইসিটি পার্কের নাম দেয়া হবে ‘চন্দ্রদ্বীপ ক্লাউট চর’। এ স্থানকে পাঁচটি জোনে ভাগ করা হয়েছে। আটটি ভবন নির্মাণ করা হবে। আর এতে ব্যয় হবে ২৭২ কোটি টাকা। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ২৩ হাজার কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। আইসিটি পার্কে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার, কম্পিউটার সফটওয়্যার, কমিউনিকেশন হার্ডওয়্যার, কমিউনিকেশন সফটওয়্যার, ডিজাইন অ্যান্ড কনসালটেন্সি, বায়োইনফরম্যাটিক্সসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত হতে পারবে। তাছাড়া সদর উপজেলার চরআইচায় ১০ একর জমি অধিগ্রহণের প্রস্তুতি চলছে বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার স্থাপনের জন্য। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে পর্যটন করপোরেশন।
এদিকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আবুল কালাম আজাদ জানান, আগৈলঝাড়ায় অর্থনেতিক অঞ্চল স্থাপনের কাজ অনেকদূর এগিয়েছে। সেখানে ৩০০ একর জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক পবন চৌধুরী, প্রকল্প পরিচালক মোঃ হারুন অর রশিদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তরা শনিবার প্রকল্পের নির্ধারিত স্থান পরিদর্শন করেছেন। পরিদর্শন শেষে পবন চৌধুরী জানিয়েছেন, খুব শিগগিরই প্রকল্পের কাজ শুরু করা হবে। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) সূত্রে জানা গেছে, পদ্ম সেতুকে কেন্দ্র করে আগৈলঝাড়ায় অর্থনেতিক জোন বরিশালের অর্থনৈতিক অবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন ঘটাবে। মানুষের চাহিদা অনুযায়ী বৃহৎ শিল্প গড়ে তোলা হবে। এর ফলে বরিশালের মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। উৎপাদিত পণ্য দেশের চাহিদা মিটিয়ে রফতানির পরিকল্পনাও রয়েছে। বরিশাল জনস্বার্থ রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব মোঃ মুনাওয়ারুল ইসলাম অলি জানান, এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে অর্থনৈতিকভাবে বিপ্লব ঘটবে বরিশালে।