দেশসেরা ১০ উদ্যোগ

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে তরুণ উদ্যোক্তাদের নিয়ে সম্প্রতি আয়োজিত কানেক্টিং স্টার্টআপ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ১০ উদ্যোগের নাম ঘোষণা করেছে। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ, বেসিস, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল ছিল আয়োজক। উদ্যোক্তাদের আইটি ইনকিউবেটরে ফ্রি জায়গা বরাদ্দের পাশাপাশি এক বছরের অর্থসংস্থান, উদ্ভাবনী তহবিলের অনুদান, প্রশিক্ষণ ও আইনি সহায়তাও দেওয়া হবে। প্রতিযোগিতায় ৪৩৪টি উদ্যোগের ধারণা জমা পড়েছিল। প্রতিযোগিতার সেরা ১০ উদ্যোগের সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরেছেন মিরাজুল ইসলাম-

ইন্টারঅ্যাকটিভ থেরাপি
এ ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে প্রতিবন্ধীরা বিভিন্ন ব্যায়াম সম্পর্কে জেনে নিজেদের প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করতে পারবে। দুর্ঘটনার শিকার হয়ে কিংবা জন্মগতভাবে কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতার কারণে শারীরিক অবস্থার যদি অবনতি হয়, তবে তা কাটিয়ে ওঠা যাবে শারীরিক ব্যায়ামের মাধ্যমে। অনেক সময় চিকিৎসক কিংবা ফিজিওথেরাপিস্টের কাছে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। এমন মুহূর্তে বাসায় বসে এই অ্যাপ্লিকেশন থেকে বিভিন্ন ব্যায়াম সম্পর্কে জেনে তা করা যাবে।

হিরোস অব ৭১
এটি একটি স্মার্টফোন গেম। মোবাইল গেমাদের সবারই জানা আছে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এ গেম সম্পর্কে। বানিয়েছে পোর্টব্লিস নামের প্রতিষ্ঠান। হিরোস অব ৭১-এর টিম লিডার মাশা মুস্তাকিম জানান, ১০ সদস্য নিয়ে তাদের এই প্রতিষ্ঠান আত্মপ্রকাশ করেছে গত এপ্রিলে।

খুঁজুন
২০১৫ সালে টিম অ্যাবট চালু করেন ওয়েবে তথ্য খোঁজার ওয়েবসাইট (সার্চ ইঞ্জিন) ‘খুঁজুন’। নুরুল ফেরদৌস বলেন, খুঁজুন মূলত বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কথা মাথায় রেখে বানানো হয়েছে। এতে বিভিন্ন ভাষা থেকে তথ্য নিয়ে উপস্থাপনের সুবিধা আছে। ইংরেজিতে লিখে কিছু খুঁজলে বাংলায় ফল দেখা যাবে।

জিয়ন
২০১৩ টেলিমেডিসিন পদ্ধতি ব্যবহার করে ঢাকায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বয়ে রেফারেল সেন্টার পরিচালনা করছে ‘জিয়ন’। গ্রামের নির্দিষ্ট ওষুধের দোকানে আসা রোগীকে প্রশিক্ষিত ওষুধের দোকানদার শারীরিক পরীক্ষা ও রোগের বিস্তারিত তথ্য ভিডিও কনফারেন্সে জানিয়ে দিচ্ছেন রেফারেল সেন্টারে। চিকিৎসক পরবর্তী সময়ে কোনো জিজ্ঞাসা বা পরীক্ষার প্রয়োজন থাকলে তা জানান এবং সবশেষে চিকিৎসক ব্যবস্থাপত্র লিখে পাঠালে দোকানে থাকা প্রিন্টারে প্রিন্ট হয়ে যাবে।

বিডিরেটস ডটকম
ব্যাংক থেকে ক্রেডিট কার্ড, এফডিআর, ডিপিএস, গাড়ি, বাড়ি ও ব্যক্তিগত ঋণ পেতে সহায়তা করে এ প্রতিষ্ঠান। নফৎধঃবং.পড়স ঠিকানার ওয়েবসাইট থেকে বিভিন্ন ব্যাংকে ঋণের আবেদন করা যায় সহজে। পরবর্তী সময়ে ব্যাংকের গ্রাহক সেবাকেন্দ্র থেকে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। বিডি রেটসের প্রধান উদ্যোক্তা মেহরান চৌধুরী জানান, ২০১৫ সালের অক্টোবরে তিনি ও তার স্ত্রীসহ চারজন মিলে এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন।

অ্যাপ্লিকেশন ককপিট
ব্যবসায়ের সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহায়তাকারী এই অ্যাপ্লিকেশনটি এসএপি, ওরাকল, মাইক্রোসফট এইচপিএসএম, ইনসাইড মাইক্রোসফট শেয়ারপয়েন্টের মতো ডেটাবেজ সফটঅয়্যার থেকে প্রয়োজন অনুযায়ী তথ্য সংগ্রহ করে সরবরাহ করে। প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রাত্যহিক, সাপ্তাহিক কিংবা মাসিক প্রতিবেদন দিতে পারে এটি। ইমপ্লে ভিসতা বিডির এই উদ্যোগ ২০১৩ সালে গড়ে তোলেন এসএম রবিউল ইসলাম ও সোহেল রানা।

ম্যাডভাইজার
আপনার স্মার্টফোনে এই অ্যাপটি যদি নামানো থাকে তাহলে তা জানিয়ে দেবে আপনার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন অপারেটরের কোন প্যাকেজ বা সুবিধাটি প্রযোজ্য। ফলে মোবাইল ফোনের খরচ অনেকাংশে কমে আসবেÑ এমনটাই দাবি তাদের। ২০১৪ সালে তৈরি করেন এই অ্যাপ।

সিক্স অ্যাক্সিস
এই প্রতিষ্ঠান দেশেই উচ্চ প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি তৈরি করছে। ২০১৫ সালে এ উদ্যোগের যাত্রা শুরু। প্রতিষ্ঠানটি থ্রিডি প্রিন্টার, থ্রিডি সিএডি, সিএএম ডিজাইন যন্ত্র তৈরি করেছে। সিক্স অ্যাক্সিসের প্রতিষ্ঠাতারা জানান, ‘আমাদের সেবা গ্রহণ করে যে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্যের নমুনা (প্রোটোটাইপ) তৈরি করতে পারবে।’

ইশকুল
মোবাইল অ্যাপটি দিয়ে শিক্ষার্থীদের নম্বর, উপস্থিতি, রুটিনসহ বিভিন্ন তথ্য শিক্ষকরা যেমন দিতে পারবেন, তেমনি অভিভাবকরাও জানতে পারবেন এসব তথ্য। শিক্ষক-অভিভাবক দুইয়েরই রয়েছে মতামত দেওয়ার সুযোগ। এ ছাড়া ‘ইশকুল’-এর ওয়েবসাইট থেকে ই-লার্নিং সুবিধা গ্রহণ করা যাবে।

কগনেটিভ হেড হান্টার
আসিফ আতিক, আরিফ হোসেন, নাইম হোসেন ও মাহমুদুর রহমানের এ উদ্যোগটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অ্যাপ। এটি মূলত চাকরির আবেদনপত্র যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করে। যেমন ধরুন কোনো চাকরির জন্য জমা পড়া কয়েক হাজার আবেদনপত্র থেকে মুহূর্তের মধ্যেই বেছে নিতে পারবে যোগ্য আবেদনপত্রগুলো।