সুপারিতে সচল হাজারো পরিবার

সুপারি চাষে লাভবান হচ্ছেন পঞ্চগড়ের চাষিরা। জেলার বিভিন্ন এলাকায় বাগানভিত্তিক সুপারির চাষ হচ্ছে । প্রতিদিন এখান থেকে শত শত বস্তা সুপারি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সরবরাহ করা হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা এখানে আসছেন সুপারি ক্রয় করার জন্য। এখানকার সুপারি উৎকৃষ্টমানের হওয়ায় সারা দেশে এর চাহিদা প্রচুর রয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ী ও সুপারি চাষিরা। পরিবারসহ এলাকার অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে সুপারি বড় ভূমিকা পালন করে আসছে।
জেলার মধ্যে হাড়িভাষা, চাকলা, বড়শশী, সিংরোড, টুনিরহাট, মডেলহাট, শালবাহান এলাকা সুপারি চাষের জন্য বিখ্যাত বলে জানা গেছে। এসব এলাকায় হাজার হাজার সুপারির বাগান রয়েছে। চাষিরা জানান, অন্যান্য যে কোনো কৃষি ফসলের চেয়ে সুপারি চাষ অনেক লাভজনক। কারণ সুপারির চারা একবার রোপণ করলে এতে ৪০ থেকে ৫০ বছর ফলন পাওয়া যায়। এতে বাড়তি কোনো খরচ নেই। পঞ্চগড়ের জালাসি বাজারে সপ্তাহে দুই দিন বড় ধরনের সুপারির হাট বসে। এছাড়াও জেলার অন্যান্য হাট-বাজারেও এ মৌসুমে প্রচুর সুপারির আমদানি হয়ে থাকে। জেলার সদর উপজেলার টুনিরহাট এলাকার সুপারি চাষি মোঃ হাসান আলী জানান, তিন বিঘা জমিতে তিনি সুপারির বাগান করেছেন । এ বছর তিনি প্রায় ২ লাখ ৭০ হাজার টাকার মতো সুপারি বিক্রি করেছেন। তিনি জানান, বর্তমানে প্রতি কাহন (১৬ পণ) সুপারি কাঁচা বিক্রি হচ্ছে ৫ থেকে সাড়ে ৫ হাজার টাকা দরে আর মজা সুপারি বিক্রি হচ্ছে প্রতি কাহন (১৬ পণ) ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার দরে।
সদর উপজেলার ভিতরগড় (সেনপাড়া) গ্রামের সুপারি চাষি মোঃ সফিকুল ইসলাম জানান, দুই বিঘা জমিতে সুপারির বাগান করেছেন। চলতি বছর এ বাগান থেকে সুপারি বিক্রয় করেছেন ১ লাখ ৬০ হাজার টাকার মতো। তিনি আরও জানান, সুপারির বাগান বেশ লাভজনক কারণ সুপারি গাছ একবার লাগালে ৪০ থেকে ৫০ বছর ধরে ফলন পাওয়া যায় এবং এতে বাড়তি কোনো খরচ নেই ।
বরিশাল থেকে আসা ব্যবসায়ী মোঃ নুরুল হক জানান, তারা প্রতি বছর পঞ্চগড়ে আসেন সুপারি ক্রয় করার জন্য। এখান থেকে সুপারি ক্রয় করে ঢাকাসহ সারা দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠান। ঢাকা থেকে আসা সুপারি ব্যবসায়ী মোঃ ইসমাইল হোসেন জানান, পঞ্চগড়ের সুপারি আকারে বেশ বড় এবং এর মান ভালো হওয়ায় এ সুপারির চাহিদা বেশ ভালো। পঞ্চগড় জালাসি বাজারের সুপারি আড়তদার মোঃ রায়হান কবির জানান, পঞ্চগড়ের বিভিন্ন হাটবাজারে সুপারির মৌসুমে প্রচুর সুপারির আমদানি হয়ে থাকে। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা এখানে সুপারি ক্রয়ের জন্য আসেন। এখান থেকে সুপারি ক্রয় করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হয়।
এ ব্যাপারে পঞ্চগড় জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, এ এলাকার সুপারি অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে বড় ধরনের ভূমিকা পালন করে আসছে। এখানকার সুপারি আকারে বড় এবং গুণগত মান ভালো হওয়ায় বাজারে এর চাহিদা ব্যাপক এবং দামও ভালো। ফলে সুপারি চাষিরা বেশ লাভবান হচ্ছেন এবং দিন দিন সুপারি চাষে তাদের আগ্রহ বাড়ছে।