মাগুরায় গার্মেন্টে সচ্ছলতা পাঁচ হাজার বেকারের

মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার আমতৈল গ্রামে গড়ে ওঠা ‘সান এ্যাপারেলস লিমিটেড’ নামে একটি গার্মেন্টে প্রায় ৫ হাজার বেকার যুবক-যুবতীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এতে এলাকার বেকার সমস্যা দূর হওয়ার পাশাপাশি তারা আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছেন। বন্ড লাইসেন্স পেলে এ গার্মেন্টটিতে পুরোপুরি উৎপাদন শুরু হবে। এতে এখানকার তৈরি পোশাক বিদেশে রফতানির সুযোগ হবে।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বন্ড লাইসেন্স না পাওয়ায় পুরোপুরি উৎপাদন শুরু করতে না পারলেও ২০১৫ সালের অক্টোবরে চালু হওয়া এ গার্মেন্টে প্রাথমিকভাবে ৪০০ শ্রমিক ঢাকার একটি গার্মেন্টের অর্ডারের কাজ করছেন। এখানে কাজ করা অধিকাংশই স্থানীয় বেকাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে। এছাড়া মাগুরা জেলার বিভিন্ন এলাকাসহ ফরিদপুর ও রাজবাড়ী জেলার অনেকেই এখানে কাজ করছেন। পাশাপাশি এখানে কিছু অভিজ্ঞ শ্রমিকও রয়েছেন। এসব শ্রমিক সাড়ে ৫ হাজার টাকা থেকে সাড়ে ৮ হাজার টাকা করে বেতন পাচ্ছেন।
এখানে কর্মরত শ্রমিকসহ স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ কারখানায় কাজ করার আগে অনেকেই বেকার ছিলেন। তারা দেশের বিভিন্ন এলাকায় কাজ করতেন। কিন্তু নিজ এলাকায় গার্মেন্ট হওয়ায় খবর শুনে তারা বাড়িতে ফিরে এসে এখানে কাজ নেন। নিজের বাড়ি থেকে এখানে কাজ করতে পারছেন তারা। এতে তাদের পরিবারের সদস্যদের সময় দেয়ার পাশাপাশি গার্মেন্ট থেকে পাওয়া বেতন দিয়ে সংসারের ব্যয় নির্বাহ করে সচ্ছলভাবে দিন কাটছে। কয়েকজন শ্রমিক জানান, আগে তারা ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় গার্মেন্টসহ ভিন্ন পেশায় কাজ করতেন। কিন্তু ‘সান এ্যাপারেলস লিমিটেডে’ কাজের পরিবেশ ভালো হওয়ার এখানে কাজ নিয়েছেন। মফস্বলে এ পোশাক কারখানায় ভালো বেতন পাচ্ছেন তারা।
সান এ্যাপারেলস লিমিটেডের সহকারী ব্যবস্থাপক সেখর চন্দ্র দাস জানান, আমতৈল এলাকায় প্রায় ৬ একর জমির ওপর আধুনিক ব্যবস্থাপনায় সার্ট ও প্যান্ট তৈরির (ওভেন) গার্মেন্টেটি গড়ে উঠেছে। শ্রীপুর উপজেলার আমতৈল গ্রামের ফারুকুল ইসলাম ও ভারতীয় ব্যবসায়ী আক্তার হোসেনের যৌথ উদ্যোগে গার্মেন্টটি গড়ে উঠেছে। নির্মাণ কাজ শেষে ২০১৫ সালের অক্টোবরে প্রতিষ্ঠানটি চালু করা হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে এখানে ৪০০ শ্রমিক কাজ করছেন। বন্ড লাইসেন্স পেলেই সম্পূর্ণ জনবল নিয়োগ দিয়ে পুরোমাত্রায় উৎপাদন শুরু করবে প্রতিষ্ঠানটি। পুরোপুরি উৎপাদন শুরু হলে এখানে প্রায় ৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে। প্রতিষ্ঠানটি প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে হলেও এখানে শ্রমিকের কাজ করার সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।
সান এ্যাপারেলস লিমিটেডের পরিচালক শিল্পপতি ফারুকুল ইসলাম জানান, এলাকার দরিদ্র মানুষের কর্মসংস্থানের কথা চিন্তা করেই ভারতীয় ব্যবসায়ী আক্তার হোসেনের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে আমতৈল গ্রামে গার্মেন্টেটি নির্মাণ করা হয়েছে। আশা করছি কিছু দিনের মধ্যে বন্ড লাইসেন্স পাওয়া যাবে। লাইসেন্স পেলে পুরোমাত্রায় উৎপাদন শুরু হবে। পুরোপুরি উৎপাদন শুরু হলে এখানে ৫ হাজার ৫০০ দরিদ্র মানুষের কর্মসংস্থান হবে।