সঞ্চয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক নিরাপত্তার প্রতীক

‘সঞ্চয় ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি এবং রাজস্ব আহরণে’ সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে দেশব্যাপী শুরু হয়েছে জাতীয় সঞ্চয় সপ্তাহ-২০১৬। আগামী ৮ জুন পর্যন্ত চলবে এ সপ্তাহের কার্যক্রম। ‘সঞ্চয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক নিরাপত্তার প্রতীক’-এই সেøাগানকে সামনে শনিবার সকালে রাজধানীর জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতরের প্রধান কার্যালয়ের সামনে ‘জাতীয় সঞ্চয় সপ্তাহ-২০১৬’ এর উদ্বোধন করেন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোঃ নজিবুর রহমান। সকালে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সামনে থেকে সঞ্চয় সপ্তাহের বিভিন্ন সেøাগান সম্বলিত ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। আনসার-ভিডিপি’র চৌকস বাদক দল, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের রোভার স্কাউটের সদস্য, দৃষ্টিনন্দন সাজের ঘোড়ার গাড়ি, সঞ্চয় সংশ্লিষ্ট জারি গানের গাড়ি নিয়ে র‌্যালিটি জাতীয় প্রেসক্লাব হয়ে আবার একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এনবিআরের চেয়ারম্যান বলেন, সঞ্চয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক নিরাপত্তার প্রতীক। সঞ্চয় অধিদফতর মানুষের সঞ্চয়ের অভ্যাস গড়ে তুলছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর রূপকল্প-২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে আমরা সকল পর্যায়ে প্রয়াস চালাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর নির্দেশে অর্থনৈতিক কর্মকা-ের বিভিন্ন উপাদান, রাজস্ব আহরণ, সঞ্চয় ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি, সামাজিক কর্মকা-ের গতিশীলতা বৃদ্ধিতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। চেয়ারম্যান বলেন, সঞ্চয় অধিদফতর মানুষের সঞ্চয়ের অভ্যাস গড়ে তুলছে। সামাজিক নিরাপত্তার গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসেবে সঞ্চয়পত্র জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। প্রস্তাবিত বাজেট সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে মানুষের অর্থনৈতিক-সামাজিক ভবিষ্যতকে নিশ্চিত করবে। বাংলাদেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে এবং বিশ্বের কাছে উন্নয়নের রোলমডেল তারই একটা পরিচায়ক এবারের বাজেট। জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা, বিচারপতি আবদুল হাই, সঞ্চয় অধিদফতরের যুগ্ম সচিব নুরুল আফসার, সুলতানুল ইসলাম চৌধুরী, এম এ রউফ প্রমুখ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

নীলফামারী ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, সুদিনের সঞ্চয় দুর্দিনের সহায়, সঞ্চয় আপনার ও জাতীর সমৃদ্ধি আনে এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সারাদেশের ন্যায় নীলফামারীতে সঞ্চয় সপ্তাহ পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার সকাল ১১টায় নীলফামারী জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এসে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। জেলা সঞ্চয় অফিসের আয়োজনে ওই র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এজেএম এরশাদ আহসান হাবিবের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, জেলা সঞ্চয় অফিসের সহকারী পরিচালক একরামুল হক। আলোচনা সভায় ছয় উপজেলার সঞ্চয় ও ব্যাংকিং বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীগণ অংশ গ্রহণ করেন।

ঝালকাঠি ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, ঝালকাঠিতে জাতীয় সঞ্চয় দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বর থেকে র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি শহর ঘুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সঞ্চয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা সঞ্চয় অফিসার আব্দুর রহমান। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মিজানুল হক চৌধুরী। অন্যদের মধ্যে ঝালকাঠির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক মোঃ জাকির হোসেন ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আব্দুর রকিব বিশেষ অতিথি ছিলেন। ঝালকাঠি জেলায় সঞ্চয় অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা ২৩ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে এবং চলতি অর্থবছরের জুন মাস পর্যন্ত ২২ কোটি টাকা অর্জন হয়েছে। প্রায় ৫ হাজার গ্রাহক সঞ্চয়পত্র ক্রয় করেছে। পারিবারিক সঞ্চয়পত্র, ৩ মাস অন্তর মুনাফা ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র ও ৫ বছর মেয়াদী বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রের গ্রাহক সংখ্যা বেশি বলে জানানো হয়েছে।

বাগেরহাট ॥ নিজস্ব সংবাদাদাতা জানান, জাতীয় সঞ্চয় সপ্তাহ উপলক্ষে বাগেরহাটে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার সকালে শহরের খানজাহান আলী সড়কের সঞ্চয় অফিসের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বাগেরহাট সাংস্কৃতিক ফাউন্ডেশনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতর বাগেরহাটের সহকারী পরিচালক মফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাগেরহাট স্থানীয় সরকার শাখার উপপরিচালক মোঃ শফিকুল ইসলাম।

আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, জেলা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিক্যাল অফিসার প্রদীপ কুমার বকসী, মনজুরুল করিম, অনিতা রায়। বক্তারা বলেন, সঞ্চয় বৃদ্ধির মাধ্যমে নিজ ভবিষ্যত সুরক্ষার জন্য সকলকে সঞ্চয় বাড়ানোর জন্য আগ্রহী হতে হবে। এর ফলে দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে এবং মানুষও লাভবান হবে।

মুন্সীগঞ্জ ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, মুন্সীগঞ্জে সঞ্চয় সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান প্রদক্ষিণ করে। পরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সভাকক্ষে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মুন্সীগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ফজলে আজিম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মুন্সীগঞ্জ হরগঙ্গা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর সুখেন চন্দ্র ব্যনার্জী। সভায় অতিথিরা সঞ্চয় সপ্তাহ সফল করতে সঞ্চয়ের নানাদিক নিয়ে আলোচনা করেন।

খুলনা ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, ৪ থেকে ৮ জুন সারাদেশব্যাপী পালিত হচ্ছে সঞ্চয় সপ্তাহ ২০১৬ এবং উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রম। এ উপলক্ষে খুলনা জেলা সঞ্চয় অফিসের আয়োজনে শনিবার সকালে খুলনায় র‌্যালি ও জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতর খুলনা ও বরিশাল বিভাগের আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপপরিচালক মোঃ আবদুল লতিফের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন। স্বাগত বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা সঞ্চয় অফিসের সঞ্চয় অফিসার ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী আবু হেলাল মোঃ জিন্নুরায়েন। বক্তৃতা করেন সিটি ডাকঘরের পোস্টমাস্টার অসিত কুমার মল্লিক। এ সময় কর্মকর্তা-কর্মচারী, ছাত্র-শিক্ষক, বিনিয়োগকারী এবং গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় বক্তারা বলেন, সঞ্চয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক নিরাপত্তার প্রতীক। সঞ্চয় ছাড়া কোন জাতি উন্নতি লাভ করতে পারে না। জনগণকে সঞ্চয়ী হতে উদ্বুদ্ধ করার জন্য তৃণমূলের মানুষের কাছে জাতীয় সঞ্চয় প্রকল্প এবং এর সুফলসমূহ তুলে ধরার জন্য বক্তারা গুরুত্বারোপ করেন।

সভায় জানানো হয়, দেশে পাঁচ বছর মেয়াদী বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র, তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্র, পেনশনার সঞ্চয়পত্র, পরিবার সঞ্চয়পত্র, ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংক, ডাক জীবন বীমা, বাংলাদেশ প্রাইজবন্ড, ওয়েজ আর্নার ডেভেলপমেন্ট বন্ড, ইউএস ডলার প্রিমিয়াম বন্ড এবং ইউএস ডলার ইনভেস্টমেন্ট বন্ড- এই ১০টি জাতীয় সঞ্চয় প্রকল্প চালু রয়েছে।