বেনাপোল বন্দরে রফতানি বেড়েছে এক লাখ ২৪ হাজার টন

চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি কমলেও গত বছরের তুলনায় রফতানি বাণিজ্য বৃদ্ধি পেয়েছে। চলতি অর্থবছরের ১০ মাসে এই বন্দর দিয়ে রফতানি হয়েছে ৩ লাখ ৫৯ হাজার ৩৬৯ মেট্রিক টন পণ্য। গত বছরের একই সময়ে রফতানি হয়েছিল ২ লাখ ৩৫ হাজার ২৯৮ মেট্রিক টন পণ্য। এ সময় রফতানি বেশি হয়েছে এক লাখ ২৪ হাজার ৭১ মেট্রিক টন।

ব্যবসায়ী ও কাস্টম কর্মকর্তারা বলছেন, আগে ব্যবসায়ীরা বেশিরভাগ পণ্য আমদানি করতেন। কিন্তু এখন অনেক পণ্য দেশেই উৎপাদন হচ্ছে। যে কারণে আমদানি কমলেও রফতানি দিনকে দিন বাড়ছে। বেনাপোল কাস্টম সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই মাসে ভারতে রফতানি হয় ২৪২ কোটি ৬৬ লাখ টাকা মূল্যের ৩৫ হাজার ৪শ’ ৫১ মেট্রিক টন পণ্য। আগস্ট মাসে ভারতে রফতানি হয়েছে ৩৬৪ কোটি ২৩ লাখ টাকা মূল্যের ৩৩ হাজার ৮শ’ ৮০ মেট্রিক টন পণ্য। সেপ্টেম্বর মাসে রফতানি হয়েছে ২৮২ কোটি ৫৩ লাখ টাকা মূল্যের ৩৭ হাজার ৫শ’ ৫৬ মেট্রিক টন পণ্য। অক্টোবর মাসে ভারতে রফতানি হয় ২৫২ কোটি ৫৭ লাখ টাকা মূল্যের ৩৯ হাজার ৩শ’ ৪৭ মেট্রিক টন পণ্য। নবেম্বর মাসে ভারতে রফতানি হয়েছে ২৪১ কোটি ৭০ লাখ টাকা মূল্যের ৩৩ হাজার ৩শ’ ১২ মেট্রিক টন পণ্য। ডিসেম্বর মাসে রফতানি করা হয় ২৮১ কোটি ১৩ লাখ টাকা মূল্যের ৩৫ হাজার ৬শ’ ৩০ মেট্রিক টন পণ্য। জানুয়ারি মাসে ভারতে রফতানি হয়েছে ৩২৪ কোটি ৮৬ লাখ টাকা মূল্যের ৩২ হাজার ১শ’ ১০ দশমিক মেট্রিক টন, ফেব্রুয়ারিতে ২৭ হাজার ৪৬৭ মেট্রিক টন, মার্চে ৩৮ হাজার ৬৮ মেট্রিক টন এবং এপ্রিলে রফতানি করা হয়েছে ৪৬ হাজার ৫৫৮ মেট্রিক টন পণ্য।

২০১৪-১৫ অর্থবছরের জুলাই মাসে ভারতে রফতানি করা হয় ২০৮ কোটি ৩৬ লাখ টাকা মূল্যের ২৪ হাজার ৮শ’ ৫৯ মেট্রিক টন পণ্য। আগস্ট মাসে ভারতে রফতানি হয় ১৭৩ কোটি ২৪ লাখ টাকা মূল্যের ২১ হাজার ৫শ’ ৭৩ মেট্রিক টন পণ্য। সেপ্টেম্বর মাসে ভারতে রফতানি হয় ৩৭৩ কোটি ১৯ লাখ টাকা মূল্যের ৩৬ হাজার ৮শ’ ৩৩ মেট্রিক টন পণ্য। অক্টোবর মাসে রফতানি করা হয় মাত্র ৯৫ কোটি ৫১ লাখ টাকা মূল্যের ১৫ হাজার ৭শ’ ৯৮ মেট্রিক টন পণ্য। নবেম্বর মাসে রফতানি হয় ১৬০ কোটি ৯২ লাখ টাকা মূল্যের ২৪ হাজার ৪শ’ ৮১ মেট্রিক টন পণ্য। ডিসেম্বর মাসে রফতানি হয়েছিল ১৯৬ কোটি ৪৭ লাখ টাকা মূল্যের ২২ হাজার ৬০ মেট্রিক টন, জানুয়ারি মাসে ১৮১ কোটি ২৯ লাখ টাকা মূল্যের ২০ হাজার ১শ’ ৭৯ মেট্রিক টন, ফেব্রুয়ারিতে ১৮৯ কোটি ১৮ লাখ টাকার ২১ হাজার ৬৭৫ দশমিক ২৪ মেট্রিক টন, মার্চ মাসে ২০৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকার ২৪ হাজার ১০৮ দশমিক ৭১ মেট্রিক টন এবং এপ্রিল মাসে রফতানি হয়েছে ১৭২ কোটি ৫২ লাখ টাকার ২১ হাজার ৭৩১ দশমিক ১৫ মেট্রিক টন পণ্য।

যশোর চেম্বার অব কমাসের্র সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান খান জানান, আমাদের দেশ রফতানিতে ভাল করছে। আগে সব ধরনের পণ্যর কাঁচামাল আমদানি করা লাগত, কিন্তু এখন দেশেই অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। যে কারণে রফতানি বাণিজ্য বাড়ছে।

বেনাপোল কাস্টমের কমিশনার এএফএম আবদুল্লাহ জানান, রফতানি বাড়ার কারণ হলো দেশেই শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে। যারা আগে আমদানি করত, এখন নিজেরাই পণ্য উৎপাদন করছে। বেনাপোল দিয়ে পাটজাত পণ্য, গার্মেন্টস, প্ল্যাস্টিকসহ অন্যান্য পণ্যর চাহিদা থাকায় ভারতে এর রফতানি বাড়ছে।

বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিশনের সিনিয়র সহসভাপতি নূরুজ্জামান জানান, বেনাপোল দিয়ে পাটজাত পণ্য ও গার্মেন্টস পণ্য বেশি রফতানি হয়ে থাকে। গত বছরের শেষ সময়ে টানা হরতাল আর অবরোধ চলার কারণে রফতানিকারকরা পণ্য রফতানি করতে পারেনি। এখন দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকায় ব্যবসায়ীরা রফতানি বাড়িয়েছেন।