নৌবাহিনীতে প্রথম নারী নাবিক

বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে প্রথমবারের মতো যোগ দিলেন ৪৪ জন মহিলা নাবিক। এর মধ্য দিয়ে পুরুষ নাবিকদের পাশাপাশি নৌবাহিনীতে মহিলা নাবিকদের গর্বিত পথচলা শুরু হলো। গতকাল খুলনাস্থ নৌবাহিনী ঘাঁটি তিতুমীরে ২০১৬-এ ব্যাচের শিক্ষা সমাপনী কুচকাওয়াজের মাধ্যমে এই মহিলা নাবিকসহ মোট ৭৭১ জন নবীন নাবিক আনুষ্ঠানিকভাবে নৌবাহিনীতে যোগদান করলেন। অনুষ্ঠানে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও আকর্ষণীয় মার্চপাস্টের সালাম গ্রহণ করেন। পরে তিনি কৃতী নবীন নাবিকদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। নৌবাহিনীর ২০১৬-এ ব্যাচের নবীন নাবিকদের মধ্যে মো. অরিফুল ইসলাম, ডিই/পিএম-২/ইউটি পেশাগত ও সকল বিষয়ে সেরা চৌকস নাবিক হিসেবে ‘নৌ প্রধান পদক’ লাভ করেন। এছাড়া মো. শাহারিয়ার আহমেদ, ডিই/ইউসি/ইউটি দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে ‘কমখুল পদক’ এবং রিপা আকতার ডিই/এমএ-২/ইউটি তৃতীয় স্থান অধিকার করে ‘তিতুমীর পদক’ লাভ করে।নৌবাহিনী প্রধান নবীন নাবিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, নবীন নাবিক স্কুল থেকে প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান যথাযথ ভাবে কাজে লাগিয়ে নিজেদেরকে যোগ্য নাবিক হিসেবে গড়ে তোলা এবং সেই শিক্ষাকে ভবিষ্যৎ কর্মজীবনে ব্যবহার করে জাতীয় নিরাপত্তা ও অগ্রগতির পথে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করার নির্দেশনা দেন। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীনতার স্থপতি ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসামান্য অবদানের কথা গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। এছাড়া তিনি স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণকারী বীর নৌসেনা ও মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের কথাও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রদর্শিত পথে সকল নৌ সদস্যকে একযোগে কাজ করার নির্দেশনা করেন। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শিতা এবং পরবর্তীতে বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে নৌবাহিনী আজ একটি ত্রিমাত্রিক ও যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে। তিনি নবীন নাবিকদের পেশা হিসেবে দেশ সেবা ও দেশ গড়ার পবিত্র দায়িত্ব বেছে নেয়ায় আন্তরিক অভিনন্দন জানান এবং এ লক্ষ্যে দৃঢ় পদক্ষেপে এগিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন। মনোজ্ঞ এ কুচকাওয়াজে অন্যান্যের মধ্যে সহকারী নৌবাহিনী প্রধান (পার্সোনেল), খুলনা নৌ অঞ্চলের আঞ্চলিক কমান্ডার, খুলনা ও যশোর এলাকার পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাগণ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং নবীন নাবিকদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।