ডিএমপির অপরাধ জোন এখন ২৪

অপরাধ প্রতিরোধ এবং নিরাপত্তা সেবা নগরবাসীর দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ৮টি অপরাধ বিভাগের ১৬টি জোনকে ২৪টি জোনে উন্নীত করা হয়েছে। এ ছাড়া ৮টি পেট্রোলে জোনকে পুনর্বিন্যাস করে ১৬টি এবং ৪টি ট্রাফিক বিভাগের বিদ্যমান ১৬টি জোনকে পুনর্বিন্যাস করে ২২টি জোনে বিভাজন করা হয়।
ঢাকা নগরীর জনসংখ্যা বেড়ে যাওয়া এবং অপরাধের কৌশল পাল্টে যাওয়ায় ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) সাংগঠনিক কাঠামো পরিবর্তন করে। কমিউনিটি পুলিশিংয়ের অংশ বিট পুলিশিংয়ের মাধ্যমে জনগণের দোরগোড়ায় পুলিশি সেবা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে এবং পুলিশ ও জনগণের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করে সমাজ থেকে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, ইভ টিজিং, চাঁদাবাজি, দখলবাজি, মাদক ব্যবসা ইত্যাদি অপরাধমূলক কার্যক্রম প্রতিরোধে সাংগঠনিক কাঠামো পরিবর্তন করা হয়েছে। প্রশাসনিক ও অপারেশনাল কাজের সুবিধার্থে ৪ মে অপরাধ, পেট্রোল ও ট্রাফিক জোন পুনর্বিন্যাসের আদেশ জারি হয়। প্রতিটি জোন একজন সহকারী পুলিশ কমিশনারের (এসি) নেতৃত্বে পরিচালিত হবে।
ডিএমপি সূত্র জানায়, বর্তমানে রাজধানীতে রমনা, লালবাগ, ওয়ারী, মতিঝিল, তেজগাঁও, মিরপুর, গুলশান ও উত্তরা- এই আটটি অপরাধ বিভাগে ১৬টি জোন রয়েছে। এই জোনগুলোকে ভেঙে ২৪টি জোন করা হয়েছে। রমনা বিভাগে তিনটি জোন করা হয়েছে। রমনা জোনে থাকছে রমনা মডেল ও শাহবাগ থানা, ধানমণ্ডি জোনে ধানমণ্ডি মডেল ও হাজারীবাগ থানা, নিউমার্কেট জোনে নিউমার্কেট ও কলাবাগান থানা। লালবাগ বিভাগে করা হয়েছে তিনটি জোন। লালবাগ ও কামরাঙ্গীরচর থানা নিয়ে লালবাগ জোন, চকবাজার মডেল ও বংশাল থানা নিয়ে চকবাজার জোন আর কোতোয়ালি ও সূত্রাপর থানা নিয়ে কোতোয়ালি জোন। ওয়ারী বিভাগও তিনটি জোনে ভাগ করা হয়েছে। ওয়ারী জোনে ওয়ারী ও গেণ্ডারিয়া থানা, শ্যামপুর জোনে শ্যামপুর মডেল ও কদমতলী থানা, ডেমরা জোনে যাত্রাবাড়ী ও ডেমরা থানা রয়েছে। মতিঝিল বিভাগে মতিঝিল জোনে পল্টন মডেল ও মতিঝিল থানা, খিলগাঁও জোনে খিলগাঁও ও রামপুরা থানা, সবুজবাগ জোনে সবুজবাগ, মুগদা ও শাহজাহানপুর থানা। তেজগাঁও বিভাগের মোহাম্মদপুর জোনে মোহাম্মদপুর ও আদাবর থানা, তেজগাঁও জোনে তেজগাঁও ও শেরে বাংলানগর থানা, তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল জোনে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানা। মিরপুর বিভাগের মিরপুর জোনে মিরপুর মডেল ও কাফরুল থানা, পল্লবী জোনে পল্লবী, রূপনগর ও ভাষানটেক থানা। দারুসসালাম জোনে দারুসসালাম ও শাহআলী থানা। গুলশান বিভাগের গুলশান জোনে গুলশান ও বনানী  থানা, বাড্ডা জোনে বাড্ডা ও ভাটারা থানা, ক্যান্টনমেন্ট জোনে খিলক্ষেত ও ক্যান্টনমেন্ট থানা। উত্তরা বিভাগের উত্তরা জোনে উত্তরা-পশ্চিম ও তুরাগ থানা, এয়ারপোর্ট জোনে বিমানবন্দর ও উত্তরা-পূর্ব মডেল থানা, দক্ষিণখান জোনে দক্ষিণখান ও উত্তরখান থানা।
এসব অপরাধ বিভাগের আবার পেট্রোল জোনগুলোকেও বিভাজন করা হয়েছে। রমনা পেট্রোল জোনে রমনা মডেল, শাহবাগ ও কলাবাগান থানা। ধানমন্ডি পেট্রোল জোনে ধানমন্ডি মডেল, নিউমার্কেট ও হাজারীবাগ থানা। লালবাগ পেট্রোল জোনে লালবাগ, চকবাজার মডেল ও কামরাঙ্গীরচর থানা। কোতোয়ালি পেট্রোল জোনে কোতোয়ালি, সূত্রাপুর ও বংশাল থানা। ওয়ারী পেট্রোল জোনে ওয়ারী, গেণ্ডারিয়া ও শ্যামপুর মডেল থানা। ডেমরা  পেট্রোল জোনে ডেমরা, যাত্রাবাড়ী ও কদমতলী থানা। মতিঝিল পেট্রোল জোনে পল্টন মডেল, মতিঝিল ও শাহজাহানপুর থানা। খিলগাঁও পেট্রোল জোনে খিলগাঁও, রামপুরা, সবুজবাগ ও মুগদা থানা। তেজগাঁও পেট্রোল জোনে তেজগাঁও ও তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানা।
মোহাম্মদপুর পেট্রোল জোনে মোহাম্মদপুর, আদাবর ও শেরে বাংলানগর থানা। মিরপুর  পেট্রোল জোনে মিরপুর মডেল, দারুসসালাম, শাহআলী ও রূপনগর থানা। পল্লবী পেট্রোল জোনে পল্লবী, কাফরুল ও ভাষানটেক থানা। গুলশান পেট্রোল জোনে গুলশান, বাড্ডা ও ভাটারা থানা। ক্যান্টনমেন্ট পেট্রোল জোনে ক্যান্টনমেন্ট, বনানী ও খিলক্ষেত থানা। উত্তরা-পূর্ব পেট্রোল জোনে উত্তরা-পূর্ব মডেল, উত্তরখান ও দক্ষিণখান থানা। উত্তরা-পশ্চিম পেট্রোল জোনে বিমানবন্দর, উত্তরা-পশ্চিম ও তুরাগ থানা।
ট্রাফিক দক্ষিণ বিভাগের জোনগুলো হচ্ছে- রমনায় শাহবাগ, রমনা ও ধানমন্ডি থানা, লালাবাগে কোতোয়ালি, লালবাগ ও নিউমার্কেট থানা, ট্রাফিক পূর্ব বিভাগে মতিঝিল জোনে মতিঝিল, সবুজবাগ ও রামপুরা থানা, ওয়ারী জোনে ডেমরা, ওয়ারী ও বংশাল থানা। ট্রাফিক উত্তর বিভাগের গুলশান জোনে গুলশান, মহাখালী ও তেজগাঁও শিল্পঞ্চল থানা, উত্তরা জোনে উত্তরা ও বাড্ডা থানা, তেজগাঁও জোনে তেজগাঁও, মোহাম্মদপুর ও শেরে বাংলানগর থানা। ট্রাফিক পশ্চিম বিভাগে তেজগাঁও জোনে মিরপুর, পল্লবী ও দারুস সালাম থানা।