৭৯০ কোটি টাকা ব্যয়ে ছয় প্রস্তাব ক্রয় কমিটিতে অনুমোদন

সরকারী ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ৭৯০ কোটি টাকা ব্যয়ে ছয়টি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা-আশুলিয়া এবং ইস্ট-ওয়েস্ট (মিডল/আউটার রিং রোড) এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ করার লক্ষ্যে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিবসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিবরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মাকসুদুর রহমান পাটোয়ারী। তিনি বলেন, সেতু বিভাগ ঢাকা-আশুলিয়া এবং ইস্ট-ওয়েস্ট (মিডল/আউটার রিং রোড) এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ করার লক্ষ্যে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের একটি প্রস্তাবে ক্রয় কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক এসএমইসি ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেড, বেলজিয়াম এবং বাংলাদেশের দুটি প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে প্রকল্পের সম্ভাব্যতা যাচাই করবে। এ জন্য ব্যয় হবে ১৬ কোটি ২২ লাখ টাকা। বৈঠকে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন সিরাজগঞ্জে নদীর ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের চুক্তির বাইরে অতিরিক্ত কাজের জন্য ব্যয় বেড়েছে। আগে প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছিল ২৫১ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। ব্যয় বেড়ে প্রকল্পের ব্যয় দাঁড়িয়েছে ২৫৪ কোটি ২১ লাখ টাকা। তিনি বলেন, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সেকশনে বিদ্যমান মিটারগেজ রেললাইনের সমান্তরাল একটি ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণ শীর্ষক প্রকল্পের বিভিন্ন কাজের জন্য বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ডিজাইন কনসালট্যান্ট নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে পরামর্শক নিয়োগের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে মোট ব্যয় হবে ১১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। রেলওয়ের আখাউড়া থেকে লাকসাম পর্যন্ত বিদ্যমান রেললাইনকে ডুয়েলগেজ লাইনে রূপান্তর করার একটি প্রস্তাব কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। কোরিয়ার দোহা ইঞ্জিনিয়ার্সকে পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ২৩১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। বৈঠকে ঈশ্বরদী থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত নতুন রেলপথে দুটি রেলওয়ে ব্রিজ নির্মাণে ঠিকাদার নিয়োগের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তমা কনস্ট্র্রাকশন প্রকল্প দুটি বাস্তবায়ন করবে। এ জন্য ব্যয় হবে ১০৮ কোটি ২৬ লাখ টাকা। এ ছাড়াও বৈঠকে পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের ম্যানেজমেন্ট সাপোর্ট কনসালটেন্সি (এমএসসি) সার্ভিসেসের কনসালট্যান্ট নিয়োগের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছে। এ জন্য ব্যয় হবে ১৬৮ কোটি ৫৭ লাখ টাকা।