৬৪ শতাংশ মানুষ মনে করে অর্থনীতি সঠিক পথে

দেশের ৬৪ শতাংশ মানুষ মনে করে বাংলাদেশের অর্থনীতি সঠিক পথেই এগোচ্ছে। তাদের মতে, গণতন্ত্রের চেয়ে অর্থনৈতিক উন্নতি বেশি প্রয়োজনীয়। ৭৯ শতাংশ মানুষ নিজেদের অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে সন্তুষ্ট। তবে দেশের ৬৮ শতাংশ মানুষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহালের পক্ষে। এ ব্যবস্থার বিপক্ষে মত দিয়েছে ২৩ শতাংশ মানুষ। আর ৫৯ শতাংশ মানুষ বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে সম্পূর্ণ স্বাধীন ও নিরপেক্ষ বলে মনে করে। মার্কেটিং গবেষণাপ্রতিষ্ঠান নিয়েলসেন-বাংলাদেশের জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। জরিপটি তত্ত্বাবধান করেছে গ্লোবাল স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারস ও ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউট (আইআরআই)। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান আইআরআই বিশ্বজুড়ে রাজনৈতিক সংগঠনের জনপ্রিয়তা যাচাই করতে নানা ধরনের জরিপ ও গবেষণা করে থাকে। গত বছরের ৩০ অক্টোবর থেকে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত সর্বশেষ জরিপটি পরিচালনা করা হয়। জরিপে বহু স্তরে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। দেশের সাত বিভাগে জেলা অনুযায়ী এবং গ্রাম ও শহরে ব্যক্তি পর্যায়ে ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়। জরিপে অংশ নেন দুই হাজার ৫৫০ জন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি। আজ মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে জরিপের ফল প্রকাশের কথা রয়েছে। জরিপে একটি প্রশ্ন ছিল, ‘আপনি কি মনে করেন, বাংলাদেশ সঠিক পথে যাচ্ছে নাকি ভুল পথে?’ জবাবে উত্তরদাতাদের ৬৪ শতাংশ বলেছেন, বাংলাদেশ সঠিক পথে যাচ্ছে। ৩২ শতাংশ উত্তরদাতার মতে, দেশ ভুল পথে আছে। ২০১৩ সালে একই সময় ৬২ শতাংশ মানুষ মনে করত দেশ ভুল পথে যাচ্ছে। জরিপে অংশগ্রহণকারীদের বেশির ভাগই মনে করেন যে বাংলাদেশ সঠিক নির্দেশনা নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছে। ৬৪ শতাংশ অংশগ্রহণকারী মনে করেন, অর্থনীতিসহ শিক্ষা ও যোগাযোগব্যবস্থার উন্নতি বাংলাদেশকে সঠিক পথে এগিয়ে নেওয়ার অন্যতম শক্তি। জরিপে অংশ নেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ৭২ শতাংশ মনে করেন, আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই তাঁদের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি ঘটবে। জরিপে আরেকটি প্রশ্ন ছিল, আগামী সংসদ নির্বাচনের আগে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে আনা কি উচিত? এতে ৬৮ শতাংশ উত্তরদাতা ‘হ্যাঁ’ জবাব দেন। ২৩ শতাংশ উত্তরদাতা ‘না’ জবাব দিয়েছেন। ৯ শতাংশ উত্তরদাতা এ প্রশ্নের কোনো উত্তর দেননি বা এ বিষয়ে তাঁরা জানেন না বলে মত দিয়েছেন। ২০১৫ সালের জুনে জরিপে একই প্রশ্নে ‘হ্যাঁ’ জবাব ছিল ৬৭ শতাংশ উত্তরদাতার। ‘না’ জবাব ছিল ২২ শতাংশ উত্তরদাতার। জরিপে প্রশ্ন ছিল, ‘বাংলাদেশে নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ ও স্বাধীন, আপনি কি তা বিশ্বাস করেন?’ জরিপের ফলাফলে দেখা যায়, ১২ শতাংশ উত্তরদাতা কোনো মতামত দেননি। ৩৪ শতাংশ উত্তরদাতা পুরোপুরি একমত যে নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ ও স্বাধীন। জোরালোভাবে না হলেও বিষয়টিকে সমর্থন করেন এমন উত্তরদাতা ছিল ২৫ শতাংশ। আর কোনোভাবেই এর সঙ্গে একমত নন ১৬ শতাংশ উত্তরদাতা। এর আগে গত বছর জুনে পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, ৫৮ শতাংশ মানুষ নির্বাচন কমিশনকে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ মনে করত। তবে ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে জরিপে এ হার ছিল ৬১ শতাংশ, ওই বছরের জানুয়ারিতে ছিল ৪৮ শতাংশ। আগামী বছর আপনার বা আপনার পরিবারের ব্যক্তিগত আর্থিক উন্নতি হবে। খারাপ হবে নাকি একই রকম থাকবে? এর উত্তরে ৭২ শতাংশ উত্তরদাতা বলেন, উন্নত হবে। ১০ শতাংশ উত্তরদাতা বলেন, একই রকম থাকবে। আর ৫ শতাংশ উত্তরদাতা বলেন, খারাপ হবে। জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ৪৮ শতাংশ মনে করেন, আওয়ামী লীগের ওপর আস্থা রাখা যায়। এ ক্ষেত্রে ২৪ শতাংশ উত্তরদাতার আস্থা বিএনপির ওপর।