বেড়েছে ক্ষুদ্র ও সুবিধাবঞ্চিতদের মধ্যে ঋণ বিতরণ

২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময়ে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো কটেজ, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি খাত বা সিএমএসএমই খাতে ৮২ হাজার কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করেছে। যা ২০১৫ সালের বাৎসরিক লক্ষ্যমাত্রার ৭৮ শতাংশ। গতকাল রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, বাংলাদেশে টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন একটি শিল্প খাত, যা অধিক হারে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে অবদান রাখতে পারে। কটেজ, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি খাত বা সিএমএসএমই নামে পরিচিত উপখাতটি শ্রমঘন হওয়ায় কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে এর ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। সিএমএসএমই খাতে ঋণ বিতরণ বৃদ্ধির মাধ্যমে এ খাতের উন্নয়নে তাই বাংলাদেশ ব্যাংক নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে সিএমএসএমই খাতে অর্থায়নে ব্যাপক সাফল্য এসেছে। তথ্য পর‌্যালোচনায় দেখা যায়, অপেক্ষাকৃত ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা ও সমাজের সুবিধাবঞ্চিত উদ্যোক্তারা অধিক হারে ঋণ পাচ্ছে। ২০১০ সালে যেখানে মোট সিএমএসএমই ঋণগ্রহীতার মধ্যে কটেজ, মাইক্রো ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তার হার ছিল ৬৫ শতাংশ, ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে তা ৯১ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। অন্যদিকে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯০ হাজারের অধিক নতুন উদ্যোক্তাকে ১৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়েছে; এর মধ্যে প্রায় সাত হাজার নতুন নারী উদ্যোক্তা ৫১১ কোটি টাকা ঋণ পেয়েছেন।

এ ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ উদ্যোগের ফলে শুধু ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো তৃতীয় লিঙ্গ, প্রতিবন্ধী ও সামাজিক সুবিধাবঞ্চিত উদ্যোক্তাদের এক কোটি টাকার অধিক ঋণ বিতরণ করেছে। নতুন উদ্যোক্তা এবং তৃতীয় লিঙ্গ, প্রতিবন্ধী ও সামাজিক সুবিধাবঞ্চিত উদ্যোক্তাদের বেশির ভাগ কটেজ, মাইক্রো ও ক্ষুদ্র শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত।