লক্ষ্মীপুরে ৩০০ কোটি টাকার সুপারি উৎপাদন

চলতি বছরে লক্ষ্মীপুরে ১২ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন সুপারি উৎপাদন হয়েছে। যার আনুমানিক মূল্য ৩০০ কোটি টাকা।
লক্ষ্মীপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, এ জেলায় এবার ৬ হাজার ২৬৫ হেক্টর জমিতে সুপারি চাষ হয়েছে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১ হাজার ৮৫০ হেক্টর, রায়পুরে ৩ হাজার ১৫০
হেক্টর, রামগঞ্জে ৮৭৫ হেক্টর, রামগতিতে ৪০ ও কমলনগর উপজেলায় ৩৫০ হেক্টর জমিতে সুপারি চাষ হয়েছে।
সদর উপজেলার দালাল বাজার, মান্দারী বাজার ও জকসিন বাজারে গিয়ে দেখা যায়, প্রতি কাউন সুপারি (১২৮০টি) ১ হাজার ৪০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
মান্দারী গ্রামের সুপারিচাষি মো. তোফাজ্জল হোসেন জানান, বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে সুপারিগাছে ফুল আসে। এরপর ফুল থেকে সুপারি ধরে। আর সুপারি পাকা শুরু করে কার্তিক-অগ্রহায়ণ মাসে। প্রতি গাছে এ বছর ৮-১০ পন সুপারি উৎপাদন হয়েছে, যার বাজারমূল্য আনুমানিক ৭০০-৮০০ টাকা।
মান্দারী বাজারের ব্যবসায়ী আবুল বাসার বাদশা বলেন, চাষিদের কাছ থেকে সুপারি কিনে ফেনী, খাগড়াছড়ি, রংপুর ও চট্টগ্রামের আড়তদারদের কাছে বিক্রি করা হয়।
লক্ষ্মীপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক গোলাম মোস্তফা জানান, সুপারিচাষিরা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অবলম্বন করায় গত বছরের তুলনায় এবার ফলন ভালো হয়েছে। তিনি বলেন, প্রক্রিয়াজাত করে সুপারি বিদেশে রপ্তানি করা হলে কৃষকেরা ন্যায্যমূল্য পাবেন।